গুলশান হামলার পলাতক আসামি রিপন গাজীপুরে গ্রেফতার, ৫দিনের রিমান্ডে

0
385
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: গাজীপুরের বোর্ডবাজার এলাকা থেকে গত শনিবার মধ্যরাতে গুলশানের হলি আর্টিজানে হামলা মামলার পলাতক আসামি মামুনুর রশিদ রিপনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। এ বাহিনীর আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান বলেন, রাত ১১টার দিকে একটি বাস থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। সে হালুয়াঘাট থেকে ঢাকার দিকে আসছিল। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ভাষ্য অনুযায়ী, মামুনুর রশিদ রিপন ওরফে রেজাউল করিম ওরফে রেজা নব্য জেএমবির একজন সুরা সদস্য। গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলার ঘটনায় রিপন অর্থ, অস্ত্র ও বিস্ফোরক সরবরাহের দায়িত্বে ছিলেন বলে তদন্ত সংশ্লিষ্টদের ভাষ্য। গ্রেফতারের সময় রিপনের কাছে দেড় লাখ টাকা পাওয়া গেছে বলেও মুফতি মাহমুদ খান জানান। রোববার কারওয়ান বাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ৩১ বছর বয়সী রিপনের বাড়ি বগুড়ার নন্দীগ্রামের শেখের মাড়িয়ায়। বাবার নাম নাছির উদ্দিন। বগুড়া, নওগাঁ ও ঢাকার মিরপুরের কয়েকটি মাদ্রসায় লেখাপড়া করার পর ২০০৯ সালে রিপন চাঁপাইনবাবগঞ্জের মাদ্রাসাতুল দারুল হাদিস থেকে কওমি মাদ্রসার সর্বোচ্চ ডিগ্রি ‘দাওরায়ে হাদিস’ পান। বগুড়ায় সাইবার টেক নামে একটি কম্পিউটার প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে অফিস অ্যাপ্লিকেশন কোর্স করার পর ওই প্রতিষ্ঠানেই চাকরি শুরু করেন রিপন।ওই চাকরিতে থাকা অবস্থায় ২০১৩ সালে তিনি জেএমবির একাংশের আমির ডা. নজরুলের মাধ্যমে জঙ্গিবাদে জড়ান বলে জানানো হয় র‌্যাবের সংবাদ সম্মেলনে। মুফতি মাহমুদ খান বলেন, ডাক্তার নজরুল তখন তার সাংগঠনিক নাম দেন রিপন। সে আগে রশিদ নামেই পরিচিত ছিল। প্রাথমিকভাবে তাকে সংগঠনের জন্য চাঁদা আদায়ের দায়িত্ব দেওয়া হয়। ছিনতাইয়ের মাধ্যমে রিপন সংগঠনের জন্য অর্থ সংগ্রহ করতেন জানিয়ে মুফতি মাহমুদ বলেন, এ পর্যন্ত তিনটি ছিনতাইয়ের কথা তার (রিপন) কাছ থেকে জানা গেছে। এর মধ্যে বিকাশের ৬ লাখ টাকা, এক সিগারেটের বিক্রেতার কাছ থেকে এক লাখ টাকা এবং গাইবান্ধার এক ঘটনায় এক লাখ টাকা ছিনতাই করে সে। ২০১৬ সালের ১ জুলাই রাতে হলি আর্টিজান বেকারিতে পাঁচ তরুণের ওই হামলায় ১৭ বিদেশি নাগরিকসহ ২০ জনকে জবাই ও গুলি করে হত্যা করা হয়। নজিরবিহীন ওই হামলা দেশে জঙ্গিবাদের বিপদজনক বিস্তারের মাত্রা স্পষ্ট করে তোলে। পরদিন কমান্ডো অভিযানে নিহত হন হামলাকারী পাঁচ তরুণ – রোহান ইবনে ইমতিয়াজ, মীর সামেহ মোবাশ্বের, নিবরাজ ইসলাম, শফিকুল ইসলাম ওরফে উজ্জ্বল ও খায়রুল ইসলাম ওরফে পায়েল। দুই বছরের বেশি সময় ধরে তদন্তের পর পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের পরিদর্শক হুমায়ুন কবির ২০১৮ সালের ২৩ জুলাই হামলায় জড়িত ২১ জনকে চিহ্নিত করে তাদের মধ্যে জীবিষ্ণু আট জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেন। অভিযোগপত্রে বলা হয়, নব্য জেএমবির জঙ্গিরা ছয় মাস ধরে পরিকল্পনা করে ওই হামলা চালিয়েছিল। তাদের উদ্দেশ্য ছিল, দেশকে ‘অস্থিতিশীল’ করা, বাংলাদেশকে একটি ‘জঙ্গি রাষ্ট্র’ বানানো। আসামিদের মধ্যে জীবিষ্ণু আটজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের মধ্যে দিয়ে গতবছর ২৬ নভেম্বর আলোচিত এ মামলার বিচার শুরুর নির্দেশ দেন ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মুজিবুর রহমান। মামলার আসামিদের মধ্যে নব্য জেএমবির সদস্য জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজীব গান্ধী, রাকিবুল হাসান রিগান, রাশেদুল ইসলাম ওরফে র্যাশ, সোহেল মাহফুজ, মিজানুর রহমান ওরফে বড় মিজান ও হাদিসুর