‘হিজরত করা তরুণদের ভারী অস্ত্র চালানোর প্রশিক্ষণ দেওয়া হতো পাহাড়ে’

0
20
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : বান্দরবান ও রাঙামাটির পাহাড়ি এলাকায় অভিযান চালিয়ে ১০ জনকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)। তাদের মধ্যে সাত জন জঙ্গি সংগঠন ‘জামাতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়া’র সদস্য এবং তিন জন পাহাড়ি বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনের সদস্য। গ্রেফতারকালে তাদের কাছ থেকে বিপুল প‌রিমা‌ণ অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার করা হয়ে‌ছে।
শুক্রবার (২১ অক্টোবর) দুপুর ১২টায় বান্দরবান জেলা প‌রিষ‌দ মিলনায়ত‌নে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান র‍্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মি‌ডিয়া উইংয়ের প‌রিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।
তিনি বলেন, সম্প্রতি বেশ কয়েকজন তরুণ নিখোঁজ হয়ে যাওয়ার ঘটনা তদন্ত করতে গিয়ে গোয়েন্দা সূত্রে জানতে পারি স্থানীয় একটি সন্ত্রাসী গ্রুপের তত্ত্বাবধানে বেশ কিছু জঙ্গি বান্দরবান ও রাঙ্গামাটির গহীন অরণ্যে প্রশিক্ষণ নিচ্ছে। এমন খবরের ভিত্তিতে এসব এলাকায় অভিযান পরিচালনার পরিকল্পনা চূড়ান্ত করা হয়। এই অভিযানে সেনাবাহিনী ও অন্যান্যরা সহযোগিতা করেছে বলে জানান তিনি।
অভিযানে গ্রেপ্তার হয়েছে জঙ্গি গ্রুপের মারুফ আহমদ মানিক (৩১), ইমরান হোসেন শাওন (৩১), কাওসার শিশির (৪৬), জাহাঙ্গীর আহম্মেদ জুনু (২৭), মোহাম্মদ ইব্রাহিম আলী (১৯), আবু বকর সিদ্দিক বাপ্পী (২৩) ও রুফু মিয়া (২৬) এবং স্থানীয় সন্ত্রাসী গ্রুপের যৌথান সাং বম (১৯), স্টিফেন বম (১৯) এবং মালসম বম (২০)। র‌্যাব তাদের সংগঠনের পরিচয় প্রকাশ না করলেও স্থানীয়ভাবে তারা কুকিচিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট বা কেএনএফ এর ক্যাডার হিসেবে পরিচিত।
তবে এই অভিযানে জামাতুল আনসার ফিল হিন্দার শারক্কিয়ার মাস্টার মাইন্ড ও উপদেষ্টা শামীম মাহফুজকে আটক করা সম্ভব হয়নি। ধরা পড়া জঙ্গিরা জানিয়েছেন, কিছুদিন আগেও তিনি প্রশিক্ষণ ক্যাম্পে আসেন। তবে এখন তিনি পার্বত্য চট্টগ্রামের বাইরে আছেন।
র‌্যাবের ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, বিভিন্ন সময়ে নিখোঁজ হয়ে জঙ্গি সংগঠনে জড়িয়ে পড়া ৩৮ জনের নাম ও পরিচয় আগে প্রকাশ করা হয়। শুক্রবার আরো ১৭ জনের নাম প্রকাশ করা হয়েছে। এ নিয়ে জঙ্গি সংগঠনে জড়িয়ে পড়া সন্দেহভাজন মোট ৫৫ জনের নাম প্রকাশ করা হলো।
বৃহস্পতিবার রাতে গ্রেপ্তারের পর শুক্রবার ভোরে তাদের র‌্যাব-১৫ এর বান্দরবান ক্যাম্পে নিয়ে আসা হয়। দুপুরে অস্ত্রসহ তাদের সাংবাদিকদের সামনে উপস্থাপন করা হয়। র‌্যাবের একটি সূত্র জানায়, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের পর গ্রেপ্তারকৃত আসামিদের রাঙ্গামাটি জেলা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হবে। প্রাথমিকভাবে তাদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাস দমন আইনে মামলা করা হলেও পরে দেশদ্রোহী মামলা দেওয়া হতে পারে।
এদিকে বেশ কয়েকজন সদস্য ধরা পড়ার পর কেএনএফ এর ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত রুমা উপজেলায় কেএনএফ নীতিনির্ধারকদের আর দেখা যাচ্ছে না। গত কয়েকদিন যাবৎ খোঁজ নেই সংগঠনের প্রধান নাথান বমের। এক প্রশ্নের জবাবে র‌্যাব জনসংযোগ পরিচালক জানান, এই অভিযানে সরকারি কোনো বাহিনীর কেউ হতাহত হয়নি। নিহত-আহত হয়নি সন্ত্রাসী বা জঙ্গি গ্রুপের কেউ।
তিনি বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামের কোনো সাধারণ মানুষ বা কোনো সংগঠন আমাদের টার্গেটে নেই। যারা জঙ্গি এবং সন্ত্রাসী কাজে জড়িত আমরা শুধু তাদের বিরুদ্ধেই অভিযান চালাচ্ছি। এই অভিযান আরো বেশ কয়েকদিন চলবে। সন্দেহভাজন জঙ্গিদের আটক করা ছাড়া আমরা অভিযান অব্যাহত রাখব।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here