এম এ মজিদ: একজন নিঃস্বার্থ সমাজকর্মীর জীবনালেখ্য

0
88
728×90 Banner

মোহাম্মদ সেলিম রেজা :  মজিদ – তিন অক্ষরের ছোট্ট একটি নাম। পূর্ণ নাম বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব এড. মোঃ আব্দুল মজিদ বা সংক্ষেপে এম এ মজিদ। অতি সাধারণ এই মানুষটির সাথে যে কেউ একটু ঘনিষ্ঠভাবে মিশতে ও কথা বললেই তিনি বুঝতে পারবেন মানুষটি কত বড় বিশাল হৃদয়ের অধিকারী। বর্তমান এ জগতে এম এ মজিদের মতো নিঃস্বার্থ, পরোপকারী এবং সত্যিকারের নিবেদিত ভালো ও বড় মনের মানুষ খুবই বিরল। তিনি নিজের পরিবার এবং সংসারের স্বার্থ নিয়ে কখনই ভাবেন না। তিনি সব সময়ই ভাবেন দেশ, দশ, সমাজ ও অসহায়দেরকে নিয়ে। তিনি যখন যেখানে গিয়েছেন এবং থেকেছেন সেখানেই তিনি কল্যাণকর এবং ব্যতিক্রমী কিছু না কিছু করে সেখানকার উন্নতি, কল্যাণ ও অসহায়দের স্বাবলম্বী হতে বিশেষ অবদান রেখেছেন।

এম এ মজিদ তার স্কুলজীবন শুরু করেন দিনাজপুর জিলা স্কুলের তৃতীয় শ্রেণি থেকে। ওয়ান টু না পড়েই তিনি অনশন শুরু করে তার অবস্হা মরণাপন্ন হয়ে উঠলে শেষাবধি দিনাজপুর জিলা স্কুলের তদানিন্তন প্রধান শিক্ষক কবি কাজী কাদের নেওয়াজ এসে তাকে ক্লাস থ্রি-তে ভর্তি করার প্রতিশ্রুতি দিলে ১৯৬০ সালে শিশু মজিদ মাত্র ৮ বছর বয়সে দিনাজপুর জিলা স্কুলের তৃতীয় শ্রেণিতে ভর্তি হন। স্কুলজীবনে এম এ মজিদ নিয়মিত পড়াশোনার পাশাপাশি তার স্কুলেই তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম শ্রেণিতে “কাবস্”, ষষ্ট ও সপ্তম শ্রেণিতে “বয়স্কাউট” এবং অষ্টম, নবম ও দশম শ্রেণিতে “জুনিয়র ক্যাডেট কোর হিসেবে প্রশিক্ষণ নেওয়াসহ নিয়মিতভাবে যা যা করণীয় তা তিনি করেছেন। স্কুলজীবনে তিনি তার মহল্লায় একটি চিত্ত বিনোদন, সমাজসেবা ও কল্যাণমূলক “সোনালী ক্লাব” নামের একটি ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।
১৯৬৯ সালে পাক-পাহাড়পুর জামে মসজিদ নির্মাণের জন্য তার পিতা কবি নূরুল আমিনের সাথে মাটি ভরাটের কাজ শুরু করলে সেটিকে বন্ধ করার জন্য সকল অপচেষ্টা ব্যর্থ হয়ে সে সময়ের দিনাজপুর জেলা শিক্ষা অফিসার সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট, দাঙ্গাহাঙ্গামা এবং তার দুই মেয়েকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ আনয়ন করে রংপুরে ব্রিগেডিয়ার মার্শাল ল কোর্টে কবি নূরুল আমিন এবং তার পুত্র এম এ মজিদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করে। সে সময় এম এ মজিদ রাঙ্গামাটি জেলায় তার মামা ইঞ্জি. এমদাদুর রহমানের বাসায় পালিয়ে থাকেন। পালিয়ে থাকাবস্হায় ১৯৭০ সালে তিনি রাঙ্গামাটি সরকারি কলেজে ইন্টারমেডিয়েটের দ্বিতীয় বর্ষে এক বছর অধ্যায়নকালীন সময় তারই ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় রিজার্ভ বাজারে তদানিন্তন জেলা প্রশাসকের অফিসের সামনে ৩০টি মাইক লাগিয়ে সারা রাতব্যাপী কয়েক হাজার মুসল্লীদের উপস্থিতিতে রাঙ্গামাটিতে সর্বপ্রথম প্রকাশ্যে ঈদে মিলাদুন্নবী এবং ওয়াজ মাহফিল উদযাপনে সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা এবং সক্রিয় ভূমিকা রাখেন। এছাড়াও এম এ মজিদ ১৯৬৯ সালে রাঙ্গামাটিতে ২১শে ফেব্রুয়ারি উদযাপন উপলক্ষে সর্বপ্রথম প্রভাতফেরি এবং পুষ্পস্তবক অর্পনের মাধ্যমে প্রকাশ্যে ২১শে ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠান প্রবর্তনে বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করেন। সে সময় রাঙ্গামাটিতে ২১শে ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠান উদযাপন করা সরকারিভাবে কঠোরভাবে নিষিদ্ধ ছিল।
