প্রসঙ্গ যখন শতাব্দী আলমের নাদা

0
323
728×90 Banner

ম. এমদাদুল হক: ঢাকা জেলার দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের প্রান্তিক জনজীবন নিয়ে সরল কাহিনী। সোনাবাজপুর গ্রামের খেয়া নৌকার মাঝি আবুল কাশেম মুক্তিযুদ্ধে অকালে প্রাণ বিসর্জন দিয়েছেন। নানা প্রতিকূলতার মাঝেও তাঁর স্ত্রী, কন্যা রংগি ও ছোট দুই ছেলেকে নিয়ে সংসারের হাল ধরে রেখেছেন। নিম্নবিত্ত এসব মানুষের জীবন মানেই যেন একটা ভাগ্য বিড়ম্বিত সংগ্রাম।
গ্রামীণ শিশু-কিশোরদের সংগ্রামী জীবনের সুখ-দুঃখের নান রকম স্মৃতি কলমের আঁচড়ে লেখক ফুটিয়ে তুলবার অব্যর্থ চেষ্টা করেছেন। ঋতু-বৈচিত্র্য তাদের জীবনের ছবি এঁকেছে কখনো খেজুুড় গাছের রসের হাঁড়িতে কখনো বা বিলে মাছ ধরা অথবা খেয়া পারাপারের মাঝিগিরিতে। ফসলের মাঠে গোবর (লাদা/লাদ) কুড়ানোও তাদের পেশা হয়ে দাঁড়িয়েছে কারো কারো। প্রতিযোগিতার মধ্য দিয়ে রংগি, মায়া, বেচু, ফেলানি ও জইদা গোবর কুড়ায়। গোবর কুড়ানিদের সারাদিন মাঠে থাকতে হয় বলে ওদের অল্পতেই ঝগড়া হয়, আবার স্বল্প সময়ের মধ্যেই তাদের মিলও হয়ে যায়। এই গোবর কুড়ানোকে প্রাধান্য দিয়েই আলম উপন্যাসের নাম ‘নাদা’ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে সহজেই অনুমেয়। হিন্দু মেয়ে মায়ার সাথে কিশোর জইদার মিলন কাহিনী এই মাঠে এসেই।
লেখক খুব খোলামেলাভাবেই যৌনতাকে তাঁর উপন্যাসে স্থান দিয়েছেন। “দুজনেই জীবনে প্রথম মনের খেলায় মাতে। উহ্ আহ্ শব্দ শুকনা কচুরির খচখচে মিশে যায়।” (পৃ-৩৩) গোসল শেষে শরীরের গোপনাঙ্গগুলো মুছে “নিজে নিজেই একটু লজ্জাবনত হয় রংগির মা। সুডোল স্তন হাতের তালুর ঘঁষায় কেমন থলথল করে ……আবৃত থাকতে থাকতে স্তন দুটো পোড়া বাদামের মতো তামাটে হয়েছে।” (পৃ-৩৪) নদীরঘাটে গোসল করতে গিয়ে “রংগি জামার নিচে হাত চালিয়ে পেট কাঁধ যতটা সম্ভব সাবান মাখে।…..জামার ভিতর হাত ঢুকিয়ে বুকের ভিতর স্তনের মাঝে আলতো ঘঁষে।”(পৃ-৬৫) বর্ষার কোন একদিন মাতবরপুত্র কামাল লাইজুকে নিয়ে কোসা নৌকায় উঠায়। কিন্তু তার বসার যে বর্ণনা দেয়া হয়েছে তাতে “লাইজুর বসা দেখে তারও (কামালের) নুনু খাড়াইছে।” (পৃ-১০৮) “শাহজাহান স্ত্রী কোন ওড়না পড়েনি। ম্যাক্সির গলার ভি বুকের অনেকটা নিচে নামানো। স্তনসন্ধি দেখা যায়। ট্রে নামাতে নামাতে বলেন…..”(পৃ-৬৫)। এছাড়া “হিরু জামার ভিতর হাত দিয়ে চাপ দিয়েছে। খুব তাড়াতাড়ি জামা তুলে সুডোল বুকটা মুখে নিয়ে চুষতে থাকে। ….. গালে চুমু, ঠোঁটে চুমু…” (পৃ-৬৭) তবে এ বিষয়ে সবচেয়ে প্রশ্নবিদ্ধ করা হয়েছে করিম মাতবরকে। এলাকার গণ্যমান্য ব্যাক্তি হয়েও তার “রংগির বুকের কাছাকাছি আঙুল খেলে। গিন্নীর কড়া নজরদারিতে স্পর্শ করে না।” গিন্নী ছুটে যাওয়া বাছুরটির দিকে নজর দিলে…..“মাতবরের আঙুল রংগির সুডোল স্তনে নাড়াচাড়া করে।” (পৃ-১১৪)
গ্রামের মানুষের খেলাধুলা, পূজা-পার্বণ ও ইদ উদযাপনের মধ্য দিয়ে হিন্দু-মুসলিম সম্প্রীতি ফুটে উঠতে দেখা যায়। প্রান্তিক মানুষের অসীম সৌন্দর্য গ্রাম্যমেলা ও বিভিন্ন রকম উৎসব। ফকিরি বা কবিরাজি পরিলক্ষিত হয়েছে কোথাও কোথাও। এছাড়াও বাংলার মাটি, মানুষ ও শেকড়ের গানের মধ্যে মুর্শিদি ও লোকজ গান প্রাধান্য পেয়েছে। যে কোন ইদের পর গ্রামে বিবাহিত-অবিবাহিত পুরুষদের প্রীতি ফুটবল ম্যাচ উপভোগের আরেকটি অনুষঙ্গ। মৌসুমে ধান কাটা, ছোট-খাটো বিষয়ে গ্রাম্যবধূদের ঝগড়াসহ নানা রকম উৎসব ও ধর্মীয় সংস্কৃতি লেখকের সচেতন ভাবনা থেকে দূরে সরে যায়নি। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের মাঝে রিলিফ প্রচলনের ব্যবস্থাপনার প্রতি সাধারণ মানুষের গভীর আস্থার অভাব লক্ষ্য করা যায়।
