সংরক্ষিত আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ভাবনা

0
204
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: নারীর সংরক্ষিত আসন সংখ্যা নির্ধারিত হয় রাজনৈতিক দলের আকারের ওপর অর্থাৎ যে দলের প্রতিনিধিত্ব সংসদে যত বেশি তাদের সংরক্ষিত আসন সংখ্যা তুলনামূলক অনেক বেশি। জেলা কিংবা মাঠ পর্যায়ের জাতীয় রাজনৈতিক দলের মহিলা শাখার নেতৃত্বে থাকা তাদের মধ্য থেকে সংরক্ষিত সে জেলার আসনে নির্বাচিত করে থাকে পাশাপাশি বিভিন্ন ক্ষেত্রে যেসব নারীরা স্বমহিমায় নিজেদের যোগ্যতার পরিচয় দিয়ে চলেছেন তাদের মধ্য থেকেও সংরক্ষিত আসনে সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন।
আশির দশকের হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের জাতীয় পার্টির শাসনামলে বাংলাদেশের ৬ষ্ঠ জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত নারীর আসন ছিল ৩০টি। পরবর্তীতে সংসদে নারীর অংশগ্রহণ বৃদ্ধি করতে অষ্টম সংসদে সংবিধানের দশম সংশোধনী পাস হয়। সেই সংসদেই সংবিধানের চতুর্দশ সংশোধনী গৃহীত হয়, যেখানে নারী আসনসংখ্যা বাড়িয়ে করা হয় ৪৫। ২০১১-এর ৩০ জুন সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনী পাস করে সংরক্ষিত নারী আসনের সংখ্যা ৪৫ থেকে বাড়িয়ে ৫০ করা হয়।একাদশ জাতীয় নির্বাচন শেষে এবার সংরক্ষিত ৫০ টি আসনে নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন ৫০ জন নারী। আওয়ামী লীগের দলীয় সূত্রে জানা গেছে, জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনে দলীয় মনোনয়নে নতুনদের প্রাধান্য দেবে আওয়ামী লীগ। আগে যারা এ আসনের এমপি হওয়ার সুযোগ পেয়েছেন, এবার তাদের সম্ভাবনা খুবই কম। তবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নানা কারণে দলের মনোনয়নবঞ্চিত কয়েকজন পুরনো নারী এমপিকে এবার সংরক্ষিত আসনে দেখা যেতে পারে। সব মিলিয়ে সংরক্ষিত আসনে ৯০ শতাংশেরও বেশি নতুন মুখ আনার বিষয়ে মনোভাব জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। দু-একটি আসন শরিক দলের জন্যও ছাড় দেওয়া হতে পারে।সংখ্যানুপাতিক হিসাব অনুযায়ী, নির্বাচনে ২৫৭ আসনে জয়ী আওয়ামী লীগ এবার ৪৪টি সংরক্ষিত আসন পাবে। আওয়ামী লীগের এ আসন থেকে ১৪-দলীয় জোট এবং দলটির নির্বাচনী মিত্ররাও ভাগ বসাতে চান। সে ক্ষেত্রে দু-একটি আসন শরিক দলের জন্যও ছাড় দেবে আওয়ামী লীগ।
১৯৮১ সাল থেকে এ পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে যেসব পরিবার ও ব্যক্তি আওয়ামী লীগের জন্য অবদান রেখেছেন, সংরক্ষিত আসনে সেসব পরিবারের নারীদের মূল্যায়ন করার অভিপ্রায় ব্যক্ত করা হয়েছে দলের পক্ষ থেকে। পাশাপাশি মহিলা আওয়ামী লীগ ও যুব মহিলা লীগের যেসব নারী নেত্রী আন্দোলন-সংগ্রামে মাঠে ছিলেন, বিরোধী দলের সময় পুলিশি নির্যাতনের শিকার হয়েছেন তাদেরকেও অগ্রাধিকার দেওয়ার কথা ভাবছে আওয়ামী লীগ।
এছাড়া সংরক্ষিত নারী আসনে রাজনীতিকদের পাশাপাশি মুক্তিযুদ্ধে শহীদ পরিবারের সন্তান, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, লেখক, সংস্কৃতিকর্মী ও অভিনয় শিল্পীদেরও মনোনয়ন দেবে আওয়ামী লীগ।
গত মঙ্গলবার থেকে সংরক্ষিত আসনে মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু করেছে আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগের ধানমন্ডির দলীয় সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এ ফরম বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। প্রথম দিনেই ৬০০-এর বেশি মনোনয়নপ্রত্যাশী ফরম সংগ্রহ করেছেন বলে জানা গেছে।
জাতীয় সংসদ (সংরক্ষিত মহিলা আসন) নির্বাচন আইন ২০০৪ অনুযায়ী, সংসদ নির্বাচনের ফল গেজেট প্রকাশের পর ২১ কার্যদিবসের মধ্যে ইসিকে জানাতে হবে। আর ইসি ৩০ কার্যদিবসের মধ্যে সংরক্ষিত নারী আসনের এমপিদের তালিকা প্রস্তুত করবে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here