দেশটাকে স্বাধীন করার জন্য স্বেচ্ছায় মৃত্যুবরণ করাটাই ছিল বেশি গৌরবের

0
38
728×90 Banner

এড. এম এ মজিদ : মুক্তিযুদ্ধে সুইসাইডে স্কোয়াডের (আত্মঘাতি দল) লটারিতে আমিসহ যেই ছয় জনের নাম উঠেছিল তাদেরকে মাথায় ও ঘাড়ে নিয়ে যেভাবে লাফালাফি, হাসাহাসি, হৈহুল্লোর, আনন্দোল্লাস এবং গগনবিদারী স্লোগান দেওয়া হয়েছিল – সেটি ছিল অকল্পনীয়, অভাবনীয় ও অবর্ণনীয়। বিষয়টিকে অলিম্পিকের ফাইনাল খেলায় যেদল বিশ্ব চ্যাম্পিয়ান হয় – তাদেরকে নিয়ে সকলেই যেভাবে বিজয় ও আনন্দোল্লাসে মেতে উঠে – সেদিন আমিসহ সুইসাইড স্কোয়াডের সেই ছয় জনকে নিয়ে সেভাবেই আনন্দোল্লাসে সবাই মেতে উঠেছিলেন। ঘটনাটি ঘটেছিল ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বালুরঘাট জেলার কামারপাড়াস্হ মুক্তিযোদ্ধা হায়ার ট্রেনিং এন্ড অপারেশন ক্যাম্পে ১৯৭১ সালের আগস্ট মাসের শেষের দিকের একটি ঘটনায়।
১৯৭১ সালের এপ্রিল মাসের শেষের দিকে আমাদেরকে নিয়েই গড়ে উঠেছিল পশ্চিম দিনাজপুরের ডালিমগাঁস্হ মুক্তিযোদ্ধা ইয়ুথ ক্যাম্প। সেই ইয়ুথ ক্যাম্পের প্রথম ব্যাচে আমরা শতাধিক মুক্তিযোদ্ধা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়ের বেঙ্গল পল্টনের সেনা এবং দিনাজপুর নিউ হোটেলের মালিক আহমেদ আলী ভাই ক্যাম্প-ইন-চার্জ এর কমান্ডে মুক্তিযোদ্ধা ইয়ুথ ক্যাম্পে প্রশিক্ষণ নেওয়া শুরু করি। এক মাস প্রশিক্ষণ শেষে ১৯৭১ সালের মে মাসের তৃতীয় সপ্তাহের কোনো একটি দিনে ভারতীয় সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেন মজুমদার উচ্চ প্রশিক্ষণের জন্য ৩৩ জন মুক্তিযোদ্ধাকে আমাদের ডালিমগাঁস্হ ইয়ুথ ক্যাম্পে রিক্রুট করতে এলে তিনি আমাদের কুঁচকাওয়াজ ও রণকৌশল প্রত্যক্ষ করার পর আমাদেরকে লাইন করে দাড়িয়ে এক একজনকে বিভিন্নভাবে কিলগুঁতা, চরথাপ্পর ও ধাক্কাধাক্কির পর উত্তীর্ণদের বিভিন্ন প্রশ্নোত্তরে যাদেরকে যোগ্য মনে করেছিলেন তাঁদেরকেই উচ্চ প্রশিক্ষণের জন্য নির্বাচিত করেছিলেন। যোগ্যতা ও ভাগ্যবলে প্রথম ব্যাচে আমরা ডালিমগাঁস্হ ইয়ুথ ক্যাম্পের ৩৩ জন মুক্তিযোদ্ধা ক্যাপ্টেন মজুমদার কর্তৃক চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত হওয়ার পরই আমরা ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বালুরঘাট জেলার কামারপাড়াস্হ মুক্তিযোদ্ধা হায়ার ট্রেনিং এন্ড অপারেশন ক্যাম্পে প্রশিক্ষণ গ্রহনের সুযোগ পেয়েছিলাম।
