এমপি রাসেলের নগদ অর্থসহ সম্পদ বেড়েছে কয়েকগুণ

0
81
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : গাজীপুর-২ আসনের সরকারদলীয় এমপি যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর জাহিদ আহসান রাসেলের গত ১৭ বছরে নগদ অর্থ ও সম্পদ বেড়েছে কয়েকগুণ। স্ত্রীর নামেও হয়েছেন নগদ অর্থ ও স্বর্ণালংকার। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তার মনোনয়নপত্রের সঙ্গে জমাকৃত হলফনামা বিশ্লেষণ করে এমন তথ্য পাওয়া গেছে।
এ নিয়ে তিনি পঞ্চমবার সংসদ হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। জাহিদ আহসান রাসেল পেশা উল্লেখ করেছেন ব্যবসা ও কৃষি। তার শিক্ষাগত যোগ্যতা স্নাতক।
তার প্রয়াত পিতা শহিদ আহসানউল্লাহ মাস্টারের মৃত্যুর পর ২০০৪ সালে উপনির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী হয়ে দ্বিতীয়বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এরপর থেকে তিনি টানা সংসদ সদস্য আছেন। ফলে গত ১৭ বছরের বেশি সময় ধরে ওই আসনের এমপি তিনি বহাল আছেন।
এবারো তিনি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী হয়েছেন। ৯ম, ১০ম, একাদশ ও দ্বাদশ জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচনে তার দাখিল করা হলফনামার তথ্য বিশ্লেষণ করে সম্পত্তির কয়েকগুণ বেড়ে যাওয়ার তথ্য পাওয়া গেছে।
গত নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাহিদ আহসান রাসেল তার দাখিলকৃত হলফনামায় ছাত্র ও ব্যবসা হিসাবে পেশা দেখিয়েছিলেন। তখন ব্যবসা থেকে বার্ষিক আয় দেখানো হয়েছিল ৪ লাখ ৩৫ হাজার টাকা। অস্থাবর সম্পত্তি হিসেবে নগদ ১৫ হাজার টাকা। ব্যাংকে জমা দেখিয়েছিলেন ৭০ হাজার ৭৯৫ টাকা। তখন পৈত্রিক সূত্রে ২ কোটি ১০ লাখ ৫ হাজার ৪৯০ টাকা মূল্যের একটি গাড়ি ছিল। ইলেকট্রিক পণ্য ছিল ২ লাখ ও আসবাবপত্র ছিল ৭৫ হাজার টাকার।
পৈতৃক সূত্রে পেয়েছিলেন একটি শটগান ও একটি রিভলভার। সেই সময় স্থাবর কোনো সম্পত্তি তার ছিল না। দায় হিসেবে সুদহীন ২ কোটি ১০ লাখ টাকা ছিল।
গত ১৫ বছরে জাহিদ আহসান রাসেলের ও তার স্ত্রীর স্থাবর ও অস্থাবর সম্পত্তির পরিমাণ বহুগুণ বেড়েছে। কোটি টাকা মূল্যের করমুক্ত একটি জিপ গাড়িসহ বর্তমানে নিজ নামে দুইটি ও তার স্ত্রীর নামে একটি গাড়ি রয়েছে।
দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তার পেশা হিসেবে ব্যবসা ও কৃষি দেখিয়েছেন। তার শিক্ষাগত যোগ্যতা উল্লেখ করেছেন স্নাতক। রাসেলের নিজের স্বর্ণের পরিমাণ ১৪০ তোলা আর স্ত্রীর রয়েছে ১৪৮ ভরি। এমপি হিসেবে করমুক্ত গাড়ি রয়েছে তিনটি, যার মূল্য ৩ কোটি ৭৪ লাখ ৯৩ হাজার ৬৩৪ টাকা আর স্ত্রীর নামেও ১৩ লাখ টাকা মূল্যের একটি গাড়ি রয়েছে।
ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জমাকৃত নিজ নামে টাকার পরিমাণ ১৪ লাখ ১৬ হাজার ১৩১ টাকা এবং স্ত্রীর ৯ লাখ ৪০ হাজার ৩৪৫ টাকা। স্থাবর সম্পত্তি পৈতৃক সূত্রে প্রাপ্ত টঙ্গীতে ১ দশমিক ৬৫০ শতাংশ, উত্তরায় তৃতীয় প্রকল্পে ৫ কাঠা জমি। আর স্ত্রীর নামে রাজধানীর বনানীতে রয়েছে পৈতৃক সূত্রে প্রাপ্ত দুইটি ফ্ল্যাট। ব্যবসায় তার বাৎসরিক আয় ১ লাখ ২৬ হাজার টাকা এবং শেয়ার, সঞ্চয়পত্র, ব্যাংক আমানত ৯৮ হাজার ৩৯০ টাকা।
এছাড়াও বিভিন্ন কোম্পানির শেয়ার ২৩ লাখ ৭২ হাজার ৮১০ টাকা ও চট্টগ্রাম আবাহনী লিমিটেডের শেয়ার রয়েছে ৫ লাখ টাকা। ইলেক্ট্রনিক সামগ্রী রয়েছে ১৭ লাখ টাকার এবং আসবাবপত্র রয়েছে ৭ লাখ ৭৫ হাজার টাকার। প্রতিমন্ত্রী হিসেবে বাৎসরিক সম্মানী ভাতা পান ১৭ লাখ ৯৪ হাজার ৪২০ টাকা এবং বিশেষ সুবিধাদি হিসেবে পান ৩৫ লাখ ৫৬ হাজার ৮৩৮ টাকা। নিজ নামে নগদ টাকা হলো এক লাখ ৭১ হাজার টাকা। তার নামে কোনো মামলা নেই।
জানতে চাইলে প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান বলেন, আমার বেশিরভাগ সম্পত্তি পৈতৃক সূত্রে পাওয়া।
এদিকে এ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী আলিম উদ্দিনের শিক্ষাগত যোগ্যতা এসএসসি। পেশা ব্যবসা। ব্যবসা থেকে আয় ১৫ লাখ টাকা। অস্থাবর সম্পত্তি রয়েছে নগদ টাকা ২৩ লাখ ১ হাজার ৫৭৫ টাকা। গাড়ি দুইটি। স্বর্ণালংকার ২০ তোলা। ইলেকট্রিক পণ্য ১ লাখ ৭৫ হাজার টাকার ও আসবাব পত্র আছে এক লাখ ৪৮ হাজার টাকা। স্থাবর সম্পত্তির মধ্যে অকৃষি জমি আছে ৯৫ দশমিক ২৫ শতাংশ। গাজীপুর শহরে রয়েছে একটি বাড়ি ও একটি ফ্লাট। ব্যাংক ঋণ আছে ৫০ লাখ টাকা।
অপর স্বতন্ত্র প্রার্থী যুবলীগ নেতা সাইফুল ইসলামের শিক্ষাগত যোগ্যতা বিএসএস, পেশা ব্যবসা। বাড়ি ভাড়া পান ৪ লাখ ৮১ হাজার ৪২৩ টাকা। ব্যবসা থেকে আয় ১৮ লাখ ১০ হাজার। নগদ টাকা আছে ২০ লাখ এবং স্ত্রীর নামে ১০ লাখ। ব্যাংকে নিজ নামে আছে ১০ লাখ এবং স্ত্রীর নামে আছে ৫০ হাজার। গাড়ি রয়েছে একটি। স্ত্রীর নামে স্বর্ণ আছে ৩৫ ভরি। ইলেকট্রিক সামগ্রী আছে ১ লাখ ১৫ হাজার টাকা ও আসবাবপত্র রয়েছে ১ লাখ টাকার।
স্থাবর সম্পত্তির মধ্যে অকৃষি জমি আছে ৩৫৫ দশমিক ৫৮ শতাংশ জমি। স্ত্রীর নামে আছে ৩৫ শতাংশ জমি। দুই তলা একটি বাড়ি। আছে ৬২ টি টিন শেড রুম। ব্যাংকে ঋণ আছে দুই কোটি ২০ লাখ টাকা এবং স্ত্রীর নামে ঋণ আছে ১ কোটি ৭৫ লাখ টাকা।
এদিকে জাতীয় পার্টির নেতা জয়নাল আবেদীনের শিক্ষাগত যোগ্যতা আলিম পাশ, বার্ষিক আয় ৪ লাখ ৬০ হাজার টাকা। অস্থাবর সম্পত্তি নগদ ১৬ লাখ ৪০ হাজার টাকা ও ব্যাংকে জমা ৪ লাখ ৩০ হাজার টাকা। স্ত্রীর নামে আছে ৩৫ ভরি স্বর্ণ।
এছাড়াও এই আসনে জাকের পার্টির প্রার্থী হয়েছেন রিনা রহমান, সুপ্রিম পার্টির এসএম জাহাংগীর আলম, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির কাজী হাসিবুর রহমান, ইসলামিক ফ্রন্টের আমির হোসাইন, কংগ্রেসের রেহানা আক্তার এবং তরিকত ফেডারেশনের সৈয়দ আবু দাউদ হায়দার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here