দাঁড়াও একজন পুরুষ মানুষ ডেকে আনি

0
60
728×90 Banner

প্রদীপ অধিকারী: দাঁড়াও, দাঁড়াও একজন পুরুষ মানুষ ডেকে আনি। একজন স্বামীর উক্তি, যখন স্ত্রী ঘরে সাপ দেখে চিৎকার করে স্বামীকে ডাকছে, তখন স্বামী দৌড়াচ্ছে পুরুষ মানুষ ডাকতে। এটি একটি প্রবাদ একটি অপবাদ। আমরাও পুরুষ মানুষ ডেকে এনেছি। আমাদের ঘরে বিদ্যুতের প্রিপেইড মিটার বসানোর জন্য চীনের HEXING কোম্পানী থেকে পুরুষ মানুষ ডেকে এনেছি। আমার প্রিপেইড কার্ডে ভুলবসত অন্য একজনের নাম, সংশোধন করতে গেলাম, তথ্য চীন পাঠাতে হবে, সময় লাগবে। এমনি বাস্তবতায় আমরা পুরুষ মানুষ ডাকি, ঘরে সাপ বেরুলেও ডাকি, ব্যাঙ বেরুলেও ডাকি, তেলাপোকা বেরুলেও ডাকি, মোবাইল ফোনে কথা বলার জন্যও ডাকি। দাড়ি কাটার ব্লেড এমনকি কাঁথা সেলানোর সুই-এর জন্যও পুরুষ মানুষ ডাকতে হয়। কারণ আমরা ক্লিব।
ইলেক্ট্রিক প্রিপেইড মিটারে ব্যবহৃত মূখ্য প্রযুক্তিগুলো হচ্ছে ( Radio Frequency Identification) RFID রিডার, যার প্রথম ব্যবহার হয়েছে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে, নিজেদের যুদ্ধ বিমান চেনার জন্য। বিল হিসেব, মিটার অফ/অন করা, তথ্য আদান-প্রদান-প্রক্রিয়াজাতকরণের জন্য মাইক্রোকন্ট্রোলার, বিদ্যুৎ ব্যয় হিসেবের জন্য ডিজিটাল মিটার, এবং স্মার্ট গ্রিডের সাথে যোগাযোগের জন্য ওয়ারলেস গেটওয়ে ইত্যাদি। প্রিপেইড মিটার কার্ডে ক্লায়েন্ট এবং সার্ভারের সাথে যোগাযোগ রক্ষার জন্য ইন্টারনেট প্রোটোকল ভিত্তিক CPU, স্থায়ী স্মৃতি বা ROM, রিচার্জসংক্রান্ত কাজের জন্য প্রোগ্রামেবল স্মৃতি বা EEPROM ইত্যদি। ইতিহাস বিশ্লেষণে প্রযুক্তিগুলো প্রায় অর্ধশতাব্দী প্রাচীন অর্থাৎ আমাদের স্বাধীনতা পূর্ববর্তী। স্বাধীনতা আমাদের অনেক কিছু দিয়েছে, দেয়নি জ্ঞান-বিজ্ঞান, দেয়নি প্রযুক্তি। প্রবল ভাববাদ চর্চা-বিকাশ-বিস্ফোরণে বিক্ষত আমাদের মগজের পুরুষত্ব। সাংস্কৃতিক প্রোটিনের আবরণে কাব্য-নাটক-সংগীত-নৃত্য-চিত্র ইত্যাদি অংগের, যৌনতা বর্গের, কামভাইরাসের আক্রামনে, মগজশক্তির পঙ্গুত্ব, আমাদেরকে বানিয়েছে ক্লিব। শ্রমজীবীদের দেহাশ্রয়ী পরজীবীদের দ্বারা, ভাবোন্মত্ত প্রতিভাবানদের দ্বারা বিভ্রান্ত সমাজ-মানস এখন সংজ্ঞাহীন, আত্মশক্তিহীন, হিতাহিত জ্ঞানহীন, বিজ্ঞানহীন প্রযুক্তিহীন, চোখ বাঁধা কুলুর বলদের মত একই বৃত্তে ঘুর্ণায়মান। বৃত্ত ভাঙ্গার বিচ্ছিন্ন চেষ্টাগুলো অন্যের হাতে সুই রেখে সুতা গাঁথা মত। অনেক সময় শোনা যায় দেশেই তৈরি হচ্ছে ল্যাপটপ, মোবাইল ফোন, টিভি, প্রিপেইড মিটার ইত্যাদি। যেখানে আমাদের একটা ট্রানজিস্টর-ক্যাপাসিটর-রেজিস্টর, একটা লিড এমনকি চি- শব্দ করার মত একটা বাজার বানানোর সামর্থ/সংস্থান নেই সেখানে এই জাতীয় বক্তব্যগুলো অন্যের চিবানো ভাত গেলার সামিল।
আমরা অন্যের চিবানো ভাত গিলতে চাই না, আমরা পুরুষ মানুষ ডাকতে চাই না। আমরা চাই ডিজিটাল বাংলাদেশ হবে প্রযুক্তিতে স্বনির্ভর, মগজভিত্তিক বিশ্বব্যবস্থার নিয়স্ত্রক। আমরা হব স্নায়ুবিক উৎকর্ষতার উত্তম পুরুষ। এর জন্য প্রয়োজন তৃণমূল তথা হাটে-মাঠে-ঘাটে-চাস্টলে-ঘরে-ঘরে বিজ্ঞান চর্চা। প্রয়োজন ভার্চুয়াল সায়েন্স ক্লাব। আসুন, সম্পৃক্ত হোন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here