প্রসঙ্গক্রমে উল্লেখ্য যে, আমরা ১৯৭১ সালের ২৬শে মার্চের পর থেকে ১৪ই এপ্রিল পর্যন্ত দিনাজপুরে বাংলাদেশের পতাকা উত্তলন, স্টেডিয়ামে যুদ্ধের প্রশিক্ষণ গ্রহণ, দিনাজপুরের কুঠিবাড়িস্হ বিডিআর সেক্টর হেডকোয়ার্টার্স আক্রমণ ও অস্ত্র সংগ্রহ করে দিনাজপুর দশ মাইল মোড়ে দখলদার বাহিনীর বিরুদ্ধে সরাসরি সম্মুখযুদ্ধে অংশগ্রহণ করে শেষাবধি ১৫ এপ্রিলে পশ্চিম দিনাজপুরের রাধিকাপুর রেলওশে স্টেশনের পরিত্যক্ত কক্ষে আশ্রয় নিয়ে আমরা মাত্র কয়েকজন যুবক ইপিআর বসহিনির লেস নায়েক জর্জ দাশ ভাইয়ের (পরবর্তীতে তিনি হামজাপুর ক্যাম্পের ক্যাম্প-ইন-চার্জ ছিলেন) নেতৃত্বে প্রশিক্ষণ গ্রহন ও হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি কমান্ডো যুদ্ধসহ একটি ভয়াবহ বৃহদাকারের সম্মুখযুদ্ধে অংশগ্রহণ করি। সেই ভয়াবহ সম্মুখযুদ্ধে বিএসএফ এর ৫/৬ জন সদস্য নিহত হন। সেই যুদ্ধে রাধিকাপুর শরনার্থী শিবিরের শতাধিক সাধারণ শরণার্থী হানাদার বাহিনীর নিক্ষিপ্ত এলোপাতাড়ি ভারি বোমায় আহত এবং ৮/১০ জন নিহত হন। পরাজিত ও পিছু হাটা পাকিস্তানি বাহিনির এক ডজনেরও বেশি সেনা সেই যুদ্ধে নিহত হয়েছিল। তচনছ ও লন্ডভন্ড হয়ে যায় রাধিকাপুর শরনার্থী ক্যাম্প এবং আমাদের অস্থায়ী মুক্তিযোদ্ধা ক্যাম্প। সপ্তাহ খানিকের মধ্যেই ডালিমগাঁও রেলওয়ে স্টেশনের সন্নিকটেই আমাদেরকে নিয়েই সর্বপ্রথম “ডালিমগাঁ মুক্তিযোদ্ধা ইয়ুথ ক্যাম্প” গঠন করা হয়েছিল।
পশ্চিমবঙ্গের বালুরঘাট জেলার কামারপাড়াস্হ মুক্তিযোদ্ধা হায়ার ট্রেনিং এন্ড অপারেশন ক্যাম্পে দিনাজপুর, রংপুর ও বগুড়া জেলার তিন শতাধিক মুক্তিযোদ্ধা উচ্চতর প্রশিক্ষণ নেওয়া ও সেই সাথে সেনাবাহিনীর সাথে দখলদার বাহিনীর বিরুদ্ধে বিভিন্ন লোমহর্ষক যুদ্ধে প্রত্যক্ষভাবে অংশগ্রহণ করাটাই ছিল আমাদের দৈনন্দিন রুটিনওয়ার্ক। সেই সব রণক্ষেত্রে আমরা কিভাবে বেঁচে গিয়েছি সেটা আকস্মিক বা অলৌকিক বিষয়। কেননা, আমরা সামনে এগুলে হানাদার বাহিনীর গুলিতে আর পিছালে আমাদের সেনাবাহিনীর গুলিতে মৃত্যুটাই ছিল আমাদের নিশ্চিত পাওনা। আমরা সেসময় কিভাবে প্রানে বেঁচে গিয়েছি সেটা একমাত্র আল্লাহপাকই জানেন।
এভাবে দুই মাস অতিবাহিত হওয়ার পর আগস্ট মাসের শেষের দিকে ৬ জন মুক্তিযোদ্ধা দরকার – যাদেরকে নিয়ে সুইসাইড স্কোয়াড গঠন করা হবে। ১৯৬৫ সালের ৬ই আগস্ট পাকিস্তান – ভারত যুদ্ধে ছয়শরও অধিক স্যঞ্চুরিয়ান ট্যাঙ্ক নিয়ে পাকিস্তানের লাহোর আক্রমণ করেছিল ভারত। সেই দিনটিকে স্মরণ ও উৎযাপন উপলক্ষে ১৯৭১ সালের ৬ই সেপ্টেম্বর দিনাজপুর বড় ময়দানে সামরিক কুঁচকাওয়াজ ও মার্চপাস্ট অনুষ্ঠান উৎযাপন করার কথা। ওই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে পূর্বাঞ্চলীয় সামরিক বাহিনীর জেনারেল টিক্কা খান এবং উচ্চ পর্যায়ের কয়েকজন সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তাগণ উপস্থিত থাকবেন। সেই অনুষ্ঠানে সুইসাইড স্কোয়াডের সেই ৬ জন মুক্তিযোদ্ধা তাঁদের শরীরে ডিনামাইট ও এক্সপ্লোসিভ বেঁধে নিয়ে সেখানে যাবেন এবং সুযোগ বুঝে ৬ জনই একসাথে বিস্ফোরণ ঘটিয়ে নিজেরা মরবে সেই সাথে টিক্কা খানসহ আশেপাশের উপস্থিত সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তাদের মারবে। এই মিশনকে সফল করার জন্যই সুইসাইড স্কোয়াডে ৬ জন মুক্তিযোদ্ধার প্রয়োজন হয়েছিল।
