নড়াইলে পুলিশ সদস্য কর্তৃক দু’সন্তানের জননীকে ধর্ষণ টাকায় রফাদফার নানা গুঞ্জন

0
8
728×90 Banner

উজ্জ্বল রায়, নড়াইল প্রতিনিধি: পুলিশ সদস্য কর্তৃক দু’সন্তানের জননীকে ধর্ষণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। নড়াইলের দিঘলিয়া গ্রামের সাঈদ সরদারের বাড়ীতে এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে বলে জানাযায়। ওই নারী সোমবার (১৮ নভেম্বর) থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। গত (১৭ নভেম্বর) রোববার রাতে পুলিশ সদস্য আল মামুন সরদার উপজেলার দিঘলিয়া গ্রামের মৃত আবু সাঈদ সরদারের ছেলে,বর্তমানে খুলনা রেঞ্জের রূপসা থানায় কমরত আছেন। আমাদের নড়াইল প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায় জানান, ধর্ষিতা, ধর্ষণকারীর বাড়িতে তার মায়ের সঙ্গে ভাড়া থাকতো। সংশ্লিষ্ট প্রশাসন ও স্থানীয় নড়াইলের দিঘলিয়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান নিনা ইয়াসমিনের চাপের মুখে ৬০ হাজার টাকায় রফা করেন বলে ধর্ষিতার মা আকলিমা বেগম জানান। লিখিত অভিযোগ ও স্থানীয়ভাবে জানা যায়, নির্যাতিত ওই নারী নড়াইলের দিঘলিয়া ইউনিয়নের মৃত আবু সাঈদ সরদারের বাড়িতে মায়ের সঙ্গে ভাড়া থাকতো, তার দু’টি সন্তানও রয়েছে। পুলিশ সদস্য আল মামুন মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ওই নারীর সঙ্গে বিয়ের প্রলোভনে ঘনিষ্ট সম্পর্ক গড়ে তোলে। পুলিশ সদস্য মামুন ছুটিতে বাড়ি এসে বুধবার (১৩ নভেম্বর) রাতে প্রথমে ওই নারীকে মুখ চেপে ধরে জোরকরে তার শয়ন কক্ষে নিয়ে ধর্ষণ করে,এরপর রোববার (১৭ নভেম্বর) রাত ১০টার দিকে তাকে আবারও ওই পুলিশ সদস্যের কক্ষে নিয়ে দ্বিতীয় দিন তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে ধর্ষণ করে বলে ওই নারীর অভিযোগ। মামুনের পরিবার বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার জন্য ধর্ষিতাকে শান্তিপ‚র্ণ সমাধানের অঙ্গীকার করে তাকে শান্ত করেন কিন্তু পরে তারা বিষয়টি এড়িয়ে যান বা অস্বীকার করেন, যার ফলে নড়াইলের লোহাগড়ায় মঙ্গলবার (১৯ নভেম্বর) সকালে ধর্ষণের শিকার হওয়া ওই নারী সাংবাদিকদের পুলিশ সদস্য আল মামুন সরদারের ধর্ষণের কাহিনী তুলে ধরেন। বিষয়টি জানা জানি হলে ধর্ষণের কথা ধর্ষক আল মামুনও অস্বীকার করে,তবে এ বিষয়ে মিডিয়ায় প্রকাশ না করার জন্য তরফ থেকে অনুরোধ রয়েছে বলে গুঞ্জন আছে। অপরদিকে, স্থানীয় সচেতন মহলের দাবি,যেহেতু থানায় ধর্ষণের অভিযোগ করা হয়েছে,সেহেতু আইন শৃঙ্খলা বাহীনির দায়িত্ব ও কর্তব্য তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা,তা না হলে সমাজে এ ধরনের ঘটনার পুণরাবৃত্তি ঘটবে। অভিযুক্ত পুলিশ সদস্য আল মানুনের সঙ্গে মোবাইল ফোনে ০১৯১২-৬১০১২২ এই নম্বরে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি। নড়াইলের দিঘলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নিনা ইয়াসমিন বলেন,মেয়ে এবং ছেলে পক্ষের মধ্যে কিছু ভুল বুঝাবুজির কারণে এ অভিযোগ করা হয়েছে,তবে তাদের মধ্যে আমার জানামতে সমঝোতা হয়ে গেছে। অভিযোগের বিষয়ে লোহাগড়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আমানুল­াহ আল বারী বলেন,আমি কোন অভিযোগ পাইনি,অভিযোগ পেলে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here