স্বল্প কর্মজীবনেই নিজেকে মেলে ধরেছেন এসআই (নিঃ) জ্যোতির্ময় মল্লিক

0
279
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : সাহস, মেধা ও যোগ্যতা দিয়ে স্বল্প সময়ে নিজেকে মেলে ধরেছেন লালবাগ থানার এসআই (নিঃ) জ্যোতির্ময় মল্লিক। শৈশবে বেড়ে ওঠা গোপালগঞ্জ জেলার, কোটালীপাড়া থানার, লখন্ডা গ্রামে। বাবা- বীরেন্দ্রনাথ মল্লিক, মাতা- এলোকেশী মল্লিক। মা-বাবার দুই (দুই ভাই) সন্তানের মাঝে তিনি ছোট। কর্মজীবনে ২০১৯ সালে রাজশাহী সারদার ১ বছরের পুলিশ প্রশিক্ষন শেষে ধানমন্ডি থানায় ২০২০ সালের ১০ফেব্রæয়ারি এক বছর শিক্ষানবিশ সাব-ইন্সপেক্টর হিসেবে যোগদান করেন। এরপর ২০২১ সালের মার্চের ১৭ তারিখ ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ লালবাগ বিভাগ এর লালবাগ থানায় কর্মজীবন শুরু করেন এবং এখন পর্যন্ত তিনি নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। এই স্বল্প সময়ের দায়িত্ব পালন করতে যেয়ে বিভিন্ন মামলায় আসামী ধরেছেন। উদ্ধার করেছেন নগদ অর্থসহ স্বর্ণালংকার, প্রাইভেট কার ও মোটর গাড়িসহ অনেক কিছু। নিষ্পত্তি হয়েছে অনেক মামলা। পেয়েছেন অনেক সম্মাননা ও পুরস্কার। পরিশ্রমী সৌভাগ্যের প্রসূতি মিলেছে তার কর্মজীবনে। ২০২৩ এর মাসিক অপরাধ সভায়, দস্যুতা মামলার ০৩ জন আসামি গ্রেপ্তার সহ নগদ ৭,৭০,০০০ টাকা, ১ টি স্বর্ণের চেইনসহ ডায়মন্ডের লকেট, ১ জোড়া ডায়মন্ডের কানের দুল, ০১টি ঘড়ি ও একটি চাপাতি উদ্ধারে অবদান রাখায় সম্মাননা পান এসআই (নিঃ) জ্যোতির্ময় মল্লিক। এছাড়াও গত বছর ২০২২ এর ডিসেম্বরে চোর- চক্রের একজনকে গ্রেফতার করে একইভাবে তিনি সম্মাননা পান। বিভিন্ন সময়ে তিনটি মামলায় প্রায় ১৮টি মোটরসাইকেল উদ্ধার করেন। ২০২২ এর জুন মাস, ডিসেম্বর ও ২৩ সাল পর্যন্ত তিনবার তিনি ডিএমপি’র শ্রেষ্ট মোটরসাইকেল উদ্ধারকারী সাব-ইন্সপেক্টর সম্মানে ভূষিত হন। এছাড়াও রয়েছে একটি মামলায় ১৭ ভরি, ৩ আনা, ৩ রতি স্বর্ণ ও নগদ ৫২ হাজার তিনশত টাকা এবং আরেকটি মামলায় একটি প্রাইভেটকার উদ্ধার করেন। মানুষকে প্রলোভন দেখিয়ে লুট করে নেওয়া চক্রের একটি মামলায় ০৬ জনকে গ্রেপ্তার সহ ০৬ ভরি স্বর্ণ উদ্ধার ও আরেকটি মামলায় ৪ জনকে গ্রেপ্তার সহ ০২ ভরি স্বর্ণ উদ্ধার করেন। যে কারণে বিভিন্ন সময় তিনি ডিএমপির মাসিক সভায় নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালনে কাজের মূল্যায়ন স্বরূপ পুরস্কৃত হন। স্বল্প সময়ের কর্মজীবনে নিজেকে যেমন তুলে ধরেছেন, তেমনি পেয়েছেন বিভিন্ন সময়ে কাজের মূল্যায়ন স্বরূপ পুরস্কার ও সম্মাননা। এ পর্যন্ত কর্মজীবনে তিনি প্রায় ১২ বার পুরুস্কৃত হয়েছেন। এ বিষয়ে তিনি বলেন, আমাদের পেশার মূল লক্ষ হলো জনগণের সেবা, জানমাল রক্ষা করা। তবুও অনেক সময় দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে কাজের মূল্যায়ন স্বরূপ জনগণের ভালোবাসা আর সম্মাননা ও পুরস্কার পেয়ে থাকি যা অনেক সময় সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে সাহস ও অনুপ্রেরণা যোগায়। তিনি বলেন, পুলিশ জনগণের বন্ধু, শত্রæ নয়, যেকোনো বিপদে আপদে আমাদের স্মরণ করলে ও তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করলে আমরা স্বল্প সময় একটি মামলার সমস্যা সমাধান করতে পারি এবং জনগণের উপকারে আসতে পারি। এ সময় তিনি সকলের সহযোগিতা ও ভালবাসা পেয়ে কর্মজীবনে আরও এগিয়ে যাবেন বলে আশা প্রকাশ করেন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here