কর্পোরেট গ্রুপগুলো চালের বাজারে প্রবেশ করে বাজার নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে: কৃষিমন্ত্রী

0
27
728×90 Banner

গাজীপুর প্রতিনিধি: বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি)-এর ছয় দিনব্যাপী “বার্ষিক গবেষণা পর্যালোচনা কর্মশালা ২০২১-২২” উদ্বোধন করা হয়েছে।
শনিবার কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক এমপি কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে এর উদ্বোধন করেন।
গাজীপুরে ব্রি সদর দপ্তরের মেলনায়তনে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় সভাপতিত্ব করেন ব্রির মহাপরিচালক ড. মো. শাহজাহান কবীর।
কৃষিমন্ত্রী বলেন, আমরা ব্রিকে নিয়ে গর্ব করি, অহংকার করি। কৃষির বিরাট অংশ নিয়ে ধান তাই ব্রির গুরুত্ব অপরিসীম। ধানকে ঘিরে আমাদের অর্থনীতি। কৃষির জন্য আমাদের পরিবেশ খুব সহায়ক ।
তিনি বলেন, বিজ্ঞানী সম্প্রসারণবিদদের পুষ্টি সমৃদ্ধ নিরাপদ খাদ্য উৎপাদন করতে হবে।
ন্যানো টেকনোলজি, জিনোম এডিটিং, স্পিড ব্রিডিং ব্যবহারের উপর গুরুত্ব আরোপ করে তিনি বলেন, সময়ের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায়, ধান উৎপাদন বাড়াতে বিজ্ঞানীদের আরও বেশি করে আতœনিয়োগ করতে হবে।
আগামী জুন পর্যন্ত চালের কোন সংকট হবে না উল্লেখ করে বলা হয়, আগামী জুন পর্যন্ত আউস (৩.০ মে.টন), আমন (১৬.৩ মে.টন) ও বোরোর (২০.৪ মে.টন) ধরে মোট উৎপাদন হবে ৩৯.৭ মে.টন। প্রতিদিন জনপ্রতি ৪০৫ গ্রাম করে চালের consumption হিসেব করলে ১৭ কোটি মানুষের জন্য চালের প্রয়োজন হবে ২৫.১৩ মে.টন। অন্যান্য consumption ২৬.১২% হিসেব করে চালের প্রয়োজন ১০.৩৭ মে.টন। সে হিসেবে উদ্বৃত থাকবে ৪.২ মে.টন বা ৪২ লক্ষ টন।
অনুষ্ঠানে আরও জানানো হয় বাংলাদেশ চাল উৎপাদনে উদ্বৃত্ত হওয়া সত্তেও খুচরা পর্যায়ে চালের দাম বাড়ছে। ব্রি চালের মূল্যবৃদ্ধির পেছনের কারণগুলো চিহ্নিত করার জন্য মাঠ পর্যায়ে গবেষণা করে পেয়েছে যে, রাইস মেলার ও খুচরা বিক্রেতারা অতিরিক্ত মুনাফা করছেন, উৎপাদন খরচও কিছুটা বৃদ্ধি পেয়েছে এবং ফার্মগেটে ধানের দামও বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়া কিছু মেলার ও ব্যবসায়ী জানিয়েছেন যে, কর্পোরেট গ্রুপগুলো চালের বাজারে প্রবেশ করে বাজার নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম, কৃষি মন্ত্রণালয়ের সচিব ওয়াহিদা আক্তার। সম্মানীত অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএডিসি) এর চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ সাজ্জাদ এনডিসি, বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল (বিএআরসি) এর নির্বাহী চেয়ারম্যান ড. শেখ মোহাম্মদ বখতিয়ার, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের চেয়ারম্যান বাদল চন্দ্র বিশ্বাস, এছাড়াও সম্মানিত অতিথি হিসাবে জুমে সংযুক্ত ছিলেন, কৃষি মান্ত্রণালয়ের বিশেষজ্ঞ পুলের সদস্য প্রফেসর এমেরেটাস ড. আব্দুস সাত্তার মন্ডল, জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার (এফএও) বাংলাদেশ প্রতিনিধি রবার্ট ডি সিম্পসন, আন্তর্জাতিক ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ইরি) এর বাংলাদেশ প্রতিনিধি ড. হোমনাথ ভান্ডারি।
অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ব্রির মহাপরিচালক ড. মো. শাহজাহান কবীর। গবেষণা অগ্রগতি এবং অর্জন ২০২১-২২ প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ব্রির পরিচালক (গবেষণা) ড. মোহাম্মদ খালেকুজ্জামান। An Assessment of Rice Price Hike in Bangladesh উপস্থাপনা করেন ব্রির কৃষি অর্থনীতি বিভাগের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মোহাম্মদ ছিদ্দিকুর রহমান ।
পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী, ড. শামসুল আলম বলেন, An Assessment of Rice Price Hike in Bangladesh উপস্থাপনায় একেবারে ভিতর থেকে কিভাবে চালের দাম ও অন্যান্য বিষয়গুলো নিয়ন্ত্রণ হয় তা জানা গেল। এই প্রবন্ধ উপস্থাপনের জন্য সংশ্লিষ্ঠদের ধন্যবাদ জানান।
ব্রির মহাপরিচালক ড. মো. শাহজাহান কবীর অনুষ্ঠানে জানান, আগামী জুন পর্যন্ত আউস (৩.০ মে.টন), আমন (১৬.৩ মে.টন) ও বোরোর (২০.৪ মে.টন) ধরে মোট উৎপাদন হবে ৩৯.৭ মে.টন। প্রতিদিন জনপ্রতি ৪০৫ গ্রাম করে চালের consumption হিসেব করলে ১৭ কোটি মানুষের জন্য চালের প্রয়োজন হবে ২৫.১৩ মে.টন। অন্যান্য consumption ২৬.১২% হিসেব করে চালের প্রয়োজন ১০.৩৭ মে.টন। সে হিসেবে উদ্ভৃত থাকবে ৪.২ মে.টন বা ৪২ লক্ষ টন। এই হিসাবে যত ত্রুটিই (estimation error) আমরা বিবেচনায় নেই না কেন আগামী জুন পর্যন্ত চালের কোন সংকট হবে না। ব্রির মহাপরিচালক আরও জানান, বর্তমান সরকারের গত ১৪ বছরে (২০০৯-২০২২) ব্রি ৪টি হাইব্রিডসহ আউস, আমন ও বোরো মওসুমের সর্বমোট ৬১টি জাত উদ্ভাবন করেছে।
An Assessment of Rice Price Hike in Bangladesh উপস্থাপনায় বলা হয়, বাংলাদেশ চাল উৎপাদনে উদ্বৃত্ত হওয়া সত্তেও খুচরা পর্যায়ে চালের দাম বাড়ছে। ব্রি চালের মূল্যবৃদ্ধির পেছনের কারণগুলো চিহ্নিত করার জন্য মাঠ পর্যায়ে একটি গবেষণা করে পেয়েছে যে, রাইস মেলার ও খুচরা বিক্রেতারা অতিরিক্ত মুনাফা করছেন, উৎপাদন খরচও কিছুটা বৃদ্ধি পেয়েছে এবং ফার্মগেটে ধানের দামও বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়া কিছু মেলার ও ব্যবসায়ী জানিয়েছেন যে, কর্পোরেট গ্রুপগুলো চালের বাজারে প্রবেশ করে বাজার নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে।
গবেষণা অগ্রগতি এবং অর্জন ২০২১-২২ প্রবন্ধে বলা হয় অত্যাধুনিক প্রযুক্তি (Cutting-edge technology) ব্যবহারের মাধ্যমে জাত উদ্ভাবন প্রক্রিয়ার সময় ৫-৭ বছর কমেয়ে আনা সম্ভব হচ্ছে। বর্তমান ফলন স্তরকে অতিক্রম করে ৩য় স্তরের উচ্চ ফলনশীল ও গুণগত মানসম্পন্ন জাত উদ্ভাবন করা হচ্ছে।
রাইস সল্যুশন মোবাইল অ্যাপস উদ্বোধন
অনুষ্ঠানে ধানের ক্ষেত থেকে আক্রান্ত ধান গাছের ছবি অ্যাপসে প্রেরণের মাধ্যমে রোগবালাই চিহ্নিতকরণের লক্ষ্যে ‘রাইস সল্যুশন’ (সেন্সর-ভিত্তিক ধানের বালাই ব্যবস্থাপনা) নামক মোবাইল অ্যাপস উদ্বোধন করেন মাননীয় কৃষিমন্ত্রী। আইসিটি বিভাগস্থ ‘মোবাইল গেইম ও এ্যাপ্লিকেশনের দক্ষতা উন্নয়ন (২য় সংশোধিত)’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায়, ওয়ান আইসিটি নামক সফটওয়্যার কোম্পানীর সহায়তায় ও ব্রির আইসিটি সেলের তত্ত¡াবধানে গবেষক ও কৃষক বান্ধব ডায়নামেক মোবাইল অ্যাপস তৈরি করা হয়েছে। অ্যাপসের মাধ্যমে রোগবালাই ও পোকামাকড় সংক্রান্ত যেকোন সমস্যার ছবি বা তথ্য ইনপুট হিসেবে প্রদান করা হলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে প্রেরিত ছবির রোগ বা পোকামাকড়ের সমস্যা নির্ণয়পূর্বক সঠিকতার হার নির্ধারণ করে ব্যবস্থাপনামূলক পরামর্শ প্রদান করবে।
এর আগে সকালে কৃষিমন্ত্রী, পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী, মাননীয় কৃষি সচিব ব্রি সদর দপ্তরে পৌঁছালে তাদের স্বাগত জানান ব্রির মহাপরিচালক ড. মো. শাহজাহান কবীর। এর পর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তপক অর্পণ করেন কৃষিমন্ত্রী ও অন্যান্য অতিথিবৃন্দ।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে বিকালে বিগত ২০১৯-২০ বার্ষিক গবেষণা কর্মশালার সুপারিশ বাস্তবায়ন বিষয়ে সেশন অনুষ্ঠিত হয়। ছয় দিনব্যাপী কর্মশালা চলবে আগামী ৫ জানুয়ারি ২০২৩ পর্যন্ত। ১৯৭০ সালের ১ অক্টোবর প্রতিষ্ঠার পর থেকে এখন পর্যন্ত ব্রি ১১১টি ধানের জাত উদ্ভাবন করেছে। এর মধ্যে ১০৩টি ইনব্রিড এবং ৮টি হাইব্রিড জাত রয়েছে। দেশের কৃষকদের ব্যবহার উপযোগী ৩৪টি কৃষি যন্ত্রপাতি উদ্ভাবন করেছে ব্রি।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here