৭ দিনে ও মামলা নেয়নি পুলিশ: তুরাগে মহানগর যুবলীগ নেতার উপর হামলা

0
33
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: রাজধানীর তুরাগের চন্ডালভোগ এলাকায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগ নেতা ও তার পরিবারের উপর বিএনপির কর্মীরা হামলা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এঘটনায় আহতরা হলেন, আবুল হোসেন (৫১), মো: আবু সাঈদ (৪৪), ভাতিজা রানা (২২) ও আব্বাস মিয়া প্রমুখ।
এ ঘটনায় ৭ দিন অতিবাহিত হলেও ভুক্তভোগীরা তুরাগ থানায় মামলা দায়ের করতে গেলেও রহস্যজনক কারনে পুলিশ তাদের মামলা নেয়নি। এমনটিই জানিয়েছেন ভুক্তভোগী ওই পরিবার। ভুক্তভোগী ওই যুবলীগ নেতার নাম মো: আবুল কালাম রিপন। সে ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগের বর্তমান কমিটির সহ-সম্পাদক বলে জানা গেছে।
ভুক্তভোগী যুবলীগ নেতা মো: আবুল কালাম রিপন এ প্রতিবেদককে জানান, গত ১৫ ডিসেম্বর, ২০২২ বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে তুরাগের চন্ডালভোগ মধ্যপাড়ার এলাকায় জমি সংক্রান্ত তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে বিএনপি জামায়াত সমর্থিত কর্মী মকবুল হোসেন, কুদ্দুস মিয়া, বাদশা মিয়া, আব্বাস মিয়া, বিলকিস বেগমসহ অজ্ঞাত ৫/৬ জন আমাদের উপর হামলা চালায়। এতে ঘটনাস্থলে আমি সহ আমার বড় ভাই আবুল হোসেন (৫১)কে মাথায় লোহার রড দিয়ে আঘাত করে গুরুতর যখম করে তারা। আমার অপর ভাই মো: আবু সাঈদ (৪৪), ও আমার ভাতিজা রানা (২২) আমাদেরকে উদ্ধারের চেষ্টা করলে বিএনপি কর্মী ও মাদকাসক্ত কুদ্দুস তাদের দাঁড়ির মধ্যে ধরে এলোপাথারি কিল ঘুষি মারতে থাকে। এই সময়ে আমাদের কাছে থাকা মোবাইল ফোন সহ ব্যবসার প্রতিষ্ঠানের ৫০ হাজার টাকা নিয়ে যায় হামলাকারীরা। এসময় স্থানীয় লোকজন এগিয়ে আসলে হামলকারীরা কৌশলে পালিয়ে যায় । পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় ঘটনাস্থলে মারাত্বক আহত আমার বড় ভাই আবুল হোসেনকে দ্রুত উত্তরাস্হ কুয়েত বাংলাদেশ মৈত্রী সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা জন্য নেওয়া হয়। যাহার চিকিৎসা সনদ আমাদের কাছে আছে। শুধু তাই নয় ঘটনা পর থেকে প্রতি নিয়ত হামলা কারীরা আমার পরিবারকে বিভিন্ন মাধ্যমে হুমকি-দামকি দিতে থাকে।
জানা গেছে, এই বিষয়ে তুরাগ থানায় অভিযোগ করতে গেলে গিয়ে দেখি পুলিশ হামলাকারীদের কাছ থেকে উল্টো লিখিত অভিযোগ গ্রহন করেছে। পরে আমরাও অভিযোগ করলে তা গ্রহন করে পুলিশ। দু’পক্ষের অভিযোগ নেয়ার পরে ঘটনাস্থলে আসে তুরাগ থানা পুলিশের এস আই মোশাররফ হোসেন। তিনি স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শীদের সাথে কথা বলে জায়গার ছবি তুলেন। যাওয়ার সময় ২০ হাজার টাকা দাবি করে বলেন,ওসি স্যারকে দিতে হবে। আর না দিলে ওদের মামলা রুজু হয়ে যাবে। পরে টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালেও চা পান খাওয়ার জন্য পরিচিত বাবু নামের একজনের মাধ্যমে দুই হাজার টাকা নিয়ে যায় পুলিশের ওই এসআই। ঘটনার পরদিন ১৬ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় হামলাকারীদের অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা রুজু করে আমার বড় ভাইকে গ্রেফতার করে এস আই মোশাররফ। শুধু তাই নয় বাসায় ঢুকে আমার অন্যান্য ভাইদের না পেয়ে হুমকি ধামকি দিয়ে চলে যায়। বিষয়টি পরের দিন আমি উত্তরা জোনের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (এডিসি) বদরুল হাসানকে জানাই ও লিখিত ভাবে মামলা নেয়ার জন্য উপ-পুলিশ কমিশনার বরাবর আবেদন করি। কিন্তু সাতদিন পেরুলেও অজ্ঞাত ও কারণবশত মামলা নেয় নি পুলিশ। পরে জানতে পারলাম ৫৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নাসির উদ্দিন এর উস্কানি ও পরামর্শে এ মিথ্যা মামলা রুজু করেছে তুরাগ থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মওদুদ আহমেদ।
এদিকে, তুরাগের চন্ডালভোগের স্থায়ী বাসিন্দা আবুল কাশেম ও রফিক বলেন, ঘটনার দিন আমরা একটি সালিশি বৈঠকে উপস্থিত ছিলাম। হামলাকারীরা মামলায় যা বয়ান দিয়েছে তা পুরোপুরি মিথ্যা ও বানোয়াট।
এবিষয়ে অভিযুক্তদের সাথে যোগাযোগ করে বিষয়টি জানার চেষ্টা করলেও কাউকে পাওয়া যায়নি। তবে, প্রতিপক্ষ গ্রুপের লোকজনের দাবি, জমি মাপঝোপের সময় হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। এসময় উভয় পক্ষের ৩/৪ জন রক্তাক্ত সহ আহত হয়েছে বলে তারা জানিয়েছেন।
এ বিষয়ে জানতে তুরাগ থানা (এস আই) মোশাররফ হোসেনকে ঘটনাস্থলে গিয়ে ঘটনার কি সত্যতা পেয়েছেন জিঞ্জাসাবাদ করলে তিনি বলেন, আমি তো ঘটনাস্হলে (সেখানে) দেখতে যান নি। পরে এ বিষয়ে সব জানেন ওসি স্যার বলে কৌশলে এড়িয়ে যান তিনি‌। পরবর্তীতে তুরাগ থানার অপারেশন ইন্সপেক্টর মফিজুল রহমান এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এ বিষয়টি ভালো বলতে পারবেন অফিসার ইনচার্জ। পরে তুরাগ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মওদুদ হাওলাদারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, একই ঘটনায় থানায় দু’টি মামলা নেয়ার কোন সুযোগ নেই। যেহেতু একটি মামলা রুজু হয়ে গেছে, অপর ভুক্তভোগী সেহেতু তারা কোর্টে গিয়ে মামলা দায়ের করতে পারে। অন্যথায় ৫৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নাসির উদ্দিনের সাথে কথা বলে দেখতে পারেন। কিন্তু এ বিষয়ে ওয়ার্ড কাউন্সিলরের সাথে কেনো কথা বলতে হবে জানতে চাইলে তিনি কোনো সদুত্তর দেন নি‌।
অপরদিকে, উত্তরা- তুরাগ জোনের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (এডিসি) বদরুল হাসান বলেন, যে ঘটনাটি ঘটেছে সেখানে স্থানীয় কাউন্সিলর আলহাজ মো: নাসির উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন। তিনিও সাক্ষ্য দিয়েছেন। তাই এক পক্ষের মামলা নেয়া হয়েছে। অন্যদিকে, যুবলীগের সহ-সম্পাদক আবুল কালাম রিপনের একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত চলছে। তদন্তের পর এবিষয়ে আইনগত ব্যবস্হা নেয়া হবে।
এবিষয়ে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি) ৫৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর বীরমুক্তিযোদ্বা আলহাজ্ব মো: নাসির উদ্দিনের সাথে একাধিকবার মুঠো ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। সে কারনে তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here