দেশের চামড়া বাজার বড় ধরনের সঙ্কটে রয়েছে—– বাণিজ্যমন্ত্রী

0
30
728×90 Banner

এস,এম,মনির হোসেন জীবন : দেশের চামড়া বাজার বড় ধরনের সঙ্কটে রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি (এমপি)।
তিনি বলেন, বাংলাদেশের সবচেয়ে রপ্তানির বড় সেক্টর হচ্ছে চামড়া। এ চামড়া বাজার বড় ধরনের সঙ্কটে রয়েছে। চীন হচ্ছে চামড়া সবচাইতে বড় আমদানিকারক। তবে, অনেক রপ্তানি আদেশ বাতিল হয়েছে। ডিসেম্বরে একটা টাইমলাইন ছিল, সেটিও পেরিয়ে গেছে।
বৃহস্পতিবার (১৩ ফেব্্রুয়ারি) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে দুপুরে তিন দিনব্যাপী ইন্টারন্যাশনাল ফায়ার সেফটি অ্যান্ড সিকিউরিটি এক্সপো ইফসির উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বানিজ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন।
সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বানিজ্য মন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, আমাদের বড় সমস্যা হচ্ছে কোরবানির সময় এক সঙ্গে অনেক চামড়া জমে যায়। বুধবার আমরা শিল্প মন্ত্রণালয় ও পরিবেশ অধিদফতরের সঙ্গে বসে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। সবধরনের প্রাতিষ্ঠানিক প্রতিনিধিকে নিয়ে একটা হাইপাওয়ার কমিটি করে দেয়া হয়েছে। কমিটির রিপোর্ট পেলে আমরা অ্যাকশন নেব।
বাংলাদেশের অনেক উন্নয়ন প্রকল্পে কাজ করছে চীন। এ ক্ষেত্রে কোনো ধরনের রেস্ট্রিকশন আনা হয়েছে কি না- সাংবাদিকরা জানতে চাইলে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, যেসব চীনা নাগরিক বাংলাদেশে আসছে আমরা তাদেরকে দেখছি, তাদেরকে ক্যাম্পে নেয়া হয়েছে। তবে, এখন পর্যন্ত যারা এসেছেন তাদের মধ্যে এ রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা যায়নি।
এসময় বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, করোনাভাইরাস কয়েক মিনিটের মধ্যেই শেষ হয়ে যায়। ২ মিটারের মধ্যে থাকলে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। ইমপোর্টেড যে কাপড বানানো জিনিস তার ওপরে করোনাভাইরাসের প্রভাব নেই। কিন্তু মানুষজন কাজ করতে যাবে সেখানেই সমস্যা।
বানিজ্য মন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, মানুষ কাজ না করলে প্রোডাকশন হবে কেমন করে? জিনিসপত্র আনলে সেখানে সমস্যা নাই। কিন্তু ওখান থেকে তো সাপ্লাইটা শুরু হতে হবে। আমরা লক্ষ্য রাখছি তারা (চীন) সাপ্লাইটা শুরু করে কি না।
সাংবাদিকদের অপর এক প্রশ্নের জবাবে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, আমরা একটু দুশ্চিন্তার মধ্যে আছি। তারপরও আমরা সব দিকে লক্ষ্য রাখছি। করোনাভাইরাসের কী পরিমাণ চাপ আসতে পারে। সেটা নিয়ে একটা আলোচনা হচ্ছে।
মন্ত্রী আরও বলেন, আমরা লক্ষ্য রাখছি ফ্যাক্টরিগুলোর সাপ্লাইয়ের দিকে। চায়নাতে হলিডে শেষ হলো। আজ খবর পেলাম চায়নার মার্কেটগুলো খুলতে শুরু করেছে। আমরা সেটা অবজার্ভ করছি।
করোনাভাইরাসের কারণে চীন থেকে ম্যানুফ্যাকচারিং মালামাল বিভিন্ন ইকুইপমেন্ট ও কাঁচামাল আমদানি ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে কিনা এ বিষয় প্রশ্ন করা হলে বাজিন্যমন্ত্রী বলেন, হঠাৎ করে বলা মুশকিল, এটা অত্যন্ত গভীর সমস্যা।
এবিষয়ে বানিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, রেডিমেড গার্মেন্টস সেক্টরের হঠাৎ করে সাপ্লাইটা কোথায় সোর্সিং করব? সেটা তো সময়ের ব্যাপার। আমরা লক্ষ্য রাখছি, আশা করছি অল্টারনেটিভ মার্কেট পেয়ে যাব। যদিও এর জন্য সময় দরকার।
