করোনার প্রভাবে গৃহবন্দী ও শ্রমজীবি মানুষের পাশে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী ও গাসিক মেয়র

0
1498
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : বাংলাদেশে করোনার প্রভাবে কার্যকত পুরো দেশ লকডাউন রয়েছে। এতে গাজীপুরের শ্রমজীবি মানুষগুলো চরম অর্থকষ্টের সম্মুখীন। এই পরিস্থিতিতে কর্মহীন, গৃহবন্ধী,নিম্ন ও শ্রমজীবি মানুষের সাহায্য পাশে দাঁড়িয়েছেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এমপি ও গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম। তরুণ এই দুই নেতা পৃথকভাবে ৫০ হাজার করে মোট এক লাখ পরিবারের মাঝে নিত্য পণ্য সরবরাহের উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। ইতিমধ্যে খাদ্যদ্রব্যসহ বিভিন্ন পদের নিত্যপণ্য প্যাকেটজাত করা হচ্ছে।


জানা যায়, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ জাহিদ আহসান রাসেলের নির্দেশনা অনুযায়ী গাজীপুর-২ নির্বাচনী এলাকায় (টঙ্গী-সদর) নিত্যপণ্য সরবরাহের ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছেন দলীয় নেতা-কর্মীরা। প্রতিমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী গাজীপুর মহানগর আওয়ামালীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. মতিউর রহমান মতির তত্ত্বাবধানে ৫০ হাজার পরিবারের মধ্যে নিত্যপণ্য পৌঁছে দেওয়ার কর্মসুচী হাতে নেওয়া হয়েছে। প্রাথমিক পর্যায়ে প্রতি পরিবারের জন্য ৫ কেজি করে চাউল, ৩ কেজি আলু, ২ কেজি ডাল, ৪টি সাবান, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও মাস্কসহ প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র প্যাকেট করা হচ্ছে। প্রতিমন্ত্রীর চাচা মতিউর রহমান মতিকে দলীয়কর্মী বাহিনী নিয়ে এসব পণ্য প্যাকেট করতে দেখা গেছে।
এদিকে প্রতিমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী গত শনিবার থেকে রোববার স্থানীয় বৌবাজার , টঙ্গী বাজার, স্টেশন রোড ( টঙ্গী পূর্ব থানা গেইট), টিএন্ডটি, হোসেন মার্কেট এলাকায় আরো শতাধিক পরিবারের মধ্যে খাদ্য পণ্য বিতরণ করেন টঙ্গী থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান সরকার বাবুর নেতৃত্বে ছাত্রলীগ কর্মীরা। তারা প্রতি পরিবারে ৫ কেজি চাউল, আধা কেজি ডাউল, ১ কেজি পিঁয়াজ, ২ কেজি আলু ও ১টি করে সাবান বিতরণ করেন। এদিকে টঙ্গীর ৫৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর গিয়াস উদ্দিন সরকার ও টঙ্গী বাজার বন্ধুস গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক টুটুল সরকারের উদ্যোগেও তাদের এলাকায় কর্মহীন ও হতদরিদ্র পরিবারগুলোর মাঝে খাদ্যদ্রব্য বিতরণ করা হয়।
জাহিদ আহসান রাসেল বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার করোনা মোকাবেলায় এরই মধ্যে সম্ভাব্য সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। সৃষ্টিকর্তার অশেষ মেহেরবানী ও সরকারের গৃহীত সময়োপযোগী পদক্ষেপের কারণে বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস মহামারী রূপ ধারণ করেনি। তবে আমাদের আত্মতুষ্টিতে বসে থাকলে চলবে না। তাই আমরা যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে প্রস্তুত রয়েছি। দেশের সব স্টেডিয়াম বিশেষ করে ইনডোর স্টেডিয়াম সমূহ স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও স্থানীয় প্রশাসনের চাহিদা মাফিক করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য ব্যবহার করতে পারবে।

গাজীপুর মহানগরির ৫০ হাজার হত দরিদ্র পরিবারের ১৫ দিনের খাবারের দায়িত্ব নিয়েছেন গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম। ইতিমধ্যে মেয়রের খাদ্য ভান্ডারে পর্যাপ্ত নিত্যপণ্য মজুদ করা হয়েছে। মেয়র করোনা সংক্রমণ এড়িয়ে নগরবাসীকে নিজ নিজ অবস্থানে থাকার আহ্বান জানিয়ে বলেন, নগরির হতদরিদ্র প্রত্যেক পরিবারের জন্য ১৫ কেজি চাল, ২ কেজি ডাল, ৪টি সাবানসহ ১০ পদের নিত্যপণ্যের প্যাকেজ প্রস্তুত করা হয়েছে। ওয়ার্ড ভিত্তিক এসব পণ্য প্রত্যেক পরিবারে পৌঁছে দেওয়া হবে। গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম বলেছেন, এছাড়া ও করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) শনাক্তের জন্য ইতোমধ্যে সিঙ্গাপুর থেকে কিছু কিট আনা হয়েছে। বিভিন্ন দেশ থেকে আরও কিট আনার চেষ্টা করছি। আজও ১০ হাজার কিট অর্ডার করেছি। মাত্র চারটি দেশে বিমান চলাচল করায় কন্টেইনারের মাধ্যমে এসব কিট আমদানির চেষ্টা করছি। গাজীপুর সিটিকরপোরেশন এলাকায় করোনা মোকাবেলায় ৬৫টি কমিটি গঠন করা হয়েছে। ১০ হাজার কিট সিঙ্গাপুর থেকে আমদানি করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন।
রোববার দুপুরে নগরীর গাছায় সিটি করপোরেশনের আঞ্চলিক কার্যালয়ে করোনা সংকট মোকাবিলায় করণীয় শীর্ষক মতবিনিময় সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য জানান মেয়র।
করোনা মোকাবিলার প্রস্তুতি সম্পর্কে তিনি বলেন, করোনাভাইরাস মোকাবিলায় সিটি করপোরেশন এলাকায় ওয়ার্ড ভিত্তিক ৬৩টি কমিটি গঠন করা হয়েছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ মোতাবেক তারা কাজ করবে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here