বিশ্ব ইজতেমার ময়দানে দলে দলে আসছেন মুসল্লিরা

0
22
728×90 Banner

নাসির উদ্দীন বুলবুল: গাজীপুরের টঙ্গীর তুরাগ তীরে বিশ্ব ইজতেমায় যোগ দিতে আসতে শুরু করেছেন তাবলিগের সাথীরা। আগামী শুক্রবার বাদ ফজর থেকে শুরু হবে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। বুধবার সকাল থেকেই বাস, ট্রাক, পিক-আপে করে ইজতেমা ময়দানে আসতে শুরু করেছেন মুসল্লিরা।
বিশ্ব ইজতেমায় নাশকতা বা জঙ্গি হামলার গোয়েন্দা তথ্য নেই বলে জানিয়েছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন। তিনি বলেছেন, একটি স্বার্থান্বেষী মহল দেশকে নিয়ে ষড়যন্ত্র করছে। বিশ্ব ইজতেমাকে ঘিরে যেন কোনো নাশকতা সৃষ্টি না হয়, সেজন্য পুলিশ সতর্ক রয়েছে। আমরা যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্রয়োজনে জীবন দিতেও প্রস্তুত।
বুধবার বেলা ১২টায় বিশ্ব ইজতেমা ময়দান পরিদর্শন শেষে শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার স্টেডিয়ামে স্থাপিত গাজীপুর মহানগর পুলিশ কন্ট্রোল রুমের সামনের মাঠে প্রেস ব্রিফিংয়ে এ কথা বলেন তিনি।
আইজিপি বলেন, বিশ্ব ইজতেমায় বাংলাদেশ পুলিশের ১৫ হাজার সদস্য নিয়োজিত থাকবে। নৌপুলিশ, টুরিস্ট পুলিশ, এপিবিএন, ট্রাফিক পুলিশ, ডিবি, সিআইডিসহ পুলিশের সকল ইউনিটের পাশাপাশি র‌্যাব আইনশৃঙ্খলার নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে। বিশ্ব ইজতেমায় দুই গ্রুপের বিরোধ সম্পর্কে আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, আমরা দুই পক্ষের সঙ্গে কথা বলেছি।
তাঁরা শান্তিপূর্ণভাবে ইজতেমা সম্পন্ন করবেন বলে কথা দিয়েছেন। তারপরও যদি তাঁরা কোনো কিছু করেন তবে আইনগতভাবে মোকাবেলা করা হবে। তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, ইনশা-আল্লাহ দুই গ্রুপের মধ্যে কোনো সমস্যা হবে না।
বুধবার ইজতেমার ময়দানে গিয়ে দেখা যায়, ঢাকা, সিরাজগঞ্জ, পাবনা, কিশোরগঞ্জসহ আশাপাশের জেলা থেকে মুসল্লিরা ময়দানে এসেছেন। বিভিন্ন জেলার মুসল্লিরা সঙ্গে করে ত্রিপল, চট নিয়ে আসছেন। কেউ কেউ নিজেদের ত্রিপল ও চট উপরে টানাচ্ছেন। আর অন্যন্য জেলা থেকে আগত মুসল্লিরা তাদের নিজ নিজ জেলার খিত্তায় অবস্থান নিচ্ছেন। ১৬০ একর খোলা ময়দানে বাঁশের খুঁটির ওপর পাটের চট দিয়ে টানানো হয়েছে বিশাল প্যান্ডেল। তবে বিদেশি মেহমানদের জন্য টিন দিয়ে করা হয়েছে আবাসস্থল। কিশোরগঞ্জ থেকে ইজতেমা ময়দানে এসেছেন নুরুউদ্দিন । তিনি জানান, স্থানীয় একটি মসজিদ থেকে তারা ১৫ জনের একটি তাবলীগ জামাত ইজতেমা ময়দানে এসেছেন। তাই ভোরের শীত উপেক্ষা করে মিনিবাসে করে ভোগান্তি ছাড়াই ইজতেমা ময়দানে এসেছেন।
বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বের মিডিয়া সমন্বয়কারী মুফতি জহির ইবনে মুসলিম জানিয়েছেন, ইতিমধ্যে ইজতেমায় ময়দান প্রস্তুত হয়ে গিয়েছে। ইজতেমা পরিচালনা করার জন্য ময়দানসহ বাদবাকী সব কিছুই প্রস্তুত করা হয়েছে। মুসল্লিরা মঙ্গলবার রাত থেকেই ময়দানে আসতে শুরু করেছেন। সকালের দিকে মুসল্লি আসার সংখ্যা বেড়েছে। সারাদিনে মাঠ ভরে যাবে বলে আশা করছেন তিনি।
ইজতেমার শীর্ষ মুরুব্বি ইঞ্জিনিয়ার মাহফুজ বলেন, ‘আলহামদুলিল্লাহ, আমাদের প্রস্তুতি সম্পন্ন। তবে তুরাগ নদীর অপর প্রান্তে একটি রাস্তা স্থানীয় লোকজন প্রতিবন্ধকতা তৈরি করে রেখেছে। আমরা বিষয়টি প্রশাসনকে জানিয়েছি। এটি সমাধান হলে লাখ লাখ মুসল্লির যাতায়াত সহজ হবে।
আজ বুধবার সকালে বিশ্ব ইজতেমা ময়দান পরিদর্শন করেন র‌্যাবের মহাপরিচালক এম খুরশীদ হোসেন। বিশ্ব ইজতেমায় নাশকতার সুনির্দিষ্ট হুমকি না থাকলেও যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় কঠোর নিরাপত্তাসহ সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়ে বলে জানান র‌্যাবের এই কর্মকর্তা।তিনি আরো জানান, সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণের জন্য রয়েছে একটি মূল নিয়ন্ত্রণ কক্ষ ও দুটি উপ-নিয়ন্ত্রণ কক্ষ। তিনি আরও বলেন, ‘তা ছাড়া র‌্যাবের বোম্ব স্কোয়াড, ডগ স্কোয়াড ও স্ট্রাইকিং ফোর্স কাজ করছে। তুরাগ নদীতে টহলের জন্য র‌্যাবের স্পিডবোট থাকছে। ৯টি অবজারভেশন পোস্ট, ৯টি ওয়াচ টাওয়ার সার্বক্ষণিক মনিটরিং করছে। পুরো ময়দান পর্যবেক্ষণের জন্য আকাশপথে বুধবার থেকেই র‌্যাবের হেলিকপ্টার টহল দিচ্ছে।
গাজীপুর জেলা প্রশাসক আবুল ফাতে মোহাম্মদ সফিকুল ইসলাম জানান, এবারের বিশ্ব ইজতেমায় বিশুদ্ধ পানির সরবরাহ নিশ্চিত করা হয়েছে। ইজতেমা ময়দান ও আশপাশের এলাকায় বিশুদ্ধ খাবার সরবরাহ নিশ্চিত করতে গাজীপুর জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রটের একাধিক টিম দায়িত্বে থাকবে।
টঙ্গীর তুরাগ নদের তীরে আগামী ২ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ৫৭তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম ধাপ। এতে অংশ নিচ্ছেন মাওলানা জোবায়েরপন্থীরা। দ্বিতীয় ধাপে অংশ নেবেন ভারতের মাওলানা সাদপন্থীরা।
টঙ্গী‌তে ইজতেমা আসার পথে মুস‌ল্লির মৃত্যু
ইজ‌তেমায় আসার প‌থে গাজীপু‌রের টঙ্গী‌তে ইউনুছ মিয়া (৬০) না‌মে এক মুস‌ল্লির মৃত্যু হ‌য়ে‌ছে‌। বুধবার বেলা আড়াইটায় টঙ্গীর শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনা‌রেল হাসপাতা‌লে আসার আ‌গেই তার মৃত্যু হয়। নিহত ইউনুছ মিয়া বি -বা‌ড়িয়া জেলা সরাইল থানার অরুয়াইল ইউ‌নিয়‌নের ধামাউরা গ্রা‌মের মৃত বুদু মিয়ার ছে‌লে।
নিহ‌তের সা‌থে থাকা আর এক মুস‌ল্লি মজিবুর রহমান জানান, আমরা বুধবার সকা‌ল এগারোটা সময় বি – বা‌ড়িয়া থে‌কে ২৩ জন মুস‌ল্লি ‌নি‌য়ে ইজ‌তেমার উ‌দ্দেশ্য রওনা হই। মি‌রের মাজা‌র পার হ‌য়ে টঙ্