১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে এম এ মজিদ ১৯৭১ সালের ২৬শে মার্চ থেকে ১৩ই এপ্রিল পর্যন্ত দিনাজপুরের বিভিন্ন প্রতিরোধযুদ্ধে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহন করেন। তিনি দিনাজপুর ইপিআর সেক্টর হেডকোয়ার্টার্স কুটিবাড়ি আক্রমণ করা থেকে শুরু করে দশ মাইল মোড়ে হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে সক্রিয়ভাবে প্রতিরোধযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। স্হানীয় একক দিকনির্দেশক এবং পথপ্রদর্শক হিসেবে ১৬ জন বেঙ্গল রেজিমেন্টের সেনাদের সাথে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণের মাধ্যমে দিনাজপুরে ডিফেন্স ফোর্সেস ইন্টেলিজেন্স (ডি.এফ.আই) এর একটি ঘাটিকে পরাজিত করা হয়েছিল। যেটি বর্তমানে রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির দিনাজপুর জেলা ইউনিট।
১৯৭১ সালের ১৩ এপ্রিল হানাদার বাহিনীসহ সৈয়দপুরের বিহারিরা ভারী যানবাহন ও ভারী অস্ত্রসস্ত্রে সজ্জিত হয়ে নির্বিচারে বাঙ্গালীদের হত্যা এবং বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ করতে করতে দিনাজপুর শহরে প্রবেশ করতে থাকলে এম এ মজিদ দুপুরে আহাররত অবস্থায় তার পিতামাতাসহ পরিবারের সকলকে নিয়ে এক কাপড়েই ভারতের পশ্চিমবঙ্গের রায়গঞ্জ জেলার সীমান্তবর্তী রাধিকাপুর রেলওয়ে স্টেশনের শরনার্থী শিবিরে আশ্রয় গ্রহন করেন। তখন পর্যন্ত কোনো মুক্তিযোদ্ধা ক্যাম্প এবং প্রশিক্ষণ শুরু না হলেও সেই রাধিকাপুর রেল স্টেশনের পরিত্যাক্ত কয়েকটি রুমে ইপিআর এর সাবেক হাবিলদার জর্জ দাস এর নেতৃত্বে এম এ মজিদসহ ২০/২২ জন তরুণ দেশপ্রেমিক মুক্তিযোদ্ধার প্রশিক্ষণ শুরু করেন। এই প্রশিক্ষণকালীন সময়ে ছোটখাটো কয়েকটি কমান্ডোযুদ্ধে অংশগ্রহণ করাসহ ১৯৭১ সালের ২৪ এপ্রিল সকাল থেকে শুরু করে দিনব্যাপী একটি ভয়ঙ্কর সম্মুখযুদ্ধে এম এ মজিদ সরাসরি অংশগ্রহণ করেন। সেই যুদ্ধে কয়েকজন ভারতীয় বিএসএফ সেনাসহ অনেকেই নিহত হন। শেষাবধি মুক্তিযোদ্ধারাসহ শরনার্থী শিবিরের সকলকেই পিছু হেটে ডালিমগাঁও রেলওয়ে স্টেশনে আশ্রয় নিতে বাধ্য হন।
ডালিমগাঁও রেলওয়ে স্টেশনের পাশেই বেঙ্গল রেজিমেন্টের সাবেক হাবিলদার এবং দিনাজপুর নিউ হোটেলের মালিক মোহাম্মদ আলীর নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধা ইয়ুথ ক্যাম্প গঠন করা হয়। সেই ইয়ুথ ক্যাম্পের প্রতিষ্ঠাকালীন প্রথম ব্যাচেই এম এ মজিদ প্রশিক্ষণ গ্রহন করেন। প্রথম ব্যাচে শ-খানিক প্রশিক্ষণার্থীদের এক মাস প্রশিক্ষণ প্রদানের পর তাদের মধ্য হতে যোগ্য, দক্ষ ও শারীরিকভাবে উপযুক্ত এমন ৩৩ জনকে উচ্চতর প্রশিক্ষণের জন্য মনোনীত করা হয়। প্রথম ব্যাচের সেই ৩৩ জনের মধ্যে এম এ মজিদ ছিলেন অন্যতম। তিনি ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বালুরঘাট জেলার কামারপাড়া উচ্চতর প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে প্রশিক্ষণ গ্রহন করে নিজের জীবনকে শতভাগ বাজি রেখে মহান মুক্তিযুদ্ধে অনেকগুলো সম্মুখযুদ্ধে অংশগ্রহণ করে বাংলাদেশের স্বাধীনতায় তিনি বিশেষ অবদান রাখেন।
