করোনা-গবেষণা ও কল্পনা (পূর্বে প্রকাশিতের পর)-২

0
92
728×90 Banner

শেখ আবদুস ছালাম : কেনো এ ভাইরাস?
মহাশক্তিকে অস্বীকার করে জগতবাসী ক্ষমতাকেন্দ্রিক সংস্কৃতি গড়ে তুলেছে। এ সংস্কৃতিতে পরিচ্ছন্নতা নেই। মানবজীবনের ক্ষতিকর বিষয়গুলোকে অবাধে সম্ভোগ করা হচ্ছে। পরিবারগুলোকে বিচ্ছিন্ন করে উন্নত জীবনের ব্যবস্থাপনার নামে ঘৃণ্য বেহায়পনা ও অশ্লীলতা চলছে। মূল্যবোধকে ভ‚লুন্ঠিত করে নির্লজ্জ বেহায়াপনাকে বিনোদনন করে নিয়েছে। নারীর প্রতি অসম্মান, অসৌজন্যতা বেড়ে চলেছে। নারী মুক্তির নাম করে নারীকে পণ্য বানিয়েছে। মর্যাদার নামে নারীর প্রতি অবিচারের মাত্রা বাড়িয়ে দিয়েছে। ধর্মের সীমারেখা লংঘন করে ধর্মকে হাস্যরসের খোরাকে পরিণত করার অপপ্রয়াসে লিপ্ত হয়েছে। মানবতাকে ধুলিসাৎ করে, ন্যায় বিচারকে নির্বাসনে পাঠিয়েছে। ক্ষমতার মোহে মানবজাতিকে খন্ড খন্ড গুচ্ছে বিভক্ত করেছে। এমন অজ¯্র অবাঞ্চিত জীবনচারণে মেতে ওঠেছে ক্ষমতা ও অর্থের লোভে।
ম্যালথাসের মতবাদ অনুযায়ী, ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার চাপ ধরিত্রী বহন করে না। জনসংখ্যা জ্যামিতিক হরে বৃদ্ধি পেলে তার প্রভাব পরিবেশে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করে। যার ফলশ্রæতিতে প্রাকৃতিক দুর্যোগ, মহামারী দেখা দেয়। এতে জনজীবন ক্ষতিগ্রস্থ হয় এবং দুর্যোগ ও মহামরীর কবলে পড়ে অসংখ্য মানুষ প্রাণ হারায়। ফলে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা পায়। ম্যালথাস এ ব্যবস্থাকে প্রকৃতির প্রতিশোধ হিসেবে চিহ্নিত করেছেন। ক্রমবর্ধমান প্রযুক্তির উন্নয়নে আমরা ইতোমধ্যে লক্ষ করেছি বৈশ্বিক পরিবেশ হুমকীর সম্মুখীন। গ্রিনহাউস এফেক্ট, জলবায়ুর বিরূপ প্রতিক্রিয়া বিষয়গুলো নিয়ে পরিবেশ বিজ্ঞান গবেষকদের মাথা ব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। একদিকে পারমানবিক অস্ত্র উৎপাদন অন্যদিকে প্রযুক্তি বিকাশে নতুন নতুন উদ্ভাবনে বিশ্ব পরিবেশ প্রসব বেদনায় র্জজরিত। পানি দূষণ, বায়ু দূষণ ও শব্দ দূষণের মাত্রা বেড়েই চলেছে। এতো সব দূষণ কর্মকান্ডের কারণে পরিবেশের নাভিশ্বাস হয়ে পরেছে। অতিরিক্ত জনসংখ্যার জৈবিক ও মানসিক চাহিদা পূরণে প্রযুক্তি সহযোগিতার হাত প্রসারিত করেই চলেছে। বাতাসে যে পরিমাণ কার্বণ পাওয়া যচ্ছে তা সর্বকালের রেকর্ড অতিক্রম করে ফেলেছে। তার সাথে মানুষের জীবনমান উন্নত হয়ে জীবনের গতি বাড়িয়ে অনন্ত বাসনা সৃষ্টি করে চলেছে। চাহিদার খতিয়ানে প্রতিনিয়ত যোগ হেচ্ছে নতুন নতুন আকাঙ্খা। আকাঙ্খার বশীভ‚ত মানবসন্তান অনেকটা বেসামাল দিশেহারার মতো। পরিস্থিতি যখন এমন হয় তখনই ম্যালথাসের “জনসংখ্যা তত্ত¡” দরজায় কড়া নাড়ে। বিশ্ব আজকে ম্যালথাসের জনসংখ্যা তত্তে¡র মুখোমুখি।
