স্ত্রীর মুখে ‘স্বামী হত্যার রোমহর্ষক বর্ণনা’!

0
215
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : পাঁচ বছর আগে ময়মনসিংহের তারাকান্দার উলামাকান্দি এলাকার আব্দুল লতিফের ছেলে রফিকুল ইসলাম শেখ (৩০); নেত্রকোনার পূর্বধলার বিষমপুর গ্রামের চাঁন মিয়ার দ্বিতীয় মেয়ে জীবন্নাহারকে (২৫) পারিবারিকভাবে বিয়ে করেন। এক বছরের মধ্যেই তাদের একটি মেয়ে হয়। নাম রাখেন মারিয়া আক্তার রোজা। যার বয়স এখন চার বছর।
প্রায় আড়াই বছর আগে গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার গিলারচালা এলাকায় আব্দুল হাইয়ের বাড়িতে ভাড়া ওঠেন এই দম্পত্তি। তাদের একমাত্র মেয়ে রোজা বেশির ভাগ সময় গ্রামে নানির কাছে থাকে।
রফিকুল ওই এলাকার ‘হাউ আর ইউ’ নামে একটি টেক্সটাইল কারখানায় ৭ হাজার টাকা বেতনে লোডার পদে আর জীবন্নাহার একই এলাকায় মেঘনা নিট কম্পোজিট কারখানায় সুয়িং অপারেটর পদে ১৩ হাজার টাকা বেতনে দুদিন আগেও চাকরি করতেন।
রফিকুল স্ত্রীর বেতনের টাকা তার কাছে দিতে বলতেন। জীবন্নাহার টাকা পাঠিয়ে দিতেন গ্রামে মায়ের কাছে। এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে প্রায়ই বাকবিতন্ডা হত।
বৃহস্পতিবার (২৪ জানুয়ারি) সকালে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে স্ত্রীকে থাপ্পড় মেরে স্বামী খাটে শুয়ে থাকেন। এ সময় কিছু বুঝে ওঠার আগেই জীবন্নাহার ইট দিয়ে স্বামীর মাথায় আঘাত করলে, তিনি খাট থেকে নিচে পড়ে যান। জীবন্নাহার উপর্যুপরি আরও আঘাত করলে রফিকুল অচেতন হয়ে পড়েন।
এরপর গলায় গামছা পেঁচিয়ে মৃত্যু নিশ্চিতের পর হাত-পা বাঁকা করে স্বামীর লাশ ঘরের ওয়ার্ড্রবে লুকিয়ে কাজে চলে যান জীবন্নাহার। ঘটনার সময় পাশ্ববর্তী খালার বাসায় ছিলেন রোজা।
রাত ৮টার দিকে কর্মস্থল থেকে ফিরে ছোট বোনের বাসায় যান জীবন্নাহার। সেখানেই রাতের খাবার খেয়ে ১১টার দিকে নিজের বাসায় গিয়ে রান্নাঘরে বসে ঘণ্টাখানেক বঁটিতে শান দেন তিনি।
এরপর ওয়ার্ড্রব থেকে স্বামীর লাশ বের করে বাথরুমে নিয়ে বঁটি দিয়ে দুই হাত কুনই থেকে, দুই পা হাঁটু থেকে এবং ঘাড় থেকে মাথা বিচ্ছিন্নের পর মগজ বের করে ফেলেন। পরে পা দুটি অদূরে টয়লেটের পাশে, মাথা আর হাত দুটি নর্দমায় এবং দেহ বস্তায় ভরে লুঙ্গি পেঁচিয়ে টেনে পাশের বাঁশঝাড়ে ফেলে দেন। নৃশংসতায় ব্যবহৃত বঁটিটিও বাইরে লুকিয়ে নিজ কক্ষে ফিরে রক্তমাখা জামাকাপড় ধুয়ে, গোসল সেরে শুয়ে পড়েন। মূলত স্বামীর পুরো দেহ বহন করে গুম করা কঠিন হবে ভেবেই লাশ ছয় টুকরো করেন তিনি।
প্রতিবেশী ভাড়াটে জোহরা খাতুন শুক্রবার (২৫ জানুয়ারি) দুপুর পৌনে ১২টার দিকে পাশে সবজিখেতে সবজি তোলার সময় বাঁশঝাড়ের সামনে আবর্জনার মধ্যে রক্তাক্ত চটের বস্তা দেখতে পান। এর প্রায় ৪০০ গজ দূরে মরদেহের পায়ের দুটি টুকরা দেখে তিনি চিৎকার দেন।
খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পৌঁছে টুকরা দেহাংশগুলো উদ্ধার করে। এরপর পাশে ময়লা ফেলার ঝুড়ি থেকে দুই হাত ও মরদেহের খন্ডিত মাথা উদ্ধার করে। পরে বাড়ির মালিকসহ প্রতিবেশীরা মরদেহটি রফিকুলের বলে শনাক্ত করে। ঘটনার পর থেকে জীবন্নাহারের ছোট বোন স্বামীসহ পালিয়ে গেছেন।
ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় শনিবার গাজীপুর আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছেন ওই নারী। জবানবন্দিতে খুনের নির্মম কাহিনী প্রকাশ হয়।
এর আগে বেলা ১২টার দিকে সাংবাদিক ডেকে চাঞ্চল্যকর এই হত্যাকান্ডের বর্ণনা দেন গাজীপুরের পুলিশ সুপার (এসপি) শাসসুন্নাহার। তখন হত্যাকারী জীবন্নাহার উপস্থিত ছিলেন। সাংবাদিকরা প্রশ্ন করলে জীবন্নাহার বিভিন্ন সময় নির্যাতিত হওয়ার কথা জানান।
গতকালই এই হত্যাকান্ডের রোমহর্ষক কাহিনী প্রকাশ পায়। এসপির আজকের প্রেসব্রিফিংয়ে নতুন কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।
শ্রীপুর থানার এসআই শহিদুল ইসলাম মোল্লা জানান, জীবন্নাহারের স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে ঘটনার রাতেই নৃশংসতায় ব্যবহৃত বঁটিটি জব্দ করা হয়েছে।
শ্রীপুর থানার ওসি মো. জাবেদুল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় রফিকুলের বাবা আব্দুল লতিফ বাদী হয়ে জীবন্নাহারকে আসামি করে মামলা করেছেন। মামলায় জীবন্নাহারকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। পুলিশ ঘটনা গভীরভাবে তদন্ত করছে বলেও জানান তিনি।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here