স্বাধীনতার পর ২/৩ বছর স্নাতক পাশ মুক্তিযোদ্ধাদের বিসিএস হিসেবে ক্যাডার সার্ভিসে যোগদানের বিশেষ সুযোগ ছিল। সেই সুযোগ গ্রহনের জন্য তদানিন্তন শিক্ষামন্ত্রী কর্তৃক অফার পাওয়া সত্বেও এম এ মজিদ ম্যজিস্ট্রেট এর চাকরি গ্রহন না করে ম্যাজিস্ট্রেট তৈরির কারিগর হিসেবে ১৯৭৩ সালে মতিঝিল সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। বিদ্যালয়টিতে বয়স্কাউট, বিএনসিসি, স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী, বার্ষিক বনভোজন, এমনকি স্কুলে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের কোচিংক্লাস এবং শিক্ষার্থীদের স্কুলপাঠাগারের পুস্তক গ্রহণের কোনো কিছুই ছিল না। স্কুলটিতে এসব তিনি প্রবর্তন করে শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকদের কাছে শিক্ষকবান্ধব অতি প্রিয় শিক্ষক হিসেবে সুনাম অর্জন করলেও স্কুলের প্রধান শিক্ষকসহ বেশিরভাগ শিক্ষকদের অসহযোগিতার কারনে তিনি নানাভাবে নিগৃহীত হয়েছেন। কিন্তু কোনো অন্যায় ও অপশক্তির কাছে কখনোই থেমে যান নাই, বরং চ্যালেঞ্জকে মোকাবিলা করে অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে যাওয়াটাই এম এ মজিদের সহজাত প্রবৃত্তি।
এম এ মজিদ ১৯৭৬-১৯৭৭ শিক্ষাবর্ষে ঢাকা টিচার্স ট্রেনিং কলেজে (টিটিসি) বিএড কোর্সে ভর্তি হয়েছিলেন। এক বছরের বিএড কোর্সে অধ্যায়নকালীন সময়ের মধ্যেই তিনি দু’টি বনভোজন, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও নাটক মঞ্চস্হ করাসহ সকল শিক্ষার্থীর নাম ও ঠিকানা সম্বলিত একটি গাইডবুক প্রকাশ করেছিলেন। ঢাকা টিচার্স ট্রেনিং কলেজের উপরে সিমেন্ট দিয়ে বিরাটাকারের নামটি টিটিসি’র তদানিন্তন অধ্যক্ষ ড. করিমের অনুমতি গ্রহন করে এম এ মজিদ নিজ খরচেই লিখিয়েছিলেন।
এম এ মজিদ ১৯৭৮ সাল থেকে ১৯৮০ সাল পর্যন্ত সৌদি আরবের জেদ্দায় চাকরীকলীন সময়ে সেখানেও চিত্ত বিনোদনমূলক “কান্দারা রিক্রিয়েশন ক্লাব” নামের একটি ক্লাব প্রতিষ্ঠা করেছিলেন এবং তিনি ক্লাবটির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন। আমেরিকাসহ ৩৩টি জাতির মানুষ সেই প্রতিষ্ঠানে চাকরি করতেন। এম এ মজিদের নেতৃত্বে ক্লাবটি গঠন ও পরিচালনার কারণে তার সুনাম ও খ্যাতি ছড়িয়ে পড়ায় প্রতিহিংসায় বাংলাদেশের কয়েকজন তার বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ ও সব ধরণের নোংরা ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছিলেন। শেষাবধি এম এ মজিদেরই জয় হয়ে তিনি তার মালিক সৌদি প্রিন্স এর কাছে আরো অধিক সমাদৃত এবং প্রিয় হয়ে উঠেছিলেন এবং সেই প্রিন্স তার ক্লাবের সদস্য হয়েছিলেন।
এম এ মজিদ সৌদি আরব থেকে ফিরে ১৯৮২ সালে ঢাকার সভারের হেমায়েতপুরে নিজ অর্থ এবং ব্যাংক ঋণ নিয়ে একটি ২০ লুমের টেক্সটাইল মিল স্হাপন করেন। সরকারের ভুল নীতিমালা এবং জাপান ও ভারত থেকে প্রকাশ্য চোরাইপথে ট্যক্স বিহীন কাপড় প্রবেশের কারণে ৩৫ লক্ষ টাকা লোকসান দিয়ে মিলটি হাতছাড়া করে এম এ মজিদ নিজ জন্মস্থান দিনাজপুরে ফিরে আসেন।
