৩৫ বিলিয়নের ঘরে নামলো রিজার্ভ

0
25
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুরডেস্ক রিপোর্ট: বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ এবার ৩৬ বিলিয়ন ডলারের নিচে নেমে গেছে; ২৮ মাসের মধ্যে যা সর্বনিম্ন।
ইউক্রেইন-রাশিয়ার যুদ্ধাবস্থায় আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের খরচ বেড়ে যাওয়ার বিপরীতে রপ্তানি আয় ও রেমিটেন্স কমে যাওয়ার কারণে চাপ বাড়তে থাকার মধ্যে রিজার্ভ আরও কমে গেল।
বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ তথ্য অনুযায়ী, বুধবার দিন শেষে রিজার্ভ কমে দাঁড়িয়েছে ৩৫ দশমিক ৯৮ বিলিয়ন ডলারে। এর আগে ২০২০ সালের জুনে রিজার্ভের পরিমাণ ছিল ৩৬ বিলিয়ন ডলার।
আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুযায়ী, একটি দেশের কাছে অন্তত তিন মাসের আমদানি ব্যয় মেটানোর সমপরিমাণ বিদেশি মুদ্রার মজুদ থাকতে হয়।
বর্তমান রিজার্ভ দিয়ে বাংলাদেশ প্রায় ৪ মাসের আমদানি বিল পরিশোধ করতে পারবে।
মূলত বৈদেশিক মুদ্রার চাহিদা বেশি থাকায় কেন্দ্রীয় ব্যাংক প্রতিনিয়ত রিজার্ভ থেকে ডলার বিক্রি করছে। উল্টোদিকে রপ্তানি ও রেমিট্যান্স প্রবাহেও গতি নেই তেমন। মূলত এর ফলে কমে যাচ্ছে রিজার্ভ।
সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, বৃহস্পতিবার ৬ কোটি ডলার ছেড়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এ নিয়ে গত জুলাই থেকে এ পর্যন্ত ৪০০ কোটি ডলারের বেশি বিক্রি করা হয়েছে।
এদিকে আমদানি ব্যয়ও কমানো সম্ভব হয়নি। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরের জুলাই-আগস্ট সময়ে আমদানি ব্যয় হয়েছে ১২৬৯ কোটি ডলার। অন্যদিকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত তিন মাসে রপ্তানি আয় এসেছে ১২৫০ কোটি ডলার। একই সময়ে প্রবাসী আয় অর্থাৎ, রেমিট্যান্স এসেছে মাত্র ৫৬৭ কোটি ডলার। সব মিলিয়ে চলতি হিসাবের ভারসাম্যে তৈরি হয়েছে বড় অংকের ঘাটতি। সামগ্রিক ভারসাম্যেও ঘাটতি দেখা দিয়েছে।
আইএমএফের বিপিএম৬ ম্যানুয়াল অনুযায়ী, রিজার্ভ হিসেবে দেখাতে হয় কেবল ব্যবহারযোগ্য অংশকেই। বিশ্বের বেশিরভাগ দেশ আইএমএফের পদ্ধতি অনুসরণ করে হিসাব করলেও বিভিন্ন তহবিলে যোগান দেওয়া অর্থকেও রিজার্ভ দেখাচ্ছে বাংলাদেশ। আইএমএফের মানদণ্ড বিবেচনায় বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ২৭.৫৮ বিলিয়ন ডলার।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here