সারাদেশে স্বাস্থ্য সেবায় নবীনগর সরকারি হাসপাতাল দ্বিতীয় স্থান অর্জন

0
26
728×90 Banner

নবীনগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া)প্রতিনিধি : সারাদেশে স্বাস্থ্যসেবা মান নিয়ন্ত্রনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে উপজেলা সরকারি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সার্বিক কার্যক্রম পর্যালোচনায় করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রকাশিত তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে অন্তভুক্ত হয়েছে। মঙ্গলবার (১৪/০৯) রাতে গতকাল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর অনলাইন ওয়েবসাইটে এ তালিকা প্রকাশ করা হয়। বুধবার (১৫/০৯) উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার হাবিবুর রহমান এক প্রেসব্রিফিং-এ সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়ে হাসপাতালের বর্তমান চিত্র তুলে ধরেন।
সূত্রে জানায়, ৬০-৭০ ভাগ থেকে বর্তমানে শতভাগের চেয়ে বেশি রোগী ভর্তি হচ্ছে। প্রতিদিন বহির্বিভাগে দেড়শ থেকে দুইশ ছাড়িয়ে গড়ে চারশ’র অধিক রোগী চিকিৎসা সেবা নিচ্ছে। করোনা রোগীর চিকিৎসার জন্য মাত্র ২৫টি অক্সিজেন সিলিন্ডার থেকে এখন ৮১টি অক্সিজেন সিলিন্ডার রয়েছে।
গর্ভবতী মায়েদের জন্য বহির্বিভাগে আলাদাভাবে ডাক্তার এবং সিস্টারসহ এনসি কর্ণার চালু এবং জরুরী রোগীদের নিরাপদ সিজার নিশ্চিত করা, গর্ভবতী মায়েদের সাথে সার্বিক যোগাযোগ রায় এনসি কর্নারে নতুন মোবাইলফোন সার্ভিস চালু, আধুনিক অপারেশন থিয়েটার এবং উন্নত পোস্ট অপারেটিভ রুম স্থাপন। হাসপাতালে চালু হয়েছে নতুন চুক্ষ বিভাগ, যক্ষা রোগ সনাক্তের জিন এক্সপার্ট মেশিন। আল্ট্রাসনোগ্রাফিকে পুরোদমে সচল করা হয়েছে। হাসপাতালে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুতায়ন নিশ্চিত করা হয়েছে। জরুরি বিভাগ, আন্তর্বিভাগ এবং পোস্ট অপারেটিভ রুমের জন্য ৩ টি আইপিএস চালু রয়েছে। এছাড়াও অপারেশন রুমে সার্বণিক বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য জেনারেটর মেশিন সচল রয়েছে।
করোনা রোগীদের সেবায় হাসপাতালে ৩ টি অক্সিজেন কনসেনট্রেটর মেশিনসহ জাইকার সহায়তায় সার্বণিক অক্সিজেন সুবিধা পাবার জন্য সেন্ট্রাল অক্সিজেন লাইন তৈরির কাজ ও ডিজিটাল এক্সরে মেশিন আনায়নের কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। হাসপাতালে রাজস্ব আয় বেড়েছে কয়েকগুন ৪ লক্ষ ৯২ হাজার ২৩ টাকা থেকে এখন ২০২০-২১ অর্থবছরে এই আয় দাড়িয়েছে ১৮ ল ৮৩ হাজার ৫১৮ টাকা।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ হাবিবুর রহমান জানান, এমপি এবাদুল করিম মহোদয়ের প্রচেষ্ঠায় একটি নতুন এম্বুলেন্স,ডাক্তারসহ জনবল পদায়ন, ইউএইচএফপিও এর কার্যক্রম দ্রুততর করার জন্য একটি জিপ কার প্রদান করা হয়েছে। তাছাড়া বর্তমানে ৫ তলা ফাউন্ডেশনসহ ৩১ শয্যার তিনতলা ভবনের নির্মানকাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে। হাসপাতালের পূর্বের জরাজীর্ণ মসজিদ এবং ওযুখানা সংস্কার ও শীতাতপনিয়ন্ত্রন মধ্য দিয়ে আধুনিক করা হয়েছে। তিনি বলেন, হাসপাতালের সার্বিক উন্নয়নের প্যারামিটারসমূহ পর্যবেক্ষণ করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে প্রকাশিত হাসপাতাল রেনকিং এ নবীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২য় স্থানে উঠে এসেছে এবং একাধিকবার ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় প্রথম স্থান অধিকার করেছে যা প্রশংসার দাবিদার।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

1 × three =