দিনাজপুর শহরের পাক-পাহাড়পুর মহল্লায় কোনো জামে মসজিদ না থাকায় এম এ মজিদ মহল্লার সকলকে একত্রিত করে মসজিদ নির্মানের কাজ শুরু করেন। অর্থাভাবে নির্মান কাজ বন্ধ হয়ে গেলে শেষমেশ ১৯৮৯ সালে পাক-পাহাড়পুর জামে মসজিদ কমিটির সকল সদস্যসহ স্হানীয় আবাল-বৃদ্ধ-বনিতা সকলকে সঙ্গে নিয়ে নিজের জীবনকে শতভাগ বাজি রেখে কাঞ্চন ব্রিজ উদ্বোধনে যাত্রাকালে তদানিন্তন রাষ্ট্রপতি হুসাইন মুহাম্মদ এরশাদের গাড়ি থামিয়ে দুই লক্ষ টাকা আদায় করতে সমর্থ হয়েছিলেন। এছাড়াও বিশ্বের বিভিন্ন ৬৫টি ধর্মীয় দাতা সংস্হার সাথে যোগাযোগ করে পাক-পাহাড়পুর জামে মসজিদ নির্মাণে কয়েক লক্ষ টাকা যোগাড় করতেও তিনি সক্ষম হয়েছিলেন।
এম এ মজিদ লায়ন্স ক্লাবস্ ইন্টারন্যাশনাল এর দিনাজপুর লায়ন্স ক্লাবে যোগদান করার পর দিনাজপুর লায়ন্স ক্লাবের স্হায়ী প্রকল্প “দিনাজপুর শিশু নিকেতন” (বালিকা এতিমখানা) এর প্রভূত উন্নতি সাধন করেন। দিনাজপুর শিশু নিকেতনের নিবাসী মেয়েদের এসএসসি’র পর যতই মেধাবী ছাত্রীই হোক না কেন তাকে নাবালক বয়সেই বিবাহ অথবা অভিভাবকের কাছে ফেরৎ দিয়ে দেওয়া হতো। কিন্তু এম এ মজিদ শিশু নিকেতনের সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার পর এটির গঠনতন্ত্র সংশোধন করে এ প্রথার বিলোপসাধন করে পড়াশোনা নুন্যতম এইচএসসি পর্যন্ত উন্নীতসাধন করেন। এছাড়াও মেধাবীরা যতদূর পর্যন্ত লেখাপড়া করতে চাইলে তারও ব্যবস্হার প্রবর্তন করেন।
তিনি লায়ন্স জেলা ৩১৫ এ২ বাংলাদেশ এর বেশ কয়েকটি নতুন প্রথার প্রবর্তন করাতে সক্ষম হন। এ সবের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো, লায়ন্স ক্লাবস্ ইন্টারন্যাশনাল জেলা ৩১৫ এ২ বাংলাদেশ এর ডায়রেক্টরিতে মুক্তিযোদ্ধাদের নামের পূর্বে “বীর মুক্তিযোদ্ধা” লেখা শুরু করানোসহ লায়ন্স ক্লাবের সকল বীর মুক্তিযোদ্ধাগণকে জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিশেষ সম্মাননা পুরস্কার, ক্রেস্ট, পরিচয়পত্র প্রদান এবং উত্তরীয় পরিধান করানোর প্রথা প্রবর্তন করা হয়েছে এম এ মজিদ এর বলিষ্ঠ বক্তব্য এবং প্রস্তাবের কারণেই। বিশ্বে লায়ন্স এর জেলা প্রধানকে জেলা গভর্নর বলা হলেও কয়েকটি জেলার প্রধানকে বলা হয় “কাউন্সিল চেয়ারপারসন”। কাউন্সিল চেয়ারপারসন এর নাম পরিবর্তন করে তদস্হলে গভর্নর জেনারেল বা মাল্টিপল গভর্নর নামকরণের প্রস্তাবের সপক্ষে বিভিন্ন তুলনামূলক উদাহরণ ও যুক্তি বিশ্বের মধ্যে একমাত্র এম এ মজিদই তুলে ধরেছেন।
এম এ মজিদ ১৯৯৬ সালে দিনাজপুর শহরের কেন্দ্রবিন্দুতে অবস্হিত দিনাজপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব গ্রহনের সময় স্কুলে এ্যাসেমব্লি ও জাতীয় সঙ্গীত হতো না, শিক্ষার্থীদের কোনো ইউনিফরম ছিল না। স্কুটিতে বার্ষিক বনভোজন, ক্রীড়ানুষ্ঠান, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, বিতর্ক প্রতিযোগিতা, অভিভাবক দিবস পালিত হতো না। স্কুলপাঠাগারে কোনো বই এবং আলমারি ছিল না। স্কুলে বিজ্ঞান ল্যাবরেটরির ব্যবহার হতো না। ১৬ই ডিসেম্বর এবং ২৬শে মার্চ দিনাজপুর বড় ময়দানে অনুষ্ঠিত কুঁচকাওয়াজ ও ডেমোনেস্ট্রেশনে অংশগ্রহণ করানো হতো না। এক শিফটের শিক্ষক দিয়ে দুই শিফটের শিক্ষার্থীদের পাঠদানের ফলে স্কুলটির লেখাপড়ার কোনো মানই ছিল না। বৃত্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের কোনো ব্যবস্হাই ছিল না। এম এ মজিদ স্কুলটির দায়িত্ব গ্রহনের পর এ ধরনের ১৫১টি সমস্যা চিহ্নিত করে শিক্ষকদেরকে সঙ্গে নিয়েই সেগুলো শতভাগ সমাধান করেন। এছাড়াও অতিরিক্ত হিসেবে প্রভাতী শাখার জন্য পূর্ণ এক শিফটের শিক্ষক নিয়োগ করাসহ সরকারিভাবে নতুন ভবন নির্মাণ করান। স্কুলটির শতভাগ শিক্ষার্থীদের বাসায় গিয়ে তিনি তাদেরকে উৎসাহ ও উদ্বুদ্ধকরণের ফলে স্কুলে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতির হার বৃদ্ধি পাওয়াসহ স্কুলের শিক্ষার্থী সংখ্যা বৃদ্ধি পেতে থাকে। