সবুজ আন্দোলনকে গতিশীল করতে যুক্ত হলেন ৩ নতুন পরিচালক

0
22
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর ( সংবাদ বিজ্ঞপ্তি ):পরিবেশবাদী সংগঠন সবুজ আন্দোলন ২০১৮ সালের ১লা সেপ্টেম্বর যাত্রা শুরু করে। শুরু থেকেই সংগঠনটি জলবায়ু পরিবর্তন ও পরিবেশ বিপর্যয় রোধে জনসচেতনতা তৈরিতে রাজপথে ও বাংলাদেশের সর্ব জায়গায় সমান তালে আন্দোলন করে আসছে। তরুণ প্রজন্মের আলোর দিশারী ও ১৮ কোটি জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিতে যিনি এই সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা করেন তিনি বাপ্পি সরদার। বর্তমানে পাঁচ সদস্যের পরিচালনা পরিষদ রয়েছে। ২ ডিসেম্বর ২০২১ইং তারিখে সর্বসম্মতিক্রমে ৩ জন নতুন পরিচালক নির্বাচিত করা হয়। তাঁরা হলেন, বাংলাদেশের অন্যতম বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটি’র পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক মোঃ শাহাদাত হোসেন, তরুণ নারী উদ্যোক্তা ও সমাজকর্মী নাদিরা নূর তনু ও বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের আইনজীবী মোঃ রাশিদুল ইসলাম।
প্রভাষক শাহাদাত হোসেন ফেনী জেলায় জন্মগ্রহণ করেন এবং দীর্ঘদিন জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে গবেষণার সাথে যুক্ত আছেন। নাদিয়া নূর তনু ঢাকা জেলার সাভার থানা এলাকায় স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন। তিনি পারিবারিক ব্যবসা ও সমাজ সেবিকা হিসেবে পরিচিত। পাশাপাশি সুপ্রীম কোর্টে আইন পেশায় নিয়োজিত আছেন এডভোকেট মোঃ রাশিদুল ইসলাম। তিনি উত্তরবঙ্গের কুড়িগ্রাম জেলায় জন্মগ্রহণ করেন।
সবুজ আন্দোলনের অন্যান্য পরিচালকরা হলেন প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান বাপ্পি সরদার, মহাসচিব মহসিন সিকদার পাভেল, অর্থ পরিচালক ওমর ফারুক চৌধুরী, পরিচালক নাসিরুল ইসলাম নাসির ও আলম শাইন।
সংগঠনের চেয়ারম্যান বাপ্পি সরদার তাঁর অনুভূতিতে বলেন, বাংলাদেশের বর্তমান সময়ের অন্যতম প্রধান সমস্যা জলবায়ু পরিবর্তন ও পরিবেশ বিপর্যয়। আমরা রাষ্ট্রের পক্ষে ক্ষতিপূরণ আদায়ের আন্দোলন করছি। বিগত দিনগুলোতে আমরা রাজপথে ছিলাম আগামীতেও রাষ্ট্রের জনগণের প্রয়োজনে রাজপথে থাকবো। আশা নতুন পরিচালকদের মাধ্যমে সবুজ আন্দোলন আরো বেশি বেগবান হবে। নতুন বছরকে সামনে রেখে সংগঠনের পক্ষ থেকে আমরা সরকারের কাছে নিম্নোক্ত প্রস্তাবনাসমূহ বাস্তবায়নের দাবি জানাচ্ছি।
প্রস্তাবনাসমূহ:
১। যে সকল প্রতিষ্ঠিত সংগঠন পরিবেশ বিপর্যয় নিয়ে কাজ করছেন সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় এর মাধ্যমে তাদের তালিকা প্রনয়ণ করতে হবে এবং স্টেক হোল্ডার হিসেবে স্বীকৃতি দিতে হবে।
২। সরকারের সংশ্লিষ্ট খাতের বাজেট এই সকল সংগঠনের মাধ্যমে বন্টন করতে হবে।
৩। বন, পরিবেশ ও জলবায়ু মন্ত্রণালয়ের যথা ইচ্ছা বাজেট তসরুপ বন্ধ করতে হবে।
৪। বায়ু দূষণ বন্ধে স্বতন্ত্র ও স্বাধীন কমিশন গঠন করতে হবে।
৫। পলিথিনের ব্যবহার বন্ধে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে এবং পাটজাত পণ্যের ব্যবহার নিশ্চিত করতে কৃষকদের অল্প সুদে ঋণ প্রদান ও উন্নতমানের বীজ উৎপাদনে সার্বিক সহযোগিতা করতে হবে।
৬। নদী ভাঙ্গন রোধে পাড় গুলোতে স্থায়ী বেড়িবাঁধ নির্মাণ করতে অর্থ বরাদ্দ বৃদ্ধি করতে হবে।
৭। নিয়মিত জলবায়ু পরিবর্তন ও পরিবেশ বিপর্যয় রোধে জনসচেতনতা তৈরিতে রাষ্ট্রীয়ভাবে কর্মসূচি প্রণয়ন করতে হবে।
৮। ঢাকা শহরের চারপাশের নদী বন্দর বাড়াতে হবে, নদীর নাব্যতা সংকট দূরীকরণে ড্রেজিং করতে হবে এবং বেসরকারি খাতে নৌযান চলাচলের জন্য অনুমতি দিতে হবে।
৯। সারাদেশে ২৫ ভাগ সবুজায়ন নিশ্চিত করতে সরকারি সকল পতিত জায়গায় বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি বাস্তবায়ন জোরদার করতে হবে।
১০। গবেষণা খাতের উৎকর্ষতা সাধনে অর্থ বরাদ্দ বৃদ্ধি করতে হবে এবং দুর্নীতি বন্ধে কার্যকরী পদক্ষেপ নিতে হবে।
১১। আন্তর্জাতিক জলবায়ু তহবিল আদায়ে সকল প্রবাসী বাংলাদেশীকে উদ্বুদ্ধ করতে হবে এবং শিল্পোন্নত দায়ী রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে আন্দোলনে নামাতে প্রচারণা বাড়াতে হবে।
১২। ২০৩০ সালে অর্ধেক ও ২০৫০ সালে কার্বন নিঃসরণ শূন্যের কোঠায় আনতে দায়ী রাষ্ট্রকে চাপ প্রয়োগ অব্যাহত রাখতে হবে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

two × 3 =