ট্রাম্প বিশ্বের জন্য নিরাপদ, আবার আসুন

0
83
728×90 Banner

শতাব্দী আলম : ‘অস্ত্র কোম্পানীগুলোকে খুশি করতেই যুদ্ধ বাধায় পেন্টাগন। যুদ্ধ লাগিয়ে অস্ত্র কোম্পানীগুলোকে স্বাস্থবান রাখা তাদের কাজ।’ একথা বলেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড জে ট্রাম্প। আমেরিকার বিশ্ব শাসনের অনেক কৌশলের অন্যতম পেন্টাগন কিভাবে বিশ্বে যুদ্ধ লাগায় তার সরল স্বীকারোক্তি দিলেন ট্রাম্প। খোদ যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট। তিনি এ কথা বলতেই পারেন। কারন তিনি তার ৪ বছরের শাসনামলে একটি যুদ্ধও লাগাতে দেননি। আমি গত নির্বাচনের পূর্বে ট্রাম্পের কথাবার্ত শুনেই বলেছিলাম বিশে^র জন্য হিলারির চাইতে ট্রাম্প বেশী নিরাপদ। মানব সভ্যতাকে নিরাপদ রাখতে অন্তত আরো ৪ বছর তারই যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট থাকা বিশ্বের জন্য মঙ্গলজনক।
ট্রাম্পের আমেরিকা ফাষ্ট নীতি সত্যিকার অর্থেই একজন দেশপ্রেমিকের কথা। যুক্তরাষ্ট্রের সাম্প্রতিক পূর্ববর্তী প্রেসিডেন্টগন যে সঠিকভাবে নিজ দেশের স্বাস্থ, শিক্ষা, অর্থনীতি যে সুরক্ষিত করতে পারেননি। করোনা মহামারি কোভিট-১৯ ভাইরাস তা আমেরিকার মানুষকে চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়েছে। রাতারাতি সর্বোচ্চ পর্যায়ের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করা সম্ভব না। অথবা প্রেসিডেন্টের এক মেয়াদেও না। যুক্তরাষ্ট্রও তা পারেনি। যদি পূর্ব থেকেই যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিটি নাগরিকের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতের ব্যবস্থা থাকতো তাহলে অন্তত কোভিডে এত প্রাণহানী হতো না। এর দায়ভার ট্রাম্পের না। পূর্ববর্তি প্রেসিডেন্টদের। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পই নিজ দেশের সব রকম সেবাই প্রথম নিশ্চিত করার চেষ্টা করছেন। আমেরিকা ফাষ্ট। তারপর অন্য দেশ, বন্ধু বা বিশ্ব।
ডোনাল্ড ট্রাম্প রাজনীতির জটিল চক্রে বেড়ে উঠেননি। তিনি ব্যবসায়ী। তার কথাবার্তায় জটিলতাও কম। যুক্তরাষ্ট্রের সরকার ব্যবস্থাই সব কিছু নির্ধারণ করে দেয়। একজন প্রেসিডেন্ট চাইলেই নিজের মত প্রকাশ করতে পারেন না। কিন্তু প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে দেখা যায় তিনি নিজে যা ভাল মনে করেন তাই বলেন। এমনকি তার এই গোয়র্তমির কারনে উপদেষ্টা, মন্ত্রী পরিষদ সদস্য ও উর্দ্ধতন কর্মকর্তা অনেকেই ছেড়ে গেছেন। ট্রাম্প যেহেতু রাজনীতি থেকে আসেন নি। তাই তিনি অবলিলায় এভাবে বলতে পারেন।
যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচন পদ্ধতি বেশ জটিল। পপুলার ভোট বেশী হলেও একজন প্রেসিডেন্ট হতে পারেন না। অঞ্চলভিত্তিক ইলেকটোরাল ভোটিং পদ্ধতীতে বিজয়ী নির্ধারণ হয়। গত নির্বাচনে ট্রাম্প পপুলার ভোট কম পেলেও সেই পদ্ধতির কারনে বিজয়ী হন। এবারও বাইডেনের পপুলার ভোট বেশী। তবে ইলেকটোরাল ভোটে বিজয়ী হয়ে যাবেন এখনো তিনি নিশ্চিত সে রকম কোন আভাস পাননি। বরং ইলেকটোরাল ভোটে ট্রাম্প সুবিধা করবেন বলেই নির্বাচন বিশেষজ্ঞদের অভিমত। একথা যেন সত্যি হয়। বিশ্বকে যুদ্ধমুক্ত ও নিরাপদ রাখতে ট্রাম্প পুনরায় যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলে আমরা স্বাগত জানাবো। বিশ্বে শান্তি বজায় থাকুক। জয় ট্রাম্প।

লেখক : সাংবাদিক ও সাহিত্যিক

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here