নির্বাচন ছাড়া ক্ষমতার পরিবর্তনের কোন বিকল্প নেই——–ওবায়দুল কাদের

0
41
728×90 Banner
গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন: আজমত সভাপতি, আতাউল্লাহ সম্পাদক

মোঃ বায়েজীদ হোসেন: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি বলেছেন, ক্ষমতার পরিবর্তন হলে নির্বাচনেই হতে হয়। নির্বাচন ছাড়া ক্ষমতার পরিবর্তনের কোন বিকল্প নেই। তারা এখন ক্ষমতার রঙিন খোয়াব দেখছে। খোয়াব যত পারেন দেখেন। খোয়াবে দিবা স্বপ্ন কতজনইতো দেখে। তত্ত¡াবধায়ক নিয়ে বেগম খালেদা জিয়া বলেছিলেন তত্ত¡াবধায়ক নাকি পাগল আর শিশু ছাড়া কেউ বুঝে না। তাহলে ফখরুল সাহেব এটা আপনার মাথায় ঢুকলো কেমনে।
তিনি শনিবার বিকালে গাজীপুর শহরের ঐতিহাসিক ভাওয়াল রাজবাড়ি মাঠে গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন ।
ওবায়দুল কাদের বলেন, শেখ হাসিনা দয়া করে দন্ডিত আসামি আপনার নেত্রীকে বাসায় রেখেছে। লজ্জা করে না, গণঅভ্যুত্থান করবেন। নেত্রীর মুক্তির জন্য একটি মিছিলও করতে পারেননি। দেশনেত্রী বলতে বলতে আপনার মুখ থেকে ফেনা বের হয়। দেখতে দেখতে ১৩ বছর আমরা বলেছিলাম আন্দোলন হবে কোন বছর? মানুষ বাঁচে কয় বছর ?
ওবায়দুল কাদের বিএনপি মহাসচিবের উদ্দেশ্যে বলেন, টেলিভিশনের পর্দায় সিলেটের সঙ্গে গাজীপুরকে মিলিয়ে দেখুন। গাজীপুরে শুধু মহানগর আওয়ামীলীগের সম্মেলন আর সিলেটে ৫ জেলার মানুষ হাজির হয়েছে। তিনদিন আগে থেকে ঢল নামিয়েছে। কাঁথা, বালিশ, বিছানা-পত্র, হান্ডিপাতিল সব নিয়ে নেতাকর্মীরা সারাদেশ থেকে সিলেটে গেছে। যেখানে সমাবেশ সেখানে সাত দিনে আগে থেকে রওনা হয়। খানাপিনা ভালই চলছে। পাতিলে পাতিলে খাবার, গরুর মাংস, খাসির মাংস, মুরগীর মাংস, এর পর পেপসিকোলা। ভালই আছে বিএনপি। ক্ষমতায় না থাকলে কি হবে এখনো তারা ভালই আছে।
সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমÐলির সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক ও অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম এমপি। প্রধান বক্তা ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম এমপি।
গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট আজমত উল্লা খানের সভাপতিত্বে সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মোঃ জাহিদ আহসান রাসেল এমপি, আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ এমপি, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মেহের আফরোজ চুমকি এমপি, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, সদস্য এডভোকেট এবিএম রিয়াজুল কবীর কাওছার, আনোয়ার হোসেন, সাহাবুদ্দিন ফরাজী ও ইকবাল হোসেন অপু এমপি, গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ ইকবাল হোসেন সবুজ এমপি, অধ্যাপিকা রুমানা আলী টুসি এমপি প্রমূখ। সম্মেলনে সাধারণ সম্পাদকের রিপোর্ট পেশ করেন মহানগর আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আতাউল্লাহ মন্ডল।
তিনি আরো বলেন, বিদেশীদের কাছে নালিশ করে বিএনপি এখন বাংলাদেশ নালিশ পার্টি হয়ে গেছে। বিদেশীদের কাছে জিজ্ঞাসা করতে পারেন না কোন দেশে তত্ত¡াবধায়ক আছে? দুনিয়ার অন্যান্য দেশে যেভাবে নির্বাচন হয় বাংলাদেশেও ঠিক সেইভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। শেখ হাসিনার সরকার কোন হস্তক্ষেপ করবে না। ডিসেম্বরে খেলা হবে। আন্দোলনের মোকাবেলা হবে। নির্বাচনের খেলা হবে। ডিসেম্বর মাসে রাজপথ দখল করবেন বলেন, আমরাতো বলেনি। লাল কার্ড দেখাবেন, শেখ হাসিনার পতন ঘটিয়ে বিজয় মিছিল করবেন।
তিনি নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, খেলা হবে, প্রস্তুত হয়ে যান গাজীপুর। ভোট চুরির বিরুদ্ধে, দুর্নীতির বিরুদ্ধে, লুটপাটের বিরুদ্ধে, হাওয়া ভবনের বিরুদ্ধে খেলা হবে।
বিশেষ অতিথি ড. আব্দুর রাজ্জাক তার বক্তব্যে বলেন, অনেকে বলেছেন বাংলাদেশে দুর্ভিক্ষ হবে কিন্তু দেশে দুর্ভিক্ষের চিহ্নমাত্র নেই। আগামিতেও বাংলাদেশ কোন দুর্ভিক্ষ হবে না। উত্তরবঙ্গে আগে মঙ্গা হতো। এখন আর মঙ্গার নাম শুনা যায়না। প্রধানমন্ত্রী কৃষিক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নয়ন এসেছেন। তার সুফল আমরা ভোগ করছি।
সম্মেলন উপলক্ষ্যে শনিবার সকালে গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের দলীয় নেতা-কর্মীরা রং-বেরংয়ের ক্যাপ, টিশার্ট পরে এবং হাতে ব্যানার ও ফেস্টুন, বাদক-দল সহকারে বিভিন্ন থানা থেকে খন্ড খন্ড মিছিল নিয়ে সম্মেলনস্থলের বাইরে অবস্থান নেন। মহানগর ও জেলা আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা বাস- ট্রাকে করে শহরে প্রবেশ দ্বারে পৌঁছেন। পরে তারা সেখান থেকে মিছিল নিয়ে হেঁটে হেঁটে অনুষ্ঠানস্থলের দিকে রওনা দেয়। সকাল ১১টার দিকে অনুষ্ঠানস্থল ভাওয়াল রাজবাড়ি মাঠের ফটকগুলো খুলে দেওয়া হয়। এসময় মাঠের ভেতরে ঢুকার জন্য মিছিলকারীদের হুড়োহুড়ি শুরু হয়।
মূহুর্তের মধ্যেই পুরো মাঠ লোকে লোকারণ্য হয়ে যায়। সকাল সোয়া ১১টার মধ্যে সম্মেলনস্থল ভাওয়াল রাজবাড়ি মাঠ পূর্ণ হয়ে যায়।
সম্মেলনের দ্বিতীয় পর্বে ওবায়দুল কাদের গাজীপুর মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি পদে দুই জন ও সাধারণ সম্পাদক পদে ১৬জন প্রার্থীদের নাম পড়ে শুনান। পরে দলীয় প্রধান শেখ হাসিনার বরাত দিয়ে তিনি গাজীপুর মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি পদে অ্যাডভোকেট আজমত উল্লা খান ও সাধারণ সম্পাদক পদে আতাউল্লাহ মন্ডলের নাম ঘোষণা করেন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here