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক স্কুলটিতে আকস্মিক পরিদর্শনে এসে তিনি সন্তুষ্ট হয়ে দিনাজপুর হাই স্কুলটিকে বাংলাদেশের মধ্যে বেসরকারি সেরা মডেল স্কুল হিসেবে স্বীকৃত প্রদান করেন।
এম এ মজিদ বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের একজন আইনজীবী। সুপ্রিম কোর্টের ধারাবাহিক এবং ঔপনিবেশিক বিভিন্ন প্রথাগত অনিয়ম এবং অব্যপস্হাপনাগুলো তুলে ধরে সেগুলো অবসানের জন্য তিনি মুক্তিযুদ্ধের মতো আর এক যুদ্ধে জীবনবাজি রেখে তিনি লিখেই চলেছেন। তার লেখালেখি এবং বলাবলি কারণে “মাই লর্ড” বলে সম্বোধন করাসহ বিচারপতিগণকে মাথানত করার বৃটিশ ঔপনিবেশিক প্রথা বিলুপ্তির মতো অসাধারণ এবং অসম্ভব অনেক কিছুরই পরিবর্তন আসতে শুরু করেছে।
এম এ মজিদ দিনাজপুর জিলা স্কুলের ১৯৬৮ ব্যাচের ছাত্রদের নিয়েই “দিনাজপুর জিলা স্কুল ১৯৬৮ ব্যাচ কল্যাণ ট্রাস্ট” নামক অলাভজনক, অরাজনৈতিক এবং কল্যাণমূলক একটি সরকারি নিবন্ধিত সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক। প্রতিষ্ঠানটি অসহায়দের আত্মনির্ভরশীল হওয়ার জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। সেই সাথে মেধাবী কিন্তু দরিদ্র শিক্ষার্থীদের পড়াশোনা চালিয়ে নেওয়ার দায়িত্ব পালন করাসহ অসহায় বন্ধুদের চিকিৎসাসেবা ও আর্থিক সহযোগিতা নীরবেই প্রদান করে যাচ্ছেন। দিনাজপুর জিলা স্কুলের ১৭৫ বছর প্রতিষ্ঠার পর কোনো একটি ব্যাচ এসএসসি উত্তীর্ণের ৫০ বছর পূর্তি বা রজত জয়ন্তী অনুষ্ঠান উদযাপন করতে না পারলেও দিনাজপুর জিলা স্কুল ১৯৬৮ ব্যাচ কল্যাণ ট্রাস্ট সেটা এতটাই আড়ম্বর এবং জাঁকজমকপূর্ণভাবে করেছেন, যা আজাবধি কোনো ব্যাচই করতে পারেনি। দিনাজপুর জিলা স্কুলের ১৯৬৮ ব্যাচের রজতজয়ন্তী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের মধ্যে সরকারিভাবে চ্যাম্পিয়ান নৃত্যনাট্য দলের নৃত্যনাট্য উপস্হাপনা, দিনাজপুরের প্রকৃত গুণীজনদের সম্মাননা পদক প্রদানসহ একটি অসাধারণ ও তথ্যমূলক স্মরণীকা প্রকাশ করে সেগুলো রজতজয়ন্তী অনুষ্ঠানে উপস্থিত সকল অতিথি ও দর্শকসহ দিনাজপুরের সকল স্কুল, কলেজ এবং পাঠাগারে বিনামূল্যে উপহারস্বরূপ প্রদান করে এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্হাপন করে দিনাজপুরবাসীকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন।
বেওয়ারিশ লাশ দাফন-কাফনের সেবামূলক প্রতিষ্ঠান আঞ্জুমান মফিদুল ইসলাম এর দিনাজপুর জেলা শাখায় এম এ মজিদ যোগদানের পর প্রতিষ্ঠানটির নামে নিজস্ব জমি অনুদান হিসেবে সংগ্রহ করাসহ বেওয়ারিশ লাশ দাফনকাফনের জন্য অর্থ সংগ্রহ এবং প্রতিষ্ঠানটির প্রচার কার্যের জন্য তিনি দিনাজপুর শেখ জাহাঙ্গীর কবরস্থানে প্রতি বছর শবেবরাতের রাতে একটি স্টল খুলে তিনি সেখানে সমস্ত রাতব্যাপী চাঁদা সংগ্রহ ও প্রচার কার্য্য চালিয়ে থাকেন। দিনাজপুরে এ প্রথার প্রবর্তকও তিনি।
বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব এড. এম এ মজিদ দিনাজপুর উপশহরে গাওসুল আযম কলেজের স্বপ্নদ্রষ্টা এবং প্রতিষ্ঠাতা সহ-সভাপতি। এছাড়াও জাতীয় সাংবাদিক সোসাইটি এবং ওয়ার্ল্ড পীস এ্যান্ড হিউম্যান রাইটস সোসাইটির চেয়ারম্যান। তিনি জাতিসংঘের অধিভুক্ত আর্তমানবতার সেবামূলক বিশ্বের সর্ববৃহৎ সংগঠন লায়ন্স ক্লাবস্ ইন্টারন্যাশনাল জেলা ৩১৫ এ২ বাংলাদেশ এর রিজিয়ন চেয়ারপারসন- হেডকোয়ার্টার্স হিসেবে দায়িত্বরত। এ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল – বাংলাদেশ গ্রুপ ২১ এর সভাপতি। গণমানুষের পাঠক নন্দিত সাপ্তাহিক ফলোআপ পত্রিকার তিনি প্রকাশক ও সম্পাদক। পত্রিকাটি সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশে এতটাই নির্ভীক যে, এ যাবৎ সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশ করায় তার বিরুদ্ধে শতাধিক মামলা দায়ের করা হয়েছে। কিন্তু তাতেও তিনি বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনে থেমে যাননি। তিনি দৈনিক উত্তর বাংলা পত্রিকার প্রথম বার্তা সম্পাদক। তিনি দৈনিক মুক্তখবর পত্রিকার সুপ্রিম কোর্টের বিশেষ প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছেন। এছাড়াও আরো অনেকগুলো সেবামূলক সংগঠনের সাথে তিনি ওতোপ্রোতভাবে সম্পৃক্ত রয়েছেন। এম এ মজিদ পাক-পাহাড়পুর জামে মসজিদের প্রতিষ্ঠাতা যুগ্ম সম্পাদক এবং সেক্রেটারি হিসেবে দুই যুগেরও অধিক সময় ধরে অত্যন্ত সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। এখনও তিনি পাক-পাহাড়পুর জামে মসজিদের সম্মানিত উপদেষ্টা হিসেবে উপদেষ্টা পরিষদে রয়েছেন।
এম এ মজিদ চার দশকেরও অধিক সময় ধরে বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির আজীবন সদস্য। তিনি কয়েক দফা দিনাজপুর রেডক্রিসেন্ট হাসপাতালের সব চাইতে কর্মতৎপর নির্বাহী সদস্য ছিলেন। হাসপাতালের সেক্রেটারি হিসেবে শফিউর রহমান ও একে আজাদ এবং চেয়ারম্যান সিদ্দিক গজনবীর সময়ে এম এ মজিদ নির্বাহী সদস্য হিসেবে হাসপাতালটির উন্নতি সাধনে হাসপাতালের পক্ষে নিজ অর্থে রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির কেন্দ্রীয় চেয়ারম্যানের সাথে অসংখ্যবার যোগাযোগ করে হাসপাতালটির এ্যাম্বুলেন্সসহ বিভিন্ন টেস্টিং মেশিন, যন্ত্রপাতি এবং অর্থ সংগ্রহে বিশিষ্ট ভূমিকা পালন এবং অবদান রেখেছেন। বিশেষ করে দিনাজপুর রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির দিনাজপুর জেলা ইউনিট এবং দিনাজপুর রেডক্রিসেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান সিদ্দিক গজনবী এবং সেক্রেটারি বাবুল চৌধুরীর সময়ে নির্বাহী সদস্য হিসেবে এম এ মজিদের ভূমিকা এবং কর্মতৎপরতা এতটাই সক্রিয় ও বলিষ্ঠ ছিল যে, স্হগিত হয়ে যাওয়া হাসপাতালটি পুনরায় পূর্ণোদ্যমে চালু করতে সক্ষম হন। একই সয়য়ে স্হানীয় সনাতন ধর্মালম্বীদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হাসপাতালের সম্মুখে বন্ধ এবং পতিত হয়ে থাকা দুই শতক জমিসহ মন্দিরটি শত বাঁধা ও প্রতিবন্ধকতাকে উপেক্ষা করে মন্দিরটি মেরামত ও সংস্কার করে কেন্দ্রীয় চেয়ারম্যান এবং সরকারের অনুমতি গ্রহন করে সনাতন ধর্মাবলম্বী মন্দির কমিটির বরাবরে রেজিস্ট্রী দলিলমূলে বিনামূল্যে হস্তান্তরে চ্যালেঞ্জিং ভূমিকা এবং অবদান রাখেন।
