রোববার থেকে দেশব্যাপী অনির্দিষ্টকালের জন্য ট্যাংকলরী ধর্মঘট 

0
24
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: ঢাকা ২২ অক্টোবর ২০২২, ‘আগামীকাল রোববার থেকে ১০ দফা দাবিতে সারা দেশব্যাপী অনির্দিষ্টকালের জন্য ট্যাংকলরী ধর্মঘট আহ্বান করেছে বাংলাদেশ ট্যাংকলরী শ্রমিক ফেডারেশন। আজ এক বিবৃতিতে ফেডারেশনের সভাপতি হাজী মোঃ শাহজাহান ভূঁইয়া ও সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রেজা ধর্মঘট সফল করার জন্য সারা দেশের সকল ডিপো থেকে তেল উত্তোলন, পরিবহন বন্ধ ও দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত লাগাতার কর্ম বিরতি পালনের আহ্বান জানিয়েছেন। ইতোমধ্যে সকল ডিপোতে একযোগে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। বিবৃতিতে বলা হয়, বাংলাদেশ ট্যাংকলরী শ্রমিক ফেডারেশন দেশের সড়ক পথে জ্বালানী তেল বহনকারীযান ট্যাংকলরী শ্রমিকের বেসিক ইউনিয়ন দ্বারা গঠিত একটি ট্রেড ইউনিয়ন ফেডারেশন। এ সংগঠনের সদস্যরা দেশের অতিব গুরুত্বপূর্ণ সার্ভিসের সাথে জড়িত। যেমন জ্বালানী তেল, বিদ্যুৎ উৎপাদন, বেসরকারী বিমান চলাচল, প্রতিরক্ষা ফুয়েল সরবরাহ, ফিলিং ষ্টেশন, নৌযান, রেলওয়ে ও কৃষির সেচ কাজসহ কল কারখানায় উৎপাদনজনিত নানা কাজে ব্যবহৃত জ্বালানী তেল পরিবহন করে থাকে। যে কারণে জ্বালানী তেলকে উন্নয়নের অক্সিজেনের সাথে তুলনা করা হয়েছে।
দীর্ঘ সময়ে আমাদের কতিপয় দাবী উত্থাপন করা হলে কিছু দাবীপুরণ হয় এবং অন্যান্য বিষয়ে সিদ্ধান্ত হলেও তা কার্যকর হয় নাই। এ সময়ের মধ্যে তথাকথিত আন্দোলনের নামে সরকারকে বেকায়দায় ফেলে দেয়ার জন্য ২০১৩-২০১৫ সালে নির্বাচন বর্জন, অবরোধ ও অগ্নি সন্ত্রাসের সময় আমরা জীবনের উপর চরম ঝুঁকি নিয়ে সারাদেশে তেল পরিবহন করে দেশের জ্বালানী সরবরাহ ব্যবস্থা সচল রেখেছি।
জাতীয় উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে বিশেষ ভূমিকা রেখেছি যা আমাদের মাননীয় জ্বালানী প্রতিমন্ত্রী মহোদয়সহ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাও অবগত আছেন। সরকারের চরম দুঃসময়ে পাশে ছিলো সড়ক পরিবহন শ্রমিকরা এবং জ্বালানী তেল পরিবহন শ্রমিকরাই তা সরকারের সাফল্যে অন্যতম শক্তিশালী অংশীদার। ২০১৭ সালে ট্রাক ও কার্ভাড ভ্যান থেকে ট্যাংকলরী শিল্পকে আলাদা করার পরেও সকল ট্রাক ইউনিয়ন থেকে “ট্যাংকলরী” শব্দটি যাতে বেআইনিভাবে কেউ ব্যবহার করতে না পারে তা বাস্তবায়নের জন্য আমরা শ্রম মহাপরিচালককে বহুবার লিখিতভাবে জানিয়েছি। আমরা দুঃখের সাথে জানাতে চাচ্ছি যে, বিপিসি, বি.আর.টি.এ এবং শ্রম অধিদপ্তরকে আমরা আমাদের সমস্যা জানিয়ে কোন ফল পাইনি।
আমাদের দাবি সমূহ হচ্ছে-
১। ট্যাংকলরী শ্রমিকদের নিয়োগপত্র, পরিচয় পত্র, সার্ভিস বুক প্রদান করাসহ শ্রম আইন ও শ্রম বিধি অনুযায়ী শ্রমিকের যাবতীয় রেকর্ডপত্র সংরক্ষণ করতে হবে।
২। ট্যাংকলরী শিল্পের শ্রমিকদের জন্য নূন্যতম মজুরী কাঠামো নির্ধারনের জন্য নিম্নতম মজুরী বোর্ড গঠন করতে হবে।
৩। ট্যাংকলরী শ্রমিকদের জন্য পূর্ববর্তী সিদ্ধান্ত ৫ (পাঁচ লক্ষ) টাকা দূর্ঘটনা বীমা অবিলম্বে কার্যকর করতে হবে।
৪। কেন্দ্রীয় ট্যাংকলরী টার্মিনালসহ সারাদেশে সকল তেলের ডিপোর সাথে অত্যাবশ্যকীয় সুবিধাসহ ট্যাংকলরী টার্মিনাল নির্মান করতে হবে।
৫। ট্যাংকলরী চালকদের সহজ শর্তে ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রদান করতে হবে।
৬। সড়কে যত্র-তত্র চলন্ত ট্যাংকলরী থামিয়ে পুলিশী হয়রানী বন্ধ করতে হবে।
৭। ট্যাংকলরী শ্রমিকদের জন্য শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন থেকে পৃথকভাবে সাহায্য-সহযোগীতার ব্যবস্থা করতে হবে।
৮। ট্যাংকলরী শিল্পে অপরাপর সেক্টরের শ্রমিকদের অনুপ্রবেশ ঘটানোর মালিকদের অপচেষ্টা বন্ধ করতে হবে।
৯। ট্রাক, ট্যাংকলরী ও কাভার্ডভ্যান শ্রমিক ইউনিয়ন নামীয় সংগঠন থেকে “ট্যাংকলরী” শব্দটি পরিহার করতে হবে।
১০। শ্রম আইন, ২০০৬ এর ১৭৯ (৫) ধারা সংশোধন করে শুধুমাত্র ” দাহ্য পদার্থবাহী ট্যাংকলরীর ক্ষেত্রে” একই প্রতিষ্ঠানে একটির বেশী ইউনিয়ন গঠন করা যাবে না মর্মে সংশোধন করতে হবে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here