হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বসতবাড়ি ভেঙে জমি অধিকরণ সহ মারধরের অভিযোগ

0
27
728×90 Banner

অলিদুর রহমান অলিঃগাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ১৯ নং ওয়ার্ড দক্ষিণ সালনা এলাকায় রাস্তার প্রশস্ত ও নির্মাণের জন্য প্রস্তাবিত জমি অধিকরণের বিষয়ে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও তা অমান্য করে বসতবাড়ি ভেঙে জমি অধিগ্রহণ ও পরিবারের নারী সদস্যদের মারধরের লিখিত অভিযোগ জিএমপি সদর থানায় দায়ের করেছেন ভুক্তভোগী আবুল হাশেম। লিখিত অভিযোগসূত্র ও ভুক্তভোগী মাধ্যমে জানা যায়, সালনা হতে বাঘলবাড়ি পর্যন্ত ৮ ফুট রাস্তা প্রশস্ত ৩০ ফুটে উন্নয়ন করার জন্য গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন উদ্যোগ গ্রহণ করেন।এর পরিপেক্ষিতে গত ৫/১/২০১৯ ইং তারিখে স্থানীয় ১৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর তানভীর আহমেদ অত্র এলাকায় মাইকিং করে এলাকাবাসীকে বিষয়টি জানান এবং রাস্তার দুই পাশে সকল স্থাপনা ও গাছপালা জমির মালিকদের নিজ খরচে সরিয়ে ফেলতে হবে। জমির মালিকরা যদি রাস্তার জন্য জমি খালি না করে দেন তাহলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে ভুক্তভোগীর মা হাসন বানু ওরফে হাসিম নেছা (৭০), সাইফুল ইসলাম মানিক,মতিন দেওয়ান সহ মোট ২৭ জনের বসত বাড়ি ছাড়া বাড়তি জমি না থাকায় গত ২৬/১২/২০১৯ তারিখ হাইকোর্টে ক্ষতিপূরণ চেয়ে রিট আবেদন করেন। মোকদ্দমা নং-৩৬১৮/২০২০, ভিসি । হাইকোর্ট মামলা নি®পত্তি না হওয়া পর্যন্ত ২৭ জন বাসিন্দাদের নিজ বাড়িতে শান্তিপূর্ণ ভাবে বসবাস করতে পারবেন এবং গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন কতৃপক্ষ যেন কোন সমস্যার সৃষ্টি না করেন এই মর্মে আদেশ দেন। আবুল হাশেম তার লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করেন গত ১৩ অক্টোবর সকাল দশটার দিকে ১৯ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর তানভীর আহমেদ, মহিলা কাউন্সিলর আয়েশা খাতুন, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ইঞ্জিনিয়ার আশরাফ, সার্ভেয়ার মাহবুব, ১৯ নং ওয়ার্ডের ক¤িপউটার অপারেটর মাজহারুল ইসলাম পান্না সহ দক্ষিণ সালনা এলাকার মৃত রমিজ উদ্দিনের ছেলে সোহেল,মৃত দেনাতুল্ল্যাহর ছেলে আলমগীর চৌধুরী, মৃত আব্দুল দেওয়ানের ছেলে সামসুল মেস্তরী সহ ২০০/৩০০ জন লোক নিয়ে হাশেমের বাড়ির জমিতে থাকা গাছ পালা কাটে এবং বসত ঘর ভাংচুর করে। তার পরিবারের সদস্য মা হাসন বানু, বোন রৌশন আরা ও ভাগিনা আশাদুল ইসলাম ভাংচুরে বাঁধা দিলে তাদের অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন ও মারধর করে।আবুল হাশেমের লিখিত অভিযোগের বিষয়ে মুঠোফোনে ১৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর তানভীর আহমেদের কাছে জানতে চাইলে তিনি সব অস্বীকার করেন। এবং বলেন আপনারা ঘটনা স্থলে সরাসরি গিয়ে দেখে আসুন,এসব কিছুই মিথ্যা ও বানোয়াট। ঘটনা স্থলে তথ্যের সত্যতা অনুসন্ধানে গিয়ে হাশেমের বসত বাড়ি ভাংচুর ও গাছ পালা কাটার সত্যতা পাওয়া যায়। স্থানীয় একাধিক বাসিন্দাদের বক্তব্যেও ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে। আবুল হাশেমের বৃদ্ধ মাতা হাসন বানু (৭০) কাঁদতে কাঁদতে প্রতিবেদক কে বলেন কাউন্সিলর তানভীর ও আয়েশা এলাকার বখাটে ছেলেদের নিয়ে তাদের থাকার ঘর ভাঙতে গেলে সে সামনে দাঁড়িয়ে বাঁধা দিলে সোহেল এবং আশাদুল তাকে ধাক্কা দিয়ে মাটিতে ফেলে দিয়ে তার শাড়ি টান দিয়ে খুলে বিবস্ত্র করে মারধর করে। তিনি আরো বলেন অন্যের বাড়িতে কাজ করে অনেক কষ্ট করে মাথা গোঁজার ঠাঁই এই জমিটুকু ক্রয় করেছিলাম।এই টুকু জমিও যদি আমার থেকে জোর করে কাউন্সিলর তানভীর ও আয়েশা নিয়ে রাস্তা বানায় তাহলে আমার ও আমার সন্তানদের আত্মহত্যা করা ছাড়া কোন উপায় নাই।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here