শ্রমিক আন্দোলনে রণক্ষেত্র গাজীপুর, পুলিশের গাড়ি ও কারখানায় আগুন

0
79
728×90 Banner

গাজীপুর প্রতিনিধিঃ গাজীপুরে শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে কয়েকটি এলাকা সোমবার রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। সংঘর্ষে পুলিশের গুলিতে একজন শ্রমিক নিহত হয়েছেন। পথচারিসহ অর্ধশতাধিক শ্রমিক আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে গুরুতর ১১ জনকে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সংঘর্ষ চলাকালে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা একটি পোশাক কারখানা, পুলিশের একটি গাড়ি ও একটি পুলিশ বক্সে আগুন দিয়েছে। ভাংচুর করেছে অসংখ্য গাড়ি।
বেলা দেড়টা নাগাদ ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের মহানগরীর গাছা ও বাসন এলাকা পুলিশের নিয়ন্ত্রণে এলেও সোমবার সন্ধ্যার পরও কোনাবাড়ি এলাকা ছিলো পুলিশের নিয়ন্ত্রণের বাইরে। তীব্র শ্রমিক আন্দোলনে এলাকা অগ্নিগর্ভে পরিণত হয়েছে। উদ্ভুত পরিস্থিতিতে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ-জিএমপি সোমবার বিকেলে এক সংবাদ সম্মেলনে সার্বিক পরিস্থিতি তুলে ধরে শ্রমিকদের কাজে ফিরে যাওয়ার অনুরোধ জানিয়েছে।
জানা গেছে, ন্যূনতম বেতন ২৩ হাজার টাকা করার দাবিতে গত ২৩ অক্টোবর থেকে গাজীপুরে পোশাক শ্রমিকদের আন্দোলন শুরু হয়। এরপর এ দাবিতে প্রতিদিনই সড়ক ও মহাসড়ক অবরোধ, বিভিন্ন কারখানায় হামলা, ভাংচুর ও পুলিশের সাথে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটছে। সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে উত্তেজিত শ্রমিকরা ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের কলম্বিয়া গার্মেন্টস এলাকায় পুলিশের একটি গাড়িতে আগুন ও বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাংচুর করে। একইসাথে ঢাকা-টাঙ্গাইল সড়কের কোনাবাড়ি এলাকায়ও অভিন্ন দাবিতে বিক্ষোভ ও সড়ক অবরোধ করে শ্রমিকরা। এসব এলাকায় পুলিশের সাথে দফায় দফায় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়।
সংঘর্ষ চলাকালে সকাল ১০টা থেকে বেলা পৌনে ১টা পর্যন্ত ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের উভয় পাশে যান চলাচল বন্ধ ছিলো। এসময় হাজার হাজার যাত্রী চরম ভোগান্তির শিকার হন। যাত্রীদেরকে বহু কষ্টে হেটে গন্তব্যে যেতে দেখা গেছে। এ সংঘর্ষের কারণে অনার্স পরীক্ষার্থীদের টঙ্গী সরকারি কলেজ ও ভাওয়াল বদরে আলম কলেজ কেন্দ্রে যেতে বেশ বিলম্ব ঘটে। টঙ্গী সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, অবরোধের কারণে অর্ধশতাধিক পরীক্ষার্থী নির্ধারিত সময়ের বিশ মিনিট পরে কেন্দ্রে পৌঁছায়। এরপরেও যারা এসেছেন আমরা অবরোধের কথা বিবেচনা করে তাদেরকে পরীক্ষার সুযোগ দিয়েছি।
এদিকে সোমবার দুপুর ১২টা থেকে পুলিশ শ্রমিকদের মহাসড়ক ছাড়তে বাধ্য করতে ব্যাপক রাবার বুলেট, সাউন্ড গ্রেনেড, জলকামাল ব্যবহার করে। এরই মধ্যে পুলিশ কয়েক দফায় শ্রমিকদের চতুর্মুখী আক্রমণের শিকার হয়। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা বাসন সড়ক এলাকায় মহাসড়কে জ্যামে আটকা পড়া পুলিশের একটি গাড়ি আগুনে সম্পূর্ণ পুড়িয়ে দেয়। এসময় পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও বিভিন্ন অলি-গলিতে পুলিশ-শ্রমিক কানামাছি খেলায় আবাসিক এলাকায়ও আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। কলকারখানা, দোকানপাট ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মতই বাসা-বাড়ির গেট ও দরজা বন্ধ করে মানুষ ভেতরে অবস্থান নেয়। বেসামাল পরিস্থিততে পোশাক কারখানাগুলোতে ছুটি ঘোষণা করা হয়। বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা অলি-গলিতে ঢুকে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, দোকানপাট ও বাসা-বাড়িতেও হামলা চালায়।
ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের নগরীর গাছা থানার হারিকেন এলাকা, বাসান থানার বাসনসড়ক ও ভোগড়া এলাকায় বেলা পৌনে ১টায় পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে এলে যানবাহন চলাচল শুরু হয়। সংঘর্ষ চলাকালে পথচারীসহ অর্ধশতাধিক শ্রমিক আহত হয়। গুরুতর আহত গার্মেন্টস শ্রমিক রাসেল হাওলাদারকে (২২) বেলা দেড়টার দিকে টঙ্গী আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখান থেকে তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। রাসেল বুকে গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান বলে তার সহকর্মী রঞ্জু মিয়া জানিয়েছেন।
তবে রাসেল হাওলাদার কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট্রে নিহত হয়েছেন বলে সংবাদ সম্মেলনে দাবি করেছেন জিএমপি গোয়েন্দা বিভাগের (দক্ষিণ) উপ-পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ ইব্রাহিম খান। তিনি সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে রাসেলের বুকে আঘাতের চিহ্নের কথা স্বীকার করলেও ময়না তদন্ত রিপোর্ট ছাড়া মৃত্যুর প্রকৃত কারণ বলা যাচ্ছে না বলেও মন্তব্য করেন। নিহত রাসেল ঝলকাঠি জেলা সদরের বিনাইকাঠি গ্রামের আব্দুল হান্নান হাওলাদারের ছেলে বলে জানা গেছে। তিনি স্থানীয় বাসন সড়ক এলাকায় ডিজাইন এক্সপ্রেস পোশাক কারখানার শ্রমিক বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।
এছাড়া সংঘর্ষে আহত শ্রমিক মাজেদ (৩৮), ফারজানা (২২), আদরী (২৫), খাদিজা (২৬), মিতু(৩০), তানিয়া (৩০), মফিজ মুন্সি (৩৯), শাকিল (২৫), সোহেল (২০), হেলেনা (৪৫) ও পথচারী অনিককে (১৫) গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তারা কলম্বিয়া ও আশপাশের বিভিন্ন কারখানার শ্রমিক বলে জানা গেছে।
এদিকে সোমবার বিকেলে নগরীর কোনাবাড়ি এলাকায় একটি পুলিশ বক্সে আগুন দেয় বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা। সেখানে সন্ধ্যার পরও থেমে থেকে সংঘর্ষ চলার একপর্যায়ে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা এবিএম গার্মেন্টসে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরে দমকল বাহিনী রাত পৌনে ৮টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।
বাসন কলন্বিয়া গার্মেন্টের শ্রমিক আব্দুর রাজ্জাক বলেন, সব কিছুর দাম বাড়লেও শ্রমিকদের বেতন ও জীবন মান বাড়েনি। বর্তমান বেতনে জীবন চালানো কষ্ট। তাই বেঁচে থাকার তাগিদে বাধ্য হয়েও আমরা বেতন বাড়ানোর দাবিতে আন্দোলন করছি।
গাজীপুর শিল্পাঞ্চল পুলিশ-২ এর পুলিশ সুপার সারোয়ার আলম বলেন, পুলিশ ও জিএমপি পুলিশের যৌথ প্রচেষ্টায় বেলা পৌনে ১টায় ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের বাসন, ভোগড়া এলাকায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়েছে। কোনাবাড়ি এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
এদিকে সোমবার বিকেলে এক সংবাদ সম্মেলনে জিএমপি গোয়েন্দা বিভাগের (দক্ষিণ) উপ-পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ ইব্রাহিম খান বলেন, গাজীপুর মহানগর এলাকায় গার্মেন্টস শ্রমিকদের বেতন বৃদ্ধির দাবিতে চলমান শ্রমিক আন্দোলনে সংঘর্ষ ও রাস্তা অবরোধকে কেন্দ্র করে ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশসহ গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ শ্রমিকদের রাস্তা অবরোধ করতে বাধা প্রদান করে। গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ মহানগর এলাকায় যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক রাখতে ও জনগণের জানমাল হেফাজত রাখতে সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় রয়েছে এবং নিয়মিত কাজ করে যাচ্ছে। সোমবার সকাল থেকে গার্মেন্টস শ্রমিকরা দফায় দফায় রাস্তা অবরোধ ও গাড়ি ভাংচুর করলে পুলিশ তাদের বাধা প্রদান করে।