এম এ মজিদ জীবনে যেখানেই গিয়েছেন এবং যেটা ভালো মনে করেছেন সেটা তিনি করেই ছেড়েছেন। তার জীবনের দু’টি শেষ ইচ্ছা, বাসনা এবং স্বপ্ন রয়েছে। সে দু’টি বাসনা পূরণ করতে পারলে তার আর কোনো চাওয়া ও পাওয়ার কিছুই থাকবে না বলে তিনি মনে করেন। প্রথম বাসনাটি হলো; শুক্রবার জুম্মার নামাজে পাক-পাহাড়পর জামে মসজিদটিতে মুসল্লিগণের উপস্থিতি বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে স্হান সংকুলান না হওয়ায় মসজিদের দোতলা নির্মাণ করা এখন সময়ের দাবি। সে কারণে মসজিদটির মুসল্লি, এলাকাবাসী এবং দেশি-বিদেশি সর্বস্তরের দানবীর ব্যক্তি এবং প্রতিষ্ঠানের সাথে পূর্বের ন্যায় যোগাযোগের মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহ করে মসজিদটির দোতলা নির্মাণ কাজ শুরুর ব্যাপারে তিনি বিশেষ গুরুত্ব সহকারে ভাবছেন। তার দ্বিতীয় বাসনাটি হলো দিনাজপুরে একটি প্রবীণ নিবাস ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করা। এ কাজটি করতে তিনি অনেকটাই এগিয়ে গিয়েছিলেন। প্রবীণ নিবাস নির্মাণের প্রথম সভা ২০১৯ সালের জানুয়ারি মাসে একটি আলোচনা ও মতবিনিময় সভার আয়োজন করেছিলেন ঢাকার ফার্মগেটস্হ কৃষি অধিদপ্তরের কৃষি ইনিস্টিটিউট অব বাংলাদেশ বা কে.আই.বি এর অডিটোরিয়ামে। সেই সভায় দিনাজপুরের শ’খানেক এমন সব গুণী, জ্ঞানী এবং সেরাজনদের উপস্থিত করানো হয়েছিল যা রীতিমতো অবাক এবং চমক লাগানোর মতো ঘটনা। সেই সভায় ২৮ সদস্য বিশিষ্ট একটি স্টিয়ারিং কমিটিও গঠন করা হয়েছে, যার সদস্য সচিব এম এ মজিদ। সেই কমিটিতে সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের দু’জন অবসরপ্রাপ্ত ভাইস চ্যাঞ্চেলরসহ সরকারি সচিব, প্রধান প্রকৌশলী, দু’জন মেজর জেনারেল, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক, সাংস্কৃতিক ও সমাজসেবক ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। পরবর্তীতে এই কমিটির ৪টি সাধারণ সভা এবং করোনার কালীন সময়ে ৩টি ভার্চুয়াল সভা অনুষ্ঠিত হওয়াসহ একটি ব্যাংক একাউন্টও খোলা হয়েছে। কিন্তু মহামারি করোনাভাইরাস এবং খুব নিকটতম কয়েকজন বন্ধুর নোংরা ষড়যন্ত্রের কারনে কাজটি বর্তমানে স্হবির হয়ে রয়েছে। এ কাজটি আবারো শুরু এবং শেষ করাতে চান এম এ মজিদ।
বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব এড. এম এ মজিদ এক পুত্রসন্তান ডক্টর আব্দুল কাদের সাগর এর জনক। সাগর স্কুলজীবনে দার্জিলিংয়ে পঞ্চম শ্রেণি অধ্যায়ণের পর দিনাজপুর জিলা স্কুল থেকে এসএসসি, দিনাজপুর সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি এবং বুয়েট থেকে ট্রিপল ই বিষয়ে অত্যন্ত কৃতিত্বের সাথে লেখাপড়া সম্পন্ন করেন। তিনি বিশ্বের সেরা র‍্যাঙ্কিং সরকারি ইউনিভার্সিটি অব উইসকনসিন-মেডিসন থেকে এ গ্রেডের স্কলারশিপ নিয়ে সেখান থেকেই এমএস সম্পন্ন করে বায়ো-ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ে অত্যন্ত কৃতিত্বের সাথে পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন।
