সেপটিক ট্যাংকে গৃহবধূর লাশ

0
189
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: গাজীপুর মহানগরের ভাওরাইদ উত্তরপাড়া এলাকায় সেপটিক ট্যাংকে আফরোজা বেগম (২২) নামে এক গৃহবধূর লাশ পাওয়া গেছে।
শুক্রবার মধ্যরাতে স্থানীয় মুকুলের ভাড়া বাড়ি থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়।
শনিবার পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে।
নিহতের মামা একামত হোসেন জানান, নিহত আফরোজা গাইবান্ধা সদরের জিকাবাড়ি এলাকার বিল্লাল হোসেনের মেয়ে। তার স্বামী শাহজাহান মিয়ার বাড়ি জামালপুরের সানন্দবাড়ির মন্ডলপাড়া এলাকায়।
গত ৭-৮ বছর আগে তাদের বিয়ে হয়। তাদের ঘরে সাথী নামে ছয় বছর বয়সী এক কন্যাসন্তান রয়েছে। আফরোজা স্থানীয় সালনা এলাকার শ্যামলী গার্মেন্টসে কাজ করতেন এবং শাহজাহান স্থানীয় জোলারপাড় একটি স্টিল মিলে চাকরি করেন।
তারা সপরিবারে ভাওরাইদের মুকুল হোসেনের বাড়িতে ভাড়া থাকতেন। শুক্রবার রাতে তারা কর্মস্থল থেকে বাসায় ফেরেন। এসময় তার মেয়ে দাদীর বাসায় ছিল। এ সুযোগে শাহজাহান মিয়া স্ত্রীকে হত্যা করে তার লাশ রাত সাড়ে ১২টার দিকে ভাড়া বাড়ির পাশের রাস্তার ধারে সেপটিক ট্যাংকে ফেলে দেয়।
এসময় রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় স্থানীয় মুকুল মিয়া ও তার শ্যালক বিষয়টি দেখে ফেলে। পরে শাহজাহান তাদের ঘটনাটি কাউকে না বলতে হাতে পায়ে ধরে অনুরোধ করে এবং তাদের টাকা দেয়ারও প্রস্তাব দেয়। কিন্তু তারা ওই প্রস্তাবে রাজি না হয়ে ঘটনাটি নিহতের স্বজন ও স্থানীয় ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মঞ্জুর হোসেনের কাছে জানায়। ঘটনার পর থেকে শাহজাহান মিয়া এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যান।
জানা গেছে, আফরোজা সৌদি আরবে চাকরি করতেন। এক বছর আগে দেশে ফিরে শ্যামলী গার্মেন্টে চাকরি নেন।
গাজীপুর সদর থানার এসআই মো. রিয়াজ জানান, নিহতের গলায় শ্বাসরোধ করে হত্যার চিহ্ন রয়েছে। ঘটনাটি হত্যা না আত্মহত্যা ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার পর জানা যাবে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here