কামারপাড়া ক্যাম্পের ক্যাপ্টেন আনোয়ার হোসেনের (পরবর্তীতে তিনি বিডিআর এর মহাপরিচালক হয়েছিলেন) এই প্রস্তাবে দিনাজপুর, রংপুর ও বগুড়া জেলার প্রশিক্ষণরত প্রায় সকল মুক্তিযোদ্ধারাই রাজি হয়ে গেলেন। সেসময় ক্যাপ্টেন আনোয়ার বল্লেন, যেহেতু ঘটনাটি দিনাজপুরে করতে হবে সেহেতু দিনাজপুরের ৬ জন সাদা দাগের এপারে চলে এসো। আমরা দিনাজপুরের প্রায় সকলেই সাদা দাগের ওপারে চলে গেলাম। তখন ক্যাপ্টেন আনোয়ার বল্লেন, যেহেতু ঘটনাটি ঘটানো হবে দিনাজপুর শহরের বড় ময়দানে সেজন্য দিনাজপুর শহরের ৬ জন সাদা দাগের এপারে চলে এসো। তখন আমরা দিনাজপুর শহরে বসবাসরত ৩৩ জনই সাদা দাগের ওপারে চলে গেলাম। এবারে ক্যাপ্টেন আনোয়ার সত্যিকার অর্থেই রাগান্বিত হয়ে বল্লেন, তোমরা কি মজার খেলা পেয়ে গেছ! আমরা কিন্তু সেনাবাহিনীর ওতোসব নিয়মকানুন জানি না। সবার পক্ষে আমি বল্লাম, স্যার, আমরা তো টাকাকড়ি বা খাওয়াদাওয়া চাচ্ছি না, আমরা স্বেচ্ছায় যুদ্ধে এসেছি আমাদের মাতৃভূমিকে স্বাধীন করার জন্য। আমরা নিজেদের জীবন বিসর্জন দিয়ে টিক্কা খানসহ আরো কয়েকজনকে হত্যা করবো – এতে মজার খেলার কি হলো স্যার! আমার কথায় ক্যাপ্টেন আনোয়ার বেশ বিচলিত ও চিন্তিত হয়ে পড়লেন। তাঁকে বল্লাম, স্যার লটারির মাধ্যমে বিষয়টি খুব সহজেই সমাধান করা সম্ভব। আমার এই প্রস্তাবে ক্যাপ্টেন আনোয়ার সন্তুষ্ট ও রাজি হয়ে ছোট ছোট ৩৩টি সাদা কাগজের ৬ টিতে কলম দিয়ে “টিক” চিহ্ন দিয়ে ৩৩ টি কাগজ একইভাবে ভাজ করে সেগুলো একটি বালটিতে ওলটপালট করে রাখা হলো এবং ভাজ করা কগজগুলোর মধ্য থেকে আমাদের প্রত্যককে চোখ বন্ধ করে একটি করে কাগজ তুলতে বলা হলো। যেই ৬ জনের কাগজে “টিক” চিহ্ন পাওয়া গেল – তারা হলেন ভাগ্যবান, আর সেই ভাগ্যবানদের মধ্যে আমিও একজন। তখন সেখানে উপস্থিত তিন শতাধিক মুক্তিযোদ্ধা আমাদেরকে তাদের মাথায় ও ঘাড়ে নিয়ে যেভাবে লাফালাফি, নাচানাচি, হৈ-হুল্লোড়, হাসিখুশি ও গগনবিদারী স্লোগান দিচ্ছিলেন – তাতে পেয়েছি। মনে হচ্ছিল বিশ্ব অলিম্পিকে আমরা গোল্ড মেডেল পেলে যতটুকু আনন্দ পেতাম, সেদিন আমরা তার চাইতেও আরো অনেক বেশি আনন্দ, উল্লাস ও গর্ববোধ করেছিলাম।