ডক্টর ইঞ্জি. আব্দুল কাদের সাগর বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল সরকারের অধীনে বিশ্বের সর্ববৃহৎ চিকিৎসা গবেষণাগার ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হেলথ (এন.আই.এইচ) এর ক্যান্সার ইনিস্টিটিউট এর সাইন্টিস্ট (বৈজ্ঞানিক) হিসেবে গবেষণায় রত রয়েছেন। ড. আব্দুল কাদের সাগর শুধু বাংলাদেশেরই গর্ব, অহংকার এবং গৌরব নন, তিনি সমগ্র বিশ্বের গর্ব। তিনি মানবকল্যাণে আলোকবর্তিকা ছড়ানোর গবেষণায় নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।
দিনাজপুরে একটি জামে মসজিদ যেদিন উদ্বোধন করা হয়েছিল সেদিনই কবি নূরুল আমিনের স্ত্রী হাফিজা বেগমের কোলজুড়ে এম এ মজিদ এ ধরণীতে আবির্ভূত হয়েছিলেন। মসজিদের উদ্বোধনী জুম্মার নামাজের সালাম ফেরার সাথে সাথেই খবর এলো, কবি মো: নূরুল আমিনের স্ত্রী দিনাজপুর সদর হাসপাতালে এক পুত্র সন্তানের জন্ম দিয়েছেন। এ কথা শ্রবণের পর কবি নূরুল আমিন দাঁড়িয়ে সকলের উদ্দেশ্যে বললেন, সদ্য ভূমিষ্ট আমার সন্তানের নাম আপনারা রেখে দিবেন এবং সে যেন সত্যিকারের মানুষের মতো মানুষ হতে পারে সেজন্য আপনারা সকলেই তার জন্য দোয়া করবেন। সে সময় মসজিদটির উদ্বোধনী জুম্মার নামাজে বিশিষ্ট ও গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। মসজিদটি উদ্বোধন করা হয়েছিল শুক্রবার এবং দিনটি ছিল বড়পীর হয়রত আব্দুল কাদের জিলানীর (রাঃ) এর জন্ম ও মৃত্যু দিবসে। মসজিদটির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি তার আশেপাশের কয়েকজনের সাথে আলাপ করে আব্দুল কাদের জিলানী (রাঃ) এর নামের ‘আব্দুল’ এবং মসজিদের সাথে মিল রেখে আল্লাহর একটি নাম ‘মজিদ’ অর্থাৎ “আব্দুল মজিদ” নামকরণ করেন এবং জুম্মার নামাজের মোনাজাতে আব্দুল মজিদ এর জন্য বিশেষ দোয়া করা হয়েছিল।
এম এ মজিদের পিতা কবি মোঃ নূরুল আমিন একজন বিশিষ্ট কবি, সাহিত্যিক, সাংবাদিক এবং বিদ্যোৎসাহী হিসেবে রাষ্ট্রীয়ভাবে প্রেসিডেন্ট পুরস্কারপ্রাপ্ত। তিনি দিনাজপুরের কয়েক ডজন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা। তিনি দিনাজপুর প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন। এছাড়াও তার প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠানগুলো হলো; পাক-পাহাড়পুর ফোরকানিয়া মাদ্রাসা, দিনাজপুর বয়স্ক শিক্ষা কেন্দ্র, মহিলা সেলাই প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, তাঁত প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, মাটির খেলনা তৈরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, নেওয়াজ সাহিত্য মজলিশ, কলেজ পড়ুয়াদের জন্য আপ-টু-ডেট ক্লাব, স্কুল পড়ুয়াদের জন্য সোনালী ক্লাব, আব্দুর রহমান স্মৃতি পাঠাগার, কে এন এ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এছাড়াও তিনি আরো অনেকগুলো প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা। তিনি সর্বশেষ পাক-পাহাড়পুর জামে মসজিদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হিসেবে মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত যথাযথভাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি ২০০০ সালের ২২ নভেম্বর সকাল ৮ টায় বার্ধক্যজনিত কারনে ৮৭ বছর বয়সে সকলকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে চলে যান।
লেখক: মোহাম্মদ সেলিম রেজা, হিউম্যানিস্ট সোসাইটির চেয়ারম্যান এবং মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক ও কলামিস্ট।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here