বিজয়নগরে মুকুন্দপুর মুক্ত দিবস পালিত

0
17
728×90 Banner

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার, বিজয়নগর প্রতিনিধি: মুকুন্দপুর যুদ্ধে সায়েরা বেগমের অবদান স্বীকৃতি আদায় আমার জীবনের সব ভাল কাজের অন্যতম। আমি সায়েরা বেগমকে নূন্যতম বীর প্রতিক উপাধিতে ভূষিত করার দাবী জানান অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপি।
তিনি আরো বলেন, বিজয়নগরকে প্রকৃতঅর্থে মুক্তিযুদ্ধের আর্দশে মডেল উপজেলা হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ করে যাচ্ছি। তাই আগামী নির্বাচনে আবারো মুক্তিযুদ্ধের সরকার আওয়ামীলীগকে ভোট দিয়ে ক্ষমতায় আনার আহবান জানান।
১৯ নভেম্বর মুকুন্দপুর মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলার মুকুন্দপুর গ্রামে এক সম্মুখ লড়াইয়ের পর অত্র অঞ্চলে শত্রুমুক্ত হয়।
এ দিবসটি উপলক্ষে প্রতিবছরের ন্যায় এবছরও উপজেলা প্রশাসন ও মুক্তিযোদ্ধা ক্লাবের আয়োজনে জাঁকজমকপূর্ণ ভাবে মুকুন্দপুর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে বিশেষ আলোচনা সভা ২০ নভেম্বর রোববার বিকাল ৪টায় আয়োজন করা হয়।
উক্ত অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক মোঃ শাহগীর আলম এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া -৩ (সদর-বিজয়নগর) আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী।
প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিল সাবেক পুলিশ পরিদর্শন, পাবলিক সার্ভিস কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান, বীর মুক্তিযোদ্ধা এটি আহমদুল হক চৌধুরী।
বিজয়নগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ এইচ ইরফান উদ্দিন আহমেদ এর সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, জেলা পরিষদ এর নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা আল মামুন সরকার, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নাছিমা মুকাই আলী, থানার অফিসার মোঃ রাজু আহমেদ, উপজেলার সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা সার্জেন অবঃ দবির আহমেদ ভূইয়া।
১৯৭১ সালের ১৯ নভেম্বর এ দিনে মুকুন্দপুর ও তার আশপাশ এলাকা শত্রুমুক্ত হয়।মুকুন্দপুর যুদ্ধে ১৯ জন পাক সেনা নিহত হয়। যুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধাদের অসাধারণ রণকৌশলের কারণে এই এলাকায় যুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধাদের তেমন কোনো ক্ষয়ক্ষতিই হয়নি। যা এধরণের অপারেশনের ক্ষেত্রে বিরল। যুদ্ধে ভারতীয় মিত্রবাহিনীর ১৮ রাজপুত ব্যাটালিয়ন সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন।
মুকুন্দপুর মুক্ত দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভায় জেলা ও উপজেলা আওয়ামীলীগ এর অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ, বীর মুক্তিযোদ্ধাগন, জনপ্রতিনিধি, সুশীল সমাজের ব্যক্তিবর্গ, স্কুল কলেজের ছাত্রছাত্রীরা উপস্থিত থেকে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতিচারণ মূলক বক্তব্য শুনেন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here