বিএনপি আন্দোলন স্থগিত না করলে জাতি আজ মুক্ত থাকতো…. সৈয়দ মোহাম্মদ ইব্রাহিম

0
32
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর সংবাদ বিজ্ঞপ্তি :বিএনপি কর্তৃক ৬ জানুয়ারি ২০১৪ সালে জনগণের চলমান আন্দোলন সংগ্রামকে স্থগিত করা না হলে গোটা জাতি আজ স্বৈরাচারের কবল হতে মুক্ত থাকতো। এমন ভয়াবহ পরিস্তিতির সম্মুখিন নাও হতে পারতো এমন মন্তব্য করেন বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল সৈয়দ মোহাম্মদ ইব্রাহিম বীর প্রতীক। অদ্য সকাল সাড়ে ১১ টায় বাংলাদেশ শিশু কল্যাণ পরিষদ মিলনায়তনে নাগরিক মঞ্চ কর্তৃক আয়োজিত বিপন্ন গণতন্ত্র ও ভোটাধিকার হরন দিবস এবং সকল রাজবন্দীদের মুক্তি শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত মন্তব্য করেন। ২০১৪ সালে সমগ্র জাতি তত্বাবধায়ক সরকারের অধিনে নির্বাচনের দাবিতে ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচন বর্জন করলে সারাদেশে অসহযোগ আন্দোলনের মতো কঠোর আন্দোলন শুরু হয়। সমগ্র বাংলাদেশ স্থবির হয়ে পরে জনগণের আন্দোলনের মুখে। ৫ জানুয়ারি ২০১৪ সালে জনগণের মতামত উপক্ষো করে আন্তর্জাতিকভাবে কোনঠাসা হয়েও এককভাবে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ১৫৪টি আসন দখল করে নেয় বর্তমান সরকার। বাকি আসনগুলোও কারচুপির মাধ্যমে দখল করে নেয় অগণতান্ত্রিক সরকার। সেদিন প্রহসনের নির্বাচনের বিরুদ্ধে গোটা জাতি ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তুলেছিল। কোন এক অদৃশ্য শক্তির ইশারায় হঠাৎ করে বিএনপির আন্দোলন স্থগিত করে দেয়ায় আজ দেশের এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। আর তার খেসারত বিএনপির তৃণমূল নেতাকর্মীসহ গোটা দেশবাসী দিয়ে যাচ্ছে। বর্তমান সরকার অগণতান্ত্রিকভাবে জনগণের মতামতকে তোয়াক্কা না করে দলীয় সরকারের অধিনে নির্বাচন দিতে নানা ষড়যন্ত্র ও অপকৌশল করে যাচ্ছে। আজ নাগরিক মঞ্চ যে আয়োজন করেছে তা জনগণের কাতারে নিতে হলে তাদেরকে আরো সংঘবদ্ধ ও বলিষ্টভাবে পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। আমরা কাউকে ছোট করে দেখছি না এবং বড় করেও অহংকারের দিকে ঠেলে দিচ্ছি না। আন্দোলন সংগ্রাম ঐক্যবদ্ধভাবে না করতে পারলে এ সরকারের কাছ থেকে দাবি আদায় করা সম্ভব নয়। প্রতিহিংসার রাজনীতি পরিহার করতে সকল দলকে সমান মর্যাদা দিতে হবে, প্রশাসনিকভাবে সরকারের অন্যায় আচরণে যারা সহযোগী হবে তারাও একদিন বিচার ও জবাবদিহিতার আওতায় আসবেন। বাংলাদেশের সকল বিরোধী দলকে গণতান্ত্রিক আন্দোলনে অংশগ্রহণ করা উচিত। আর এ অংশগ্রহণের মধ্যদিয়েই সফলতার নতুন সূর্য উদিত হবে।