কারণ, যে স্পেসিফিকেশন কাঁচামাল আনতে হয় সেটা অন্য কোথাও পেতে হলে তো সময় দিতে হবে। বাজাারকে এক্সেপ্ট করতে হবে। এটা নিয়ে আমরা একটু দুশ্চিন্তার মধ্যে আছি বটে।
দেশের বাজার গুলোতে ইতোমধ্যে রসুন ও আদার দাম বেড়ে গেছে- এ বিষয়ে মনিটরিং করা হচ্ছে কি না জানতে চাইলে বানিজ্য মন্ত্রী সাংবাদিকদেরকে বলেন, আমাদের বাজার মনিটরিং আছে। আমাদের ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরসহ সরকারের বিভিন্ন জায়গায় যারা ইমপ্লিমেন্টেশন করবে তাদেরকে বলা হয়েছে, চিঠি পাঠিয়ে বলা হয়েছে, আপনারা বাজার যান, বাজার মনিটরিং করেন।
বাজিন্যমন্ত্রী বলেন, পাইকারি ও খুচরা বাজারে কী দামে বিক্রি হচ্ছে, তা মনিটরিং করতে বলা হয়েছে। বাজারে মূল্য তালিকা ঝুলিয়ে রাখতে বলা হয়েছে। কেউ যদি মূল্যের অতিরিক্ত দামে পণ্য বিক্রি করে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।
চীন থেকে অনেক ইলেকট্রনিক্স পণ্য ও কাঁচামাল আসে উল্লেখ করে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, রসুন যে পরিমাণ প্রয়োজন তার ৯০ শতাংশ চায়না থেকে আসে। রসুনের ব্যাপার এক ধরনের। আর অন্যান্য কাঁচামাল, ইলেকট্রনিক্স প্রডাক্টের প্রভাব যদি পড়তে শুরু করে সেটা অন্য রকমের ভাবনা।
তিনি আরও বলেন,রসুন নিয়ে আমরা চেষ্টা করব বিকল্প মার্কেট থেকে সোর্সিং করতে। কাঁচামাল আনার ক্ষেত্রে বেশ সমস্যা হবে। তবে, আমাদের এখনই বলার সময় আসেনি, দেখি বড় ধরনের বিপদ আসে কি না।
এবারের এক্সপোতে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, জার্মানি, ইতালি, তাইওয়ান, তুরস্ক, ইউএই, পর্তুগাল, স্পেন, পোল্যান্ড, সুইজারল্যান্ড, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর ও ভারতসহ ২৫টি দেশের বিভিন্ন ব্রান্ডের ফায়ার সেফটি অ্যান্ড সিকিউরিটি সরঞ্জাম প্রদর্শন করা হবে। এক্সপোতে মোট স্টল থাকবে ৭৫টি।
‘ইন্টারন্যাশনাল ফায়ার সেফটি অ্যান্ড সিকিউরিটি এক্সপো (ইফসি) ২০২০’এর কো-পার্টনার বাংলাদেশ ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্স। সহযোগী পার্টনার র‌্যাপিড এ্যাকশান ব্যাটালিয়ান-র‌্যাব, এনএফপিএ-ইউএসএ, বিজিএমইএ, বিটিএমইএ, বেসিস, বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি, ফায়ার ফাইটিং ইকিউপমেন্ট বিজনেস ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশ পাইপ এন্ড টিউবওয়েল মার্চেন্টস অ্যাসোসিয়েশন।
এসময় অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বানিজ্য মন্ত্রী টিপু মুনশি (এমপি)কে আয়োজক কমিটির পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচছা ও সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। পরে প্রধান ও বিশেষ অতিথিবৃন্দরা ফায়ার সেফটি অ্যান্ড সিকিউরিটি সরঞ্জাম প্রদর্শন করেন।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের পরিচালক ট্রেনিং,প্লানিং ও ডেভেলপমেন্ট) লেফটেন্ট্যান্ট কর্ণেল এস.এম জুলফিকার রহমান বিএসপি, পিএসসি,, এফবিসিআই’র সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. মুনতাকিম আশরাফ, বিজিএমই’র ফাস্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ আব্দুস সালাম, ইসাবের সভাপতি মো: মোতাহার হোসেন খান, ইসাবের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মাহমুদ, ইফসি আহবায়ক ও পাবলিসিটি সেক্রেটারি ও এক্সপো কনভেনার জাকির উদ্দিন আহম্মেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here