দূর্গাপুজার দশমীর দিন থেকে কালিয়াকৈরে একটি গার্মেন্টসে বেতন বৃদ্ধির দাবিতে ভাংচুরের ঘটনা ঘটে এবং তা ক্রমেই অন্যান্য কারখানায় ছড়িয়ে পড়ে। নগরীর কোনাবাড়ী থানায় এলজেড গার্মেন্টস, তশুকা গার্মেন্টস, কেয়া কসমেটিক্স, এমএম নিট ওয়্যার, অনন্ত গার্মেন্টস, ইসলাম গার্মেন্টসসহ কোনাবাড়ীর বিভিন্ন গার্মেন্টস, বাসনের কলম্বিয়া গার্মেন্টস, স্টার লাইট গার্মেন্টস সহ অন্যান্য গার্মেন্টসেও ছড়িয়ে পরে। এ সময়ে গার্মেন্টস শ্রমিকরা রাস্তা অবরোধ করলে পুলিশ তাদের উপর টি-আর গ্যাস নিক্ষেপ করে ও ফাঁকা জায়গায় রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে ছত্রভঙ্গ করে। সোমবার বেলা সাড়ে ১১টা হতে বাসন থানাধীন কলম্বিয়া গার্মেন্টসের সামনে শ্রমিকরা রাস্তা অবরোধ, ভাংচুর ও গাড়ীতে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটায়। সোমবার বেলা ১টায় স্থানীয় তায়রুন্নেছা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে গাছা থানায় ফোন করে জানানো হয়, গার্মেন্টসের শ্রমিক রাসেল হাওলাদার (২২) অসুস্থ অবস্থায় সেখানে ভর্তি আছে। পুলিশ সেখানে গেলে ডাক্তার জানায় তার কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হয়েছে। তাকে টঙ্গী আহসানউল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালে এবং সেখান থেকে উচ্চতর চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। তিনি সেখানে মৃত্যুবরণ করেছেন। ময়না তদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পর তার মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।
গার্মেন্টস শ্রমিকদের বেতন বৃদ্ধির বিষয়টিকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন স্বার্থান্বেষী মহল অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করার জন্য বিভিন্নভাবে উস্কানি দিয়ে যাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, বিভিন্ন গোয়েন্দা সাংস্থার মাধ্যমে তা পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে এবং ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। গার্মেন্টস শ্রমিকদের বেতন বৃদ্ধির বিষয়ে ওয়েজ বোর্ড ও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয় কাজ করছে। তবে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে কারা উস্কানি দিচ্ছে এ ব্যাপারে এখনো পর্যন্ত সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য পুলিশের কাছে নেই বলে তিনি জানান। এ শ্রমিক আন্দোলনে কারা বা কোন সংগঠন নেতৃত্ব দিচ্ছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, কেউ নেতৃত্ব দিচ্ছে না, বেতন বাড়ানোর দাবিতে বিচ্ছিন্নভাবেই বিভিন্ন কারখানার শ্রমিকরা আন্দোলন করছে।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরো জানান, সংঘর্ষে কোনো পুলিশ সদস্য আহত হওয়ার খবর এখনো তাদের কাছে আসেনি। বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা যে গাড়িতে আগুন দিয়েছে সেটি পুলিশের গাড়ি (পিক-আপ) নয় দাবি করে তিনি বলেন, সেটি মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর বা অন্য কোন সংস্থার হতে পারে। তবে এ ব্যাপারে কেউ সন্ধ্যা পর্যন্ত কোনো অভিযোগ দেয়নি।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here