১৯৭১ এর মহান মুক্তিযুদ্ধ প্রাসঙ্গিকভাবেই এসেছে। “ফাদার উইলিয়াম ইভান্স। সুদূর আমেরিকা থেকে এসেছিলেন দারিদ্র্যপীড়িত বাঙালির সেবা করতে।” (পৃ-১০৬) যুদ্ধের সময় তাকেও (নভেম্বর-১৯৭১) এ প্রাণ দিতে হয়েছে। ১৯৭৫ এসে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করবার বিষয়টি উপন্যাসে নতুন এক মোড় নিয়েছে। সরকার ও রাজনীতিতে পরিবর্তন দেখা দিল। করিম মাতবরের মুক্তিযোদ্ধা ছেলে হামিদকে চোর হিসেবে পুলিসের হাতে আটক। নতুন রাজনৈতিক নেতারা মাতবরকে তাদের দলে ভেড়ানোর ব্যর্থ চেষ্টা করে। কিন্তু “কিছু মানুষ পর্বতের মতো দৃঢ়তা নিয়ে জন্মায়। ঝড় ভূমিকম্প কিছুই টলাতে পারেনা। তাদের ব্যাক্তিত্ব সাগরের মতো উদার। আকাশের মতো বিশালতায় মহিমান্বিত।” (পৃ-১৫২)
তবুও জীবন থেমে থাকেনি। বর্ষার পানি নেমে যায়। সোনাপুর গ্রামের ব্যবসায়ী ছেলে সোহেল মল্লিকের সাথে বিয়ে হয় রংগির। এই নবদম্পতির বাসর ঘরে উপন্যাসের পরিসমাপ্তি ঘটেছে লেখকের জাদুকরী বর্ণনায়। “নতুন দরজা ঠেলে জামাই ভিতরে প্রবেশ করে। নতুন দরজা ‘ফাঁক’ হতে কড় কড় সঢ়ড় সঢ়ড় শব্দ করে। শক্ত পদক্ষেপে ভিতরে আসে। রংগির সুখানুভূতি হয়।” (পৃ-১৭৯) গ্রাম্য মেয়ের বিয়ের গায়ে হলুদ থেকে শুরু করে বাসর ঘর পর্যন্ত সকল পর্ব উপন্যাসে অত্যন্ত নিখুঁতভাবে ফুটে উঠেছে।
অসংখ্য চরিত্রের মধ্যে রংগি, রংগির মা, মুক্তিযুদ্ধে শহিদ কাশেম আলী, করিম মাতবর, মায়া, রইস, গেদা, ফালানি, জইদা, হামিদ ও খেদাইনা উল্লেখযোগ্য। রংগির মা প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর প্রতিনিধিত্ব করেছে আর করিম মাতবর গ্রামের মঙ্গলকামী মোড়লের ভূমিকায় দীপ্তমান। ঘটনার প্রেক্ষিতে অপরিহার্যভাবে এসব চরিত্রের সমাবেশ ঘটেছে। চরিত্র নির্মাণে লেখক অতি যতœবান ছিলেন বলেই মনে হয়।
বর্ণনায় লেখক বিশ্লেষণধর্মী। ধীর গতিতে সব বিষয়ের খুঁটিনাটি বর্ণনা করবার চেষ্টা করেছেন। শতাব্দী আলম নিজের বর্ণনায় যেমন আঞ্চলিক ভাষা ব্যবহার করেছেন তেমনি চরিত্রের সংলাপেও অসংখ্য আঞ্চলিক ভাষার শব্দ ব্যবহার করেছেন। যার কোন প্রয়োজন ছিলনা। শুধু চরিত্রের মুখের সংলাপটি আঞ্চলিক ভাষায় ফুটিয়ে তোলার বড় দরকার ছিল। যেমন – ১) ‘কই উঠবি? না কব্বরে দিয়া আহুম।’ ২) ‘আবার খাইবার আবি নি।’ ৩) ‘আল্লাহর কামের একটা চিন্ন নিয়া অন্তত মরন যাইব।’ উপন্যাসটিকে কোন রকম সম্পাদনার চেষ্টা করা হয়নি। শব্দের বানানসহ নানাবিধ ত্রুটি ও মুদ্রণ প্রমাদ প্রতিটি পাতায় যেন উঁকি দিয়ে আছে।
বাঙালি জীবনের সামাজিক রীতি-নীতিকে লেখক আলম শেকড় থেকে তুলে আনবার চেষ্টা করেছেন। ব্যাক্তি, পরিবার, সমাজ, যুদ্ধ, জাতীয় সংকট এবং বেঁচে থাকার অকৃত্রিম লড়াইকে অতিক্রম করে মানবজীবনের সহজাত প্রবৃত্তি যৌনতাই হয়েছে উপন্যাসের অন্যতম প্রধান অনুষঙ্গ।

লেখকঃ প্রভাষক, টঙ্গি পাইলট স্কুল এন্ড গার্লস কলেজ

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

1 + five =