নতুন পানির সংযোগের নামে সিপিপির রাস্তা কাটার মহোৎস

0
71
728×90 Banner

মোঃরফিকুল ইসলাম মিঠু (উত্তরা) ঢাকা: রাজধানীর উত্তরায় ঢাকা ওয়াসার নতুন পাইপলাইনের কাজ চুক্তি নেয় সি পি পি । কাজে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে।সিপিপি এই পাইপলাইন বসানোর কাজ করছে।
অভিযোগে বলা হয়েছে, পাইপলাইন বসাতে যে পরিমাণ রাস্তা কাটা দরকার তার দ্বিগুণ পরিমাণ রাস্তা কাটছে সিপিপি। কোন কোন জায়গায় অনুমতি ছাড়াই রাস্তা কাটা হচ্ছে।রাস্তা খোঁড়াখুঁড়িতে যে অর্থ জমা দেয়ার কথা তা জমা দেয়া হয়নি বলেও অভিযোগ রয়েছে। ফলে সরকারের বিরাট অঙ্কের রাজস্ব হারানোর আশঙ্কা রয়েছে।
জানা গেছে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন নির্বাহী প্রকৌশলী (পুর) মনোরঞ্জন সাহার প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় সিপিপির কর্ণধার নূর আলম এই অপকর্মগূলো করছেন। নির্বাহী প্রকৌশলী হিসেবে মনোরঞ্জন সাহাই কার্যাদেশ দেন।
প্রথম ধাপের কাজের অনুমতি দেয়া হয় এবছর ২৭ জানুয়ারি।১০ ফেব্রুয়ারির মধ্যে কাজ শেষ করার কথা ছিল। না হওয়ায় সময় ১৫ দিন বাড়ানো হয়। বর্তমানে ৪,৬ ও ৮ নম্বর সেক্টরে কাজ চলছে। ঈদের আগেই কাজ শেষ হওয়ার কথা।
সরেজমিনে দেখা গেছে, কতটুকু রাস্তা কাটা হয়েছে তার কোন হিসাব সিপিপির কাছে নাই। সিটি করপোরেশনেরও মনিটোরিংরয়ের ব্যবস্হা নাই। তারা কার্যাদেশ দিয়েই দায়িত্ব শেষ করেছে।
এ ব্যাপারে নির্বাহী প্রকৌশলী মনোরঞ্জন সাহা জানান সিপিপির কাছ থেকে অতিরিক্ত অর্থ নিয়ে রাস্তা কাটার অনুমতি দেয়া হয়েছে।পরে ড্রোন দিয়ে ডিজিটাল পদ্ধতিতে কাটা রাস্তা মেপে অর্থ সমন্বয় করা হবে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন কাটা রাস্তা পরে মাপার কোনো সুযোগ নাই। সিপিপির দেয়া হিসাবই তাদের গ্ৰহন করতে হবে। এখানে বড় অঙ্কের অর্থের লেনদেন হয়েছে বলে তারা অভিযোগ করেন।
এব‌্যাপারে সিপিপি প্রধান নূর আলমের বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তিনি মুঠোফোন ধরনে নি। কি পরিমাণে রাস্তা কাটার অনুমতি নেয়া হয়েছে কি পরিমাণ রাজস্ব বঞ্চিত হচ্ছে সরকার এই ব্যাপারে রঞ্জন সাহাকে মুঠোফোনে ফোন করলে একাধিক বার ফোন করা সত্ত্বেও তিনি করেননি।আবার বাসা বাড়িতে পুরনো পানির মিটার গুলো পরিবর্তন করে যে নতুন মিটার সংযোগ দেওয়া হচ্ছে সেই মিটারের নেই কোন গুণগত মান অটোমেটিক্যালি হাওয়ার মাধ্যমে ঘুরতে থাকে উল্টো দিকে কুয়াশা কর্তৃপক্ষকে একাধিকবার অনেকেই অভিযোগ করেছেন উত্তরখান এবং দক্ষিণখান বাসিন্দা করেও কোন ফলাফল পাওয়া যায়নি। কি কাজ করছে সিপিপি বাসা বাড়িতে সংযোগের সময় দেখা যাচ্ছে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার গুলো এবং কাজ করা শ্রমিক গুলো মানুষকে বোকা বানিয়ে ২,৩,৫ হাজার টাকা নেওয়ার অভিযোগ অসংখ্য। সিটি কর্পোরেশন ও ওয়াসা কি তদারকি করছে জানতে চায় সচেতন সমাজ।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here