কিন্তু আজ যখন দেখি একজন টিএনও-কে “স্যার” না বলে “ভাই” সম্বোধন করার কারণে পিতৃতুল্য মুক্তিযোদ্ধাকে অশ্লীল ভাষায় গালাগালি করে পিয়নকে ঘাড় ধাক্কা দিয়ে তার চেম্বার থেকে বের করার নির্দেশ প্রদানকারী টিএনও-এর বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করার পরও তার বিরুদ্ধে কোনো কৈফিয়ৎ তলব করা হয় নাই। প্রকাশ্য দিবালোকে মুক্তিযোদ্ধার বাড়ি দখল, বাড়িতে অগ্নিসংযোগ, মুক্তিযোদ্ধার মেয়েকে ধর্ষণ ও খুন করা হলেও কোনো বিচার হয় না। মুক্তিযোদ্ধা চিকিৎসার অভাবে স্বেচ্ছায় আত্মহত্যার ছবি সংবাদপত্র ও টেলিভিশনে দেশবাসী দেখেছে। বসতভিটাহীন প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধারা সরকারের দেওয়া বিনা মূল্যের বসতবাড়ি পাচ্ছেন না, পাচ্ছেন ভূয়া এবং স্বচ্ছলরা তিন-চার লাখ টাকা নগদ ঘুষের বিনিময়ে। গত প্রায় পাঁচ বছর যাবৎ কোনো নিষেধাজ্ঞা বা কারণ ছাড়াই সরকার বন্ধ করে রেখেছে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডের নির্বাচন। হাসপাতালের ফ্লোরে চিকিৎসাধীন মুক্তিযোদ্ধা হার্টের রোগী বেড পাওয়ার জন্য ডাক্তারকে মুক্তিযোদ্ধার সার্টিফিকেট দেখিয়ে অনুরোধ করার কারণে প্রকাশ্যে তাঁর সার্টিফিকেট ছিড়ে ফেলে অশ্লীল ভাষায় গালাগালি ও চড়থাপ্পড় খেতে হয়েছে – অথচ ঐ ডাক্তারের কিছুই হয়নি। সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশ থাকা সত্বেও মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিল করা হয়েছে। স্বাধীনতার ৫০ বছর অতিক্রান্ত হওয়া সত্বেও সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের একটি পরিচয়পত্র, মূল সনদপত্র দেয়নি, এমনকি একটি কোটপিনও না। মুক্তিযোদ্ধাদের সাংবিধানিক স্বীকৃত পাওয়া এখন অলীক কল্পনার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। সর্বস্তর থেকে মুক্তিযোদ্ধাদেরকে প্রতিনিয়ত অপমান, অপদস্ত, নিগৃহীত ও নির্যাতনের সংবাদ খবরের কাগজে প্রকাশিত ও টেলিভিশনে প্রচারিত হওয়া সত্বেও সেগুলো সরকারের দৃষ্টিতে ও কর্ণকুহরে প্রবেশ করে না।
অথচ জীবনের শতভাগ ঝুঁকি নিয়ে কোনো কিছু পাওয়ার বিনিময়ে নয় – শুধু দেশটিকে স্বাধীন করে দেশের মানুষের সুখ ও শান্তির জন্যই বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে বিশ্বের দুর্ধর্ষ দখলদার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন দেশের অকুতোভয় সূর্যসন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধারা। তাঁরা চেয়েছিলেন বিশ্বের মানচিত্রে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের মানচিত্র রচনা করতে, যেখানে পত্ পত্ করে উড়বে স্বাধীন দেশের জাতীয় পতাকা, আর স্বাধীন দেশের স্বাধীন জনগণ গাইবেন বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত – “আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবসি”।


লেখকঃ বীর মুক্তিযোদ্ধা, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের এ্যাডভোকেট এবং জাতীয় সাংবাদিক সোসাইটি ও ওয়ার্ল্ড পীস এন্ড হিউম্যান রাইটস সোসাইটির চেয়ারম্যান।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

eleven − five =