উক্ত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি এনডিপি’র চেয়ারম্যান ও ১২ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতা এ কে এম আবু তাহের, ৯০’র স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনের সাবেক ছাত্রনেতা জাগপা’র কেন্দ্রীয় নেতা আসাদুর রহমান খান আসাদ, বাংলাদেশ স্বাধীন পার্টির চেয়ারম্যান ও নাগরিক মঞ্চের সমন্বয়কারী মীর্জা আজম, বাংলাদেশ রিপাবলিকান পার্টির চেয়ারম্যান ও নাগরিক মঞ্চের সমন্বয়কারী অধ্যাপক বাজলুর রহমান আমিনী, বাংলাদেশ ইসলামী সমাজতান্ত্রিক পার্টির চেয়ারম্যান ও নাগরিক মঞ্চের সমন্বয়কারী ইঞ্জিনিয়ার হাফিজুর রহমান, সুশীল ফোরামের সভাপতি ও নাগরিক মঞ্চের সমন্বয়কারী মোঃ জাহিদ, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের নায়েবে আমীর মাওলানা আবুল কাসেম কাসেমী ও ঢাকা মহানগর আমীর মাওলানা মোঃ হোসাইন আকন্দ, বাংলাদেশ জজ কোর্টের সিনিয়র এডভোকেট শাহ মোহাম্মদ মাহফুজুল হক, বাংলাদেশ ডেমোক্রেটিক পার্টির মহাসচিব আব্দুল্লাহ আল হারুন, দেশপ্রেমিক নাগরিক পার্টির মহাসচিব ও অনুষ্ঠানের সঞ্চালক ডা. মোঃ শওকত হোসেন, বাংলাদেশ ইসলামী সমাজতান্ত্রিক পার্টির মহাসচিব কমর উদ্দিন লিটন, বাংলাদেশ রিপাবলিকান পার্টির অতিরিক্ত মহাসচিব ডা. মনির হোসেনসহ জাতীয় নেতৃবৃন্দ।
অনুষ্ঠানের সভাপতি ও নাগরিক মঞ্চের সমন্বয়কারী, দেশপ্রেমিক পার্টির চেয়ারম্যান আহসান উল্লাহ শামীম সভাপতির বক্তব্যে বলেন, রাজনীতি করা এবং রানৈতিক দল পরিচালনা করা গণতান্ত্রিক অধিকার। এ অধিকারের প্রতি সম্মান করা রাষ্ট্রের প্রতিটি নাগরিকের পবিত্র দায়িত্ব। একটি রাষ্ট্র পরিচালনা করতে গেলে সকল নাগরিকের মতামতের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন করতে হয়। তদরূপ সভা-সমাবেশ, মিছিল-মিটিং এটিও রাজনৈতিক এবং গণতান্ত্রিক অধিকারের মধ্যে পরে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষারী বাহিনীর দায়িত্ব হচ্ছে সমাজে বিশৃঙ্খলা দেখা দিলে রাষ্ট্র বিরোধী এবং রাষ্ট্রের কোন সম্পদ ক্ষতির সম্মুখীন হলে তা পুণরুদ্ধারে পদক্ষেপ গ্রহণ করা। কিন্তু বিশেষ কোন রাজনৈতিক দলের কর্মীর ভূমিকায় অবতীর্ন হয়ে রাজনৈতিক দলের সভা, সমাবেশে আগ বাড়িয়ে হামলা করা রাষ্ট্রের জনগণের ট্যাক্সের টাকায় পরিচালিত বাহিনীর কাজ হতে পারে না। আগামীতে সকল বিতর্কের উর্দ্ধে উঠে এই বাহিনীকে জনগণের সেবায় কাজ করার আহ্বান জানান। তিনি আরো বলেন, প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতে রাজনৈতিক দলের শীর্ষ নেতৃবৃন্দকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অনতিবিলম্বে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, মির্জা আব্বাস, রুহুল কবির রিজভী, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সালাম এবং জামায়াতের কেন্দ্রীয় আমির ডা. শফিকুর রহমান ও জাতীয় আলেম ওলামাসহ সকল রাজবন্দির নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here