রহমান সাগরকে আগেই গ্রেফতার করেছিল আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। বাকি দুই আসামি শহীদুল ইসলাম খালেদ ও মামুনুর রশিদ রিপনকে পলাতক দেখিয়ে এ মামলার বিচার চলছিল। তাদের বিরুদ্ধে হুলিয়া জারি করে সম্পত্তি জব্দেরও নির্দেশ দিয়েছিল আদালত। পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের কর্মকর্তারা এতদিন বলে আসছিলেন, খালেদ ও রিপন পালিয়ে ভারতে চলে গেছেন বলে ধারণা করছেন তারা। আর ভারতীয় গোয়েন্দাদের বরাত দিয়ে আনন্দবাজার ২০১৭ সালের শুরুতে খবর দিয়েছিল, ‘আবু সুলেমান’ ও ‘বাংলার বাঘ টু’ ছদ্মনাম নিয়ে খালেদ ও রিপন পশ্চিমবঙ্গে জেএমবিকে সংগঠিত করার চেষ্টা করছেন। তাদের মধ্যে রিপনকে র‌্যাব গ্রেফতার করলেও খালেদের কোনো সন্ধান আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এখনও পায়নি। ২০০৯ সালের সন্ত্রাসবিরোধী আইন অনুযায়ী, অপরাধ প্রমাণিত হলে হলি আর্টিজান মামলার আসামিদের সর্বোচ্চ মৃত্যুদÐ হতে পারে।
রিপন ৫দিনের রিমান্ডে
রাজধানীর গুলশানে স্প্যানিশ রেস্তোরাঁ হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলা মামলার চার্জশিটভুক্ত মোহাম্মাদ মামুনুর রশিদ ওরফে রিপন ওরফে রেজাউল করিম ওরফে রেজার ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। রোববার বিকেলে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) কনক বড়ুয়া তার বিরুদ্ধে এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এর আগে সবুজবাগ থানার সন্ত্রাস বিরোধী আইনের একটি মামলায় আসামি রিপনকে আদালতে হাজির করে ১০ দিন রিমান্ডের আবেদন করেন তদন্তকার্রী কমকর্তা ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) সহকারী কমিশনার কফিল উদ্দিন। পরে শুনানি শেষে আদালত ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। গত শনিবার রাতে গাজীপুরের বোর্ড বাজারের একটি বাস থেকে রিপনকে গ্রেফতার করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। হলি আর্টিজান মামলায় চার্জশিটভুক্ত ৮নং আসামি রিপন। মামলাটির অন্যান্য আসামিদের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এ আসামির জড়িত থাকার বিষয়টি প্রকাশিত হলে তাকে চার্জশিটভুক্ত আসামি করা হয়। মামলায় তদন্তকার্রী কমকর্তা কফিল উদ্দিন আবেদনে বলেন, আমরা রিপনকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। সে জানিয়েছে, ২০১৪ সালে ত্রিশালের মতো জঙ্গি ছিনতাইয়ের পরিকল্পনা করেছিল তারা। ত্রিশালের মতো আরেকটি ঘটনা ঘটিয়ে জঙ্গিদের উজ্জীবিত করার চেষ্টা করেছিল তারা। মূলত হলি আর্টিজান হামলা মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামিদের ছিনতাইয়ের পরিকল্পনা ছিল তাদের। জেএমবির আমির আবদুর রহমানের মেয়ের জামাই আওয়ালের ভাগ্নে হওয়ায় সংগঠনে রিপনের গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। হলি আর্টিজান মামলাটি বর্তমানে সাক্ষ্যগ্রহণের পর্যায়ে রয়েছে। মামলাটিতে ১২ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। মামলার আসামিদের মধ্যে হামলার মূল সমন্বয়ক বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত কানাডার নাগরিক তামিম চৌধুরীর সহযোগী আসলাম হোসেন ওরফে রাশেদ ওরফে আবু জাররা ওরফে র‌্যাশ, ঘটনায় অস্ত্র ও বিস্ফোরক সরবরাহকারী নব্য জেএমবি’ নেতা হাদিসুর রহমান সাগর, নব্য জেএমবির অস্ত্র ও বিস্ফোরক শাখার প্রধান মিজানুর রহমান ওরফে বড় মিজান, জঙ্গি রাকিবুল হাসান রিগ্যান, জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজীব ওরফে রাজীব গান্ধী ও হামলার অন্যতম পরিকল্পনাকারী আবদুস সবুর খান (হাসান) ওরফে সোহেল মাহফুজ কারাগারে রয়েছেন। আসামি রিপন গ্রেফতার হলেও এখনও পলাতক অপর আসামি মো. শরিফুল ইসলাম।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here