আমরা যদি ম্যালথাসীয় তত্ত¡কে বিবেচনায় আনি তাহলে আরও পেছনে ফিরে ধর্ম তত্ত¡ নিয়ে সামান্য আলোকপাত করতে পারি। ধর্মতাত্তি¡কদের মতে, সকল দুর্যোগ ও মহামারি মানুষের কৃতকর্মের ফল। মারামারি, হানাহানি, সন্ত্রাস, যুদ্ধ সবই মনুষ্য সৃষ্টি দুর্যোগ। প্রাকৃতিক দুযোগের কারণে অঞ্চল বিশেষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। যেমন ভ‚-কম্পন, টর্নেডো, সিডর, বন্যা ইত্যাদি। ধর্মমতে বিশেষ করে ইসলাম ধর্মে মহান আল্লাহ্ পবিত্র কোরআনে ও নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও মহামারির বিষয়ে মানুষকে সতর্ক করেছেন এবং ওই সব দুর্যোগ উত্তোরণের উপায় সবিস্তারে বিবৃত করেছেন। মানবজীবনের সবগুলো দিক সম্পর্কেই ইসলাম ধর্ম মানুষকে সচেতন করেছে। ধর্মতাত্তি¡কগণও বিভিন্নভাবে ওই সব তথ্যাবলী সাধারণের গোচরীভ‚ত করার প্রয়াসে নিরত আছেন। তারপরেও বিপত্তি ঘটছে কেনো? উত্তরে বলা যায় ধর্মের ব্যবস্থাপত্র পুরোপুরি মানা হচ্ছে না। মহান আল্লাহ্ পবিত্র কোরআনে ঘেষণা করেন, “আমি সীমা লংঘন কারিকে অপছন্দ করি”। এমতাবস্থায় আমাদের চিন্তা করতে হবে আমরা কোন কোন ক্ষেত্রে ও বিষয়ে সীমা লংঘন করে চলেছি। খাওয়া-দাওয়া, চলাফেরা, আচার-আচরণে দৈনন্দিন কতোটুকু সীমার মধ্যে থাকতে পারছি। ব্যক্তি জীবন থেকে শুরু করে আন্তর্জাতিক জীবন পর্যন্ত আমরা কতোটুকু সীমার ভেতর থাকতে পারছি। শ্লীলতা-অশ্লীলতার কথা যদি বলা হয় তা হলে আমরা বর্তমানে কোন অবস্থায় আছি তা সহজেই অনুমেয়।
মহান আল্লাহ্পবিত্র কোরআনে ঘোষণা করেন, “তোমরা অশ্লীলতার ধারে কাছেও যেও না”। প্রশ্ন আসে আমাদের জীবনাচারণে কতোটুক শ্লীলতায় আমরা বর্তমানে রক্ষা করতেছি। এমন হাজারো প্রশ্ন আসে। ভোগবাদী সমাজজীবনে সবাই একধরনের অদৃশ্য মোহাচ্ছন্নতায় ডুবে আছি। এ অবস্থা কি সীমালংঘনের আওতায় পড়ে না? জাগতিক বিষয়ের প্রতি মানুষ প্রচন্ড আকর্ষণে অনেক সময় মানবতাবোধ, ন্যায়-অন্যায়বোধ পর্যন্ত ভুলে যায়। বিজ্ঞান-প্রযুক্তির উন্নয়নে কর্মফল দিবসকে অস্বীকার করে যার যা মনে চায় সে সে ভাবেই চলার চিন্তায় একমুখী হয়ে ওঠে। নীতি-নৈতিকতা বিসর্জন দিতেও কুন্ঠা বোধ করে না। জীবনেকে ভোগের বস্তু ছাড়া অন্য কিছু ভাবতে শিখছি না। মমত্ববোধ লৌকিকতায় পরিণত হয়েছে। মানবতা ও মমত্ববোধ শব্দচয়নে বন্দি হয়ে ছটফট করছে। আবেগ-অনুভ‚তির কথা বললেই বাস্তবতার যুক্তিকে উপস্থিত করে। দান-অনুদান লোক দেখানোর বিষয়ে পরিণত হয়েছে বা করেছে। অন্যায়-অবৈধ টাকার জমজমাট বাজার হতে দান-খয়রাত কেনা-বেচা হচ্ছে। তারপরও যদি ভাবি সীমা লংঘন হচ্ছে না তা হলে তো অন্ধকে হাতি দেখানোর গল্প বলেই মনে হবে।( চলবে )

লেখক: শেখ আবদুস ছালাম ( প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক)
টঙ্গীস্থ শহীদ স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয়,গাজীপুর মহানগর।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here