মনোহরদীতে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে দোকান-পাট ভাংচুর অভিযোগ

0
157
728×90 Banner

নরসিংদী প্রতিনিধি : রাজনৈতিক আক্রোশ মেটাতে নরসিংদীর মনোহরদীতে বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিয়েছেন সাবেক চেয়ারম্যানের মার্কেট। প্রায় ৫০টি আধা পাকা ও পাকা দোকানঘর ভাঙচুর করে নগদ টাকাসহ ২ কোটি টাকার মালামাল লুট করে নিয়েছেন । দখল করে নিয়েছেন দোকান ভিটা। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার খিদিরপুর বাজারে ।
হাসপাতালের বিছানা থেকে ক্ষতিগ্রস্থ সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা জাকির হোসেন অভিযোগ করে বলেন, ‘জাতীয় নির্বাচনের পর রাজনৈতিক অক্রোশের ফলে গত ১ জানুয়ারী থেকে খিদিরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান জামিল ও তার সন্ত্রাসী বাহিনীর নেতেৃত্বে ২০ জন শ্রমিক আমার মালিকানাধীন খিদিরপুর বাজারের দোকান-পাট ভাংচুর ও লুটপাটের তান্ডব চালিয়ে যাচ্ছে। পুলিশ বাধা দেয়ার পরও রাজনৈতিক ক্ষমতার প্রভাবে চেয়ারম্যান জামিল ও তার পোষ্যরা বাধা মানছে না। চেয়ারম্যান ও তার সন্ত্রাসী বাহিনীর তান্ডবে বাজারে শতশত ব্যবসায়ীর মধ্যে ব্যাপক আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। কোটি কোটি টাকার মূলধন নিয়ে ব্যবসা নিয়ে বসা নিরীহ ব্যবসায়ীরা সার্বক্ষণিক উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার মধ্যে দিন কাটাচ্ছে। হামলাকারীরা দোকান মালিকদেরকে তাড়িয়ে দিয়ে দোকানের ক্যাশে থাকা টাকা ও মালামাল লুট করতে থাকে। লুটপাটের পর শুরু করে ভাঙচুরের তান্ডব। লোহার শাবল, হাতুড়ি, দা কোদাল সহ বিভিন্ন যন্ত্রপাতি দিয়ে তারা অর্ধশত দোকানঘর ভাঙচুর করে।’
ওই ই্উনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা জাকির হোসেন বর্তমানে অসুস্থ অবস্থায় উত্তরা ক্রিসেন্ট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। সেখান থেকে তিনি মোবাইল ফোনে জানিয়েছেন, মনোহরদীর খিদিরপুর বাজারটি ১৯৫৬ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। এই বাজারটি এলাকার লাখ লাখ মানুষের পণ্য-দ্রব্য বেচাকেনার বাজার। বাজারটিতে ৫ শত স্থায়ী ব্যবসায়ীসহ কয়েক হাজার ব্যবসায়ী ব্যবসা-বাণিজ্য করে জীবিকা নির্বাহ করে। সাবেক চেয়ারম্যান জাকির হোসেন তার কেনা এবং পৈত্রিকভূমিতে সাড়ে ৩ শত পাকা, আধা পাকা দোকানঘর নির্মাণ করে ব্যবসায়ীদের নিকট ভাড়া দিয়ে রেখেছেন। চেয়ারম্যান ও তার লোকজনের এই ভাঙচুর তান্ডবের ভয়ে অনেক ব্যবসায়ী বাজার থেকে নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যায়। এই অবস্থায় চেয়ারম্যান জামিল ও তার সন্ত্রাসী বাহিনী বাজারে ঘোষণা দেয় যে, যেসব ব্যবসায়ী তাদেরকে মাথাপিছু ১৫ লাখ টাকা করে দেবে তাদেরকে দোকান বরাদ্দ দেওয়া হবে।
ভাঙচুর বিষয়ে জানতে ইউপি চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান জামিলের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি এই সাংবাদিকদের জানান, এগুলো হিন্দু বাবুদের জায়গা। তিনি ১৯৮৩ সাল থেকে জোরপূর্বক এসব জায়গা দখল করে রখেছেন। তাদের নিকট ভূয়া দলিলপত্র ছাড়া বৈধ কোন কাগজ পত্র নেই। দলিলপত্র ছাড়া কেউ জমি দখলে রাখতে পারে না। তিনি আরো জানান, জাকির হোসেন ও তার ছেলেরা যদি বাবুদের জায়গা কিনে রাখতে চায়, তবে বাবুরা বিক্রি করে দিবে।
মার্কেট তথা জমির মালিকানা প্রসঙ্গে খিদিরপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা মো: জাকির হোসেনের ছেলে সরকারী কর্মকর্তা মোহাম্মদ নূর হোসেন জানান, তার পিতা জাকির হোসেন ১৯৮৬ সালে বৈধ মালিকদের নিকট থেকে সাব কবলা দলিল মূলে এসব জমি ক্রয় করেছেন। এসব জমির দলিল তাদের কাছেও রয়েছে এবং সরকারের রেজিস্ট্রি বিভাগেও রয়েছে। তারা প্রতিবছর এই জমির খাজনা ও জমাভাগ পরিশোধ করে আসছেন। কোন দলিলপত্রকে অবৈধ বলার এখতিয়ার একমাত্র আদালতের। জমির মালিকরা তাদের জীবদ্দশায় আমাদের দলিলের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে কোন আদালতে মামলা দায়ের করেননি। চেয়ারম্যান জামিল বা অন্য কোন ব্যক্তি আদালত বা প্রশাসনিক কর্তৃপক্ষকে পাশ কাটিয়ে নিজে তার নিজস্ব বাহিনী দিয়ে একটি মার্কেটে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর লুটপাট করতে পারনে না। রাজনৈতিক ক্ষমতার বলে তিনি যে ভাঙচুর করছেন তা সর্ম্পূণ বেআইনি ও তার এখতিয়ার বহির্ভূত। এ ব্যাপারে তিনি স্থানীয় প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।
এ ব্যাপারে মনোহরদী থানার ভানপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো: মনিরুজ্জামান বলেন, খিদিরপুর ইউপি চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান জামিল জোরপূর্বক খিদিরপুর বাজারে দোকান ভাংচুর করার বিষয়টি জানার পর তাকে ফোন দেয়া হয়েছিল। কিন্তু তিনি ফোন ধরনেনি। পরবর্তীতে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে চেয়ারম্যানকে না পেয়ে ভাংচুরের কাজে নিয়োজিত শ্রমিকদের কাজ বন্ধ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে ক্ষতিগ্রস্থ ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here