ফেসবুকে প্রতারণা নিয়ে সক্রিয় প্রশাসন, ভুয়া আইডি শনাক্ত

0
307
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: ফেসবুক একদিকে যেমন বন্ধুত্বের বন্ধন অটুট করছে, তেমনি একে ব্যবহার করে কেউ কেউ স্বার্থ হাসিল চেষ্টায় তৎপর। প্রতারণার মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করছে ফেসবুককে। তবে এবার ফেসবুকে প্রতারণা নিয়ে সক্রিয় অবস্থান নিয়েছে প্রশাসন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের ভুয়া আইডি শনাক্ত করতে মাঠে নেমেছে সাইবার ক্রাইম ইউনিট।পুলিশের সাইবার ক্রাইম তদন্তকারী সূত্র জানায়, নাট্যনির্মাতা রেদওয়ান রনির নামে ভুয়া ফেসবুক আইডি খুলে অভিনয়ের কথা বলে টাকা হাতিয়ে নিয়েছিল এক যুবক। অভিনেতা আরিফিন শুভর নামে আছে বেশ কিছু আইডি। একটি আইডি থেকে প্রতারণার অভিযোগ করেছেন ওই তারকা। একইভাবে কণ্ঠশিল্পী হাবিব ওয়াহিদ, হৃদয় খান, ইমরান, দিলশাদ নাহার কণা, নায়িকা মেহ্জাবীন চৌধুরী, মাহিয়া মাহি, পরীমণি, মৌসুমী, পূর্ণিমা, শাবনূর, রেসি, ববি, নায়ক শাকিব খান, রিয়াজ, ফেরদৌস, বাপ্পি, ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মর্তুজা, মেহেদী হাসান মিরাজ, মোস্তাফিজুরসহ জনপ্রিয় সব তারকার নামেই ভুয়া আইডি আছে।
জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নামে ছয়টি ও তাঁর কন্যা সায়মা ওয়াজেদ পুতুলের নামে একটি অ্যাকাউন্ট খোলে ওমর ফারুক নামের এক ব্যক্তি। এসব আইডিতে সরকারের উন্নয়ন প্রকল্পের ছবি দিয়ে নিজের নম্বর দেয় তিনি। অনেকে যোগাযোগের চেষ্টা করলে কৌশলে চ্যাটিংয়ে যায় সে। এরপর কাজের তদবিরের কথা বলে টাকা হাতিয়ে নেয়। একই কৌশলে স্পিকারসহ বিভিন্ন নেতাদের নামে ৩৬টি অ্যাকাউন্ট খোলে ফারুক। চার সহযোগীসহ গ্রেপ্তারের পর এখন ফারুককে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ।পুলিশ সদর দপ্তর সূত্র জানিয়েছে, ফেসবুকের অপরাধ নিয়ে তদন্তের সক্ষমতা বাড়ছে। এ বিষয়ে সহকারী মহাপরিদর্শক (এআইজি, মিডিয়া) সোহেল রানা বলেন, ঢাকা মহানগর পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিট, পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) সাইবার ইউনিট, পুলিশ সদর দপ্তরের এলআইসি সেল, পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই), বিশেষ শাখা (এসবি) ও র‌্যাব সাইবার ক্রাইম নিয়ে আলাদাভাবে কাজ করছে।এদিকে র‌্যাব ফেসবুকসহ অন্যান্য সামাজিক মাধ্যমে প্যাট্রলিংয়ের জন্য ‘সাইবার নিউজ ভেরিফিকেশন সেন্টার’ চালু করেছে। সেখানে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান চালানো হয় বলে জানান র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান। তিনি বলেন, ‘অভিযোগ পেলে আমরা দ্রুত পদক্ষেপ নিচ্ছি।’ফেসবুকের সবচেয়ে বেশি অভিযোগ সিটিটিসির সাইবার ক্রাইম ইউনিটে। গত এক বছরে এক হাজার ৬৭০টি অভিযোগ এসেছে সেখানে। দুই শতাধিক আইডির বিরুদ্ধে ২০৪ মামলার তদন্ত চলছে। অতিরিক্ত উপকমিশনার (এডিসি) নাজমুল ইসলাম বলেন, অভিযোগ পেলে নির্দিষ্ট চ্যানেলে তদন্ত হয়। ফেসবুকের সঙ্গে সরাসরি তথ্য আদান-প্রদান করেও তদন্ত চলছে বলে জানান তিনি।গত বছর ‘সাইবার ক্রাইম অ্যাওয়ারনেস ফাউন্ডেশনের এক গবেষণায় উঠে আসে, দেশে সাইবার অপরাধের শিকার ৫১.১৩ শতাংশ নারী এবং ৪৮.৮৭ শতাংশ পুরুষ। গবেষণায় দেখা যায়, বাংলাদেশে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে ভুয়া আইডির মাধ্যমে হয়রানির শিকার হন ১৪.২৯ শতাংশ নারী এবং ১২.৭৮ শতাংশ পুরুষ। ছবি বিকৃতির শিকার হন ১২.৩ শতাংশ নারী এবং ৩.৭৬ শতাংশ পুরুষ। অনলাইনে হুমকির শিকার ৯.৭ শতাংশ নারী এবং পুরুষ ৩.৭৬ শতাংশ। গবেষণায় উঠে আসে, ভুক্তভোগী অনেকেই আত্মমর্যাদা ধরে রাখতে ঘটনা চেপে যান। যারা অভিযোগ করেন তাদের মধ্যে অধিকাংশ ব্যক্তি-ই সুফল পেয়েছেন। তথ্য ও যোগাযোগ খাতে গবেষণা প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্কের (বিডিওএসএন) এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৫৬ লাখ। এরমধ্যে ১১ লাখই ভুয়া। ২০১৭ সালের একটি জরিপ থেকে জানা যায়, সক্রিয় ফেসবুক ব্যবহারকারীর তালিকায় ঢাকা বিশ্বে দ্বিতীয়।পুলিশসহ তদন্ত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ফেসবুক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সরকারের যোগাযোগ বেড়েছে। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন এবং ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন অনুযায়ী কাজ করতে কয়েকটি তদন্ত ইউনিট গঠন করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here