ঝিনাইগাতী আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক হচ্ছেন শান্তি কমিটির সদস্যের ভাতিজা !

0
49
728×90 Banner

শেরপুর প্রতিনিধি : শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হচ্ছেন ৭১এ পাক হানাদার বাহিনীর সহায়তাকারী শান্তি কমিটির সদস্যের ভাতিজা। ইতিমধ্যেই আওয়ামী লীগের ময়মনসিংহ বিভাগীয় সমন্ময় টীম সাধারণ সম্পাদক হিসেবে মিজানুর রহমান মিলনকে বাছাই করেছে বলে একটি নির্ভরযোগ্য সুত্রে জানা গেছে। মিজানুর রহমান মিলন ঝিনাইগাতী উপজেলার বিলাসপুর গ্রামের ৭১ এ পিচ কমিটির সদস্য রমজান আলী চেয়ারম্যানের ছোট ভাইয়ের ছেলে। ওই মিলনের পরিবারের প্রায় সকলেই মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী ডেমোক্র্যাটদের পরিচিত। মিলনের সহোদর ছোট ভাই জিয়াউর রহমান রিমন জাতীয়তাবাদী যুবদলের সাধারণ সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে পরাজিত হয়েছেন। মিলনের জ্যাঠাতো ভাই শফিকুল ইসলাম কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ইসলামী ছাত্র শিবিরের নেতা ছিলেন। শফিকুল ২০১৯ সালের বিস্ফোরক মামলার আসামী। মিলনের আরেক জ্যাঠাতো ভাই সাইফুল ইসলাম সেজু ঝিনাইগাতী উপজেলা বিএনপির নেতা। আরেক ভাই রেজাউল করিম রেজু বিএনপি নেতা সহিদ উদ্দিন এ্যানির বন্ধু একসাথে ঢাকায় ব্যবসা করেন ও বিএনপি নেতা। ২০০১ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মিলনদের বাড়ীতে মিটিং করে বিএনপির এমপি প্রার্থী মাহমুদুল হক রুবেল নির্বাচনে জেতার নীলনকশা তৈরী করেন। ইতিপূর্বে স্থানীয় রাজনীতিতে ছায়াও দেখা না যাওয়া মিলন ঢাকায় ব্যবসা করেন। মিলন এখনো আওয়ামী লীগে যোগদান করেনি বা তার প্রাথমিক সদস্য পদও নেই। এখানে আওয়ামী লীগের গঠন্তন্ত্রের ৫-এর ২ ধারা এবং ৫৮-এর গ ধারা লঙ্ঘিত হয়েছে।
অপরদিকে, ময়মনসিংহ বিভাগীয় সমন্ময় টীম ঝিনাইগাতী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে বাছাই করেছেন তিনি হলেন ঝিনাইগাতী মহিলা কলেজের শরীরচর্চা শিক্ষক বিশ্বজিত রায়। প্রতিদিন কলেজ শুরু হয় এসেম্বলি ক্লাশের মাধ্যমে। আর এসেম্বলি করান শরীরচর্চা শিক্ষক। এ অবস্থায় দলের প্রধান হয়ে কিভাবে সকাল ১০ টায় এসেম্বলি ক্লাশ শেষ করে দলের কাজ চালাবেন। এই ব্যাপারে সাধারণ মানুষের মনে প্রশ্নের উদ্রেক হয়েছে। আর তিনি যদি দলের কাজ চালান তাহলে ওই কলেজের সহ শিক্ষাক্রম ব্যাহত হবে। এ অবস্থায় তাকে একটা পদ বেছে নিতে হবে। হয় চাকরী নতুবা দল। এখন বিশ্বজিৎ কোনটা রাখেন এটাই দেখার বিষয়।
এছাড়া বিশ্বজিৎ ও তার বাবা অনন্ত কুমার রায় মিলে ঘোষগাও গ্রামের জনৈক এক বিধবা কমলা রানীর ১৭ একর ওয়ারীশান সম্পত্তি দখল করে ওই পরিবারটিকে পথে বসিয়েছেন বলে কমলা রাণীর পুত্র বিকাশ চন্দ্র বর্মণ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও মাননীয় সভানেত্রীর বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন তাদের জমি অধিগ্রহণ জন্য।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বিশ্বজিৎ রায় সাংবাদিকদের কোন প্রশ্নের উত্তর দিবেন না বলে জানান।
অপরজন মিজানুর রহমান মিলনের সাথে মোবাইলে বারবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি মোবাইল রিসিভ করেননি।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here