শ্রীপুরে কিশোর শ্রমের কারখানায় বেতন বৃদ্ধির আন্দোলন

0
261
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: কারখানার অধিকাংশ শ্রমিকদের গড় বয়স ১৮ এর নিচে। দীর্ঘদিন ধরেই কম বেতনে শিশু ও কিশোরদের কারখানায় নিয়োগ দিয়ে কাজ করিয়ে আসছিল মালিক পক্ষ। অবশেষে অতিরিক্ত শ্রম বিক্রি করেও ন্যায্য মুজুরি না পাওয়ায় আন্দোলনের পথ বেছে নিয়েছে সিরাজ সাইকেল ইন্ডাষ্ট্রিজ নামের এক সাইকেল কারখানার শিশু ও কিশোর শ্রমিকরা।
গাজীপুরের শ্রীপুরের ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের পাশে মুলাইদ এলাকার এই কারখানায় শ্রমিকরা সরকারী বিধি অনুযায়ী বেতন বৃদ্ধিসহ অন্যান্য সুযোগ সুবিধার জন্য শনিবার সকাল থেকে কর্মবিরতি পালন করে বিক্ষোভ প্রদর্শণ করেন। পরে থানা পুলিশ এসে শ্রমিকদের দাবি পুরণের বিষয়ে আশ্বাস দিলে দুপুরে তারা শান্ত হয়।
কারখানার শ্রমিকদের অভিযোগ এই কারখানায় কোন শ্রম আইন নেই। কম বেতনের কাজের জন্যই এখানে শিশু ও কিশোরদের বেছে নেয়া হয়। বর্তমানে এই কারখানায় কর্মরত আছেন প্রায় সাড়ে তিনশত শ্রমিক। এখানে প্রতিদিন বাধ্যতামূলক ভাবে ১২ ঘন্টা করে শ্রমিকদের কাজ করানো হয়। নেই কোন ওভারটাইমের ব্যবস্থা। কোন শ্রমিক অসুস্থ্য হলে নিজে দায়িত্বে চিকিৎসা করতে হয়। সরকার বিভিন্ন সময় শ্রমিকদের বেতন বৃদ্ধি করলেও এই কারখানায় কোন শ্রমিকের বেতন বাড়ানো হয়নি। বর্তমানে শ্রমিকদের ৩-৫ হাজার টাকা করে বেতন দেয়া হচ্ছে।
কিশোর শ্রমিক আলীর ভাষ্য, সে গত ৪ মাস ধরে এই কারখানায় কাজ করছেন তার বেতন সাড়ে তিনহাজার টাকা। গত ১সপ্তাহ আগে মেশিনে তার হাত চলে গেলে সে আহত হয়। এসময় কারখানা কর্তৃপক্ষকে জানালেও তারা চিকিৎসার ব্যবস্থা নেয়নি। পরে অন্যান্য শ্রমিকরা চাঁদা তুলে তার হাতে চিকিৎসা করিয়েছেন। একই কারখানার শ্রমিক রিয়াদের ভাষ্য, আমাদের দিয়ে এক নাগাড়ে ১২ ঘন্টা কাজ করালেও কোন ওভার টাইম দেয়া হয়না। এ ছাড়াও কর্মপরিবেশের অবস্থাও খুব খারাপ থাকায় অপ্রাপ্ত বয়স্করা কাজ করতে গিয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন।
নারী শ্রমিক শেফালীর মতে, সরকারী আদেশ অনুযায়ী অন্যান্য কারখানায় নিয়মিত বেতন ভাতা বৃদ্ধি হলেও আমাদের কারখানায় এখনও বেতন বাড়ানোর পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। স্বল্প বেতনের কাজ করে এখন সংসার আর চলে না তাই আমরা আমরা আন্দোলনের পথ বেছে নিয়েছি।
কারখানার প্রশাসনিক কর্মকর্তা ইউসুফ হাসান কারখানায় শিশু ও কিশোর শ্রমের কথা স্বীকার করে জানান,আমরা কাগজ পত্রের মাধ্যমে বয়স ঝাচাই করে নিয়োগ দেই। বাস্তবে বয়স নির্নয় না করায় হয়ত ভুল বশত অপ্রাপ্ত বয়স শ্রমিক নিয়োগ হয়েছে। এছাড়াও শ্রমিকদের দাবীর বিষয়ে মালিকপক্ষের সাথে বসে সমাধান করা হবে।
শ্রীপুর থানার উপপরিদর্শক(এসআই) আব্দুল মালেক জানান, সকাল থেকেই কর্মবিরতি পালনের মাধ্যমে শ্রমিকরা কারখানার অভ্যন্তরে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ করছিল। এসময় মালিকপক্ষ বিক্ষোভরত শ্রমিকদের নিরাপদ কর্মপরিবেশ ও বেতন বৃদ্ধির আশ্বাস দেয়ায় তারা কাজে ফিরে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here