মহাসচিব পদ আঁকড়ে ধরতে লন্ডনে চিঠি চালাচালিতে ব্যস্ত মির্জা ফখরুল, ক্ষুব্ধ নেতা-কর্মীরা

0
205
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পরাজয়ের পর বিএনপির মহাসচিব পদে পরিবর্তনের জোর দাবি ওঠার প্রেক্ষিতে এবার পদত্যাগ নয়, বরং দলের পূর্ণ কর্তৃত্ব চেয়ে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের কাছে চিঠি লিখেছেন মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বিএনপির একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছে।
নয়াপল্টন বিএনপি পার্টি অফিস সূত্রে জানা যায়, নির্বাচনের পর দলে আমূল পরিবর্তনের লক্ষ্যে প্রথম ধাপেই মহাসচিব পরিবর্তনের জোর দাবি ওঠে। দলের একাধিক সিনিয়র নেতা, জেলা পর্যায়ের প্রভাবশালী নেতা এবং তৃণমূল পর্যায়ের দাবির মুখে পদ হারানোর শঙ্কায় ছিলেন মির্জা ফখরুল। তৃণমূল পর্যায়ের দাবি ছিল-দলকে সাংগঠনিকভাবে দুর্বল করে আন্দোলন বিমুখ করা, আঁতাত করে দলকে নিষ্ক্রিয় করে রাখা এবং মনোনয়ন বাণিজ্যে সরাসরি হস্তক্ষেপ করে দলের শোচনীয় পরাজয় তরান্বিত করতে নগ্ন হস্তক্ষেপ করেছেন মির্জা ফখরুল। তাই পরাজয়ের পর বিভ্রান্তিতে পড়া বিএনপিকে রাজনীতির মাঠে ফিরিয়ে আনার জন্য মির্জা ফখরুলকে সরিয়ে দেয়া বিএনপির জন্য শুভকর মনে করছেন তারা।
তবে মির্জা ফখরুল তার নড়বড়ে অবস্থান বিবেচনা করে পদত্যাগ না করে বরং দলের অবস্থান আরো শক্ত করার জন্য লন্ডনের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছেন। আসন্ন জাতীয় কাউন্সিলে মহাসচিবের পদে বহাল থাকতে নিজের ইচ্ছা ও যোগ্যতা বর্ণনা করে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে চিঠি লিখেছেন মির্জা ফখরুল। জানা গেছে, চিঠিতে দল পুনর্গঠন এবং সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনে দুই বছরের একটি পরিকল্পনা উপস্থাপন করেছেন মির্জা ফখরুল। এসব করে মহাসচিবের পদ রিনিউ করার চেষ্টা চালাচ্ছেন বলেও গুঞ্জন উঠেছে দলে। দলের ক্রান্তিকালে মির্জা ফখরুলের এমন গোপন চিঠি আদান-প্রদান, দলের দাবি-দাওয়া উপেক্ষা করে নিজের পদ বাঁচানোর জন্য হীন চেষ্টায় নেতা-কর্মীরা।
মির্জা ফখরুলের এমন চিঠি চালাচালিকে বিএনপির রাজনীতির জন্য অশনি সংকেত দাবি করে দলটির সংস্কারপন্থী নেতা সরদার সাখাওয়াত হোসেন বকুল বলেন, দীর্ঘদিনে ধরেই মির্জা ফখরুল ইসলামের ধীরস্থির নীতির কারণে বিএনপি রাজপথে দাঁড়াতে ব্যর্থ হয়েছে। প্রতিরোধের রাজনীতি বাদ দিয়ে তিনি শুধু প্রেস ব্রিফিং ও অভিযোগের রাজনীতির মধ্যে সীমাবদ্ধ রেখেছেন। এটি বিএনপির মত বড় একটি রাজনৈতিক দলের জন্য অসম্মানজনক। তার সমন্বয়হীন রাজনীতি, স্বজনপ্রীতি, অযোগ্য নেতৃত্ব গঠন এবং সর্বশেষ জাতীয় নির্বাচনে মনোনয়ন বাণিজ্যে অজনপ্রিয়দের নির্বাচন করার সুযোগ করে দিয়ে বিএনপির ভরাডুবিকে ত্বরান্বিত করেছেন। দলের নেতৃত্ব পরিবর্তনসহ যখন নেতা পরিবর্তনের দাবি উঠছে, তখন লন্ডনে চিঠি পাঠিয়ে গদি টিকিয়ে রাখতে সর্বাত্মক চেষ্টা করছেন। বিষয়টি অত্যন্ত অনুতাপের। আপনি যদি বুদ্ধিমান হন, তবে আপনাকে সরিয়ে দেয়ার আগেই সম্মান রক্ষার্থে অন্তত স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করা উচিত। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে মির্জা সাহেব ব্যর্থতা স্বীকার করাতো দূরের কথা বরং পদ বাঁচাতে উঠেপড়ে লেগেছেন। পদে না থেকেও রাজনীতি করা যায়, জনপ্রিয় হওয়া যায়-এমন ধারণায় হয়তো বিশ্বাসী নন মির্জা ফখরুল। ক্ষমতা আঁকড়ে ধরে রাখার চেষ্টা করলে ফখরুল সাহেব ঐতিহাসিক ভুল করবেন যা বিএনপি ও তার জন্য ক্ষতিকর হবে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here