সিএনজি অটোরিক্সা দৈনিক জমা বৃদ্ধি হয়রানী ও জুলুম ……. পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন

0
15
Exif_JPEG_420
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর সংবাদ বিজ্ঞপ্তি : আজ বেলা ১১ ঘটিকায় বাংলাদেশ অটোরিক্সা হালকাযান পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের উদ্যোগে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সিকদার বেনজির আহামেদ। প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন ফেডারেশনের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক সভায় বক্তব্য রাখেন রফিকুল ইসলাম, জয়নাল আবেদিন সান্ত, মোঃ নোয়াব আলী, সেলিম মাহমুদ, বেলাল হোসেন, শেখ হানিফ, আকরাম হোসেন মন্টু প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।
বক্তারা বলেন, সিএনজি অটোরিক্সা মালিকগণের অতি মুনাফা ও চালকদের জুলুমের হাতিয়ার হিসেবে বিআরটিএ সহযোগিতা করছে বলে নেতৃবৃন্দ মনে করেন। নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, মালিকদের জুলুম ও অতিরিক্ত গাড়ীর জমা আদায়ের কারণে যাত্রীগণকে যথাযথভাবে সেবা দিতে পারছেন না চালকগণ। এ বিষয়ে দীর্ঘদিন ধরে চালকরা প্রতিবাদ করে আসছে। মালিকদের জুলুমের কারণে এই পরিবহন শিল্পে বিশৃঙ্খলা বন্ধ করা যায়নি। সভায় প্রধান বক্তা বলেন, আমরা মালিকদের অতিরিক্ত জমা আদায়ের ও জুলুম বন্ধের দাবিতে বিআরটিতে শ্রমিক-মালিকদের বৈঠকের জন্য লিখিত আবেদন করে আসছ্ িঅতপর গত ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ তারিখে একটি সভা ১৯ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠানের নোটিশ বিআরটিএ ইস্যু করে। অতপর ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ সভাটি স্থগিত ঘোষণা করে। আমরা বিশ্বস্তসূত্রে জানতে পারলাম ৬ ডিসেম্বর ২০২২ তারিখে মালিকদের দৈনিক গাড়ীর জমা বৃদ্ধির জন্য একটি সভার আয়োজন করা হয়েছে। উক্ত সভায় শ্রম দপ্তর কর্তৃক অনিবন্ধিত ও অ-অনুমোদিত শ্রমিক সংগঠনকে নিয়ে সভার আহ্বান করেছে। শ্রম আইনে নিবন্ধনহীন শ্রম দপ্তরের অনুমোদনবিহীন কমিটি সংগঠন এর কোন প্রকার আইনী সিদ্ধান্ত নিতে পারেনা। আমরা মনে করি এটি অন্যায়। সরকারি বিধি বহিভূত। শ্রমিকগণ ঐ অবৈধ সভার সিদ্ধান্ত মানতে বাধ্য নয়। ঐ সভায় শ্রমিকদের উপর যে কোন অন্যায় সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দিলে তা প্রতিহত করার জন্য যে কোন আইনগত সিদ্ধান্ত নিতে শ্রমিকগণ বাধ্য হবে। সভায় সভাপতির বক্তব্যে বলেন, বিআরটিএ এখন আর সেবামূলক প্রতিষ্ঠান নয়। এটা এখন চালকদের জুলুম ও নির্যাতনের কারখানায় পরিণত হয়েছে। তিনি আরো বলেন, বিআরটি যদি অবৈধ ও অ-অনুমোদিত শ্রমিক সংগঠন নিয়ে চালকদের উপর কোন সিদ্ধান্ত চাপানোর চেষ্টা হলে সকল আইনী কর্মসূচির মাধ্যমে তা প্রতিহত করা হবে। শ্রমিকগণ বিগত বছরগুলোতে চালকদের থেকে দৈনিক জমার নামে মালিকগণ কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে তা চালকদের কাছে ফেরত দেয়ার জোর দাবি জানান। নিয়োগপত্র আইন থাকলেও এই শ্রমিকদেরকে নিয়োগপত্র দেয়া হচ্ছে না। ঢাকা শহরে কোথায় কোন পার্কিং এর ব্যবস্থা নাই, কিন্তু সার্জেন্ট অহরহ নো পার্কিং মামলা করে যাচ্ছে। এ বিষয়ে চালকদের ঐকবদ্ধ থাকার আহ্বান জানিয়ে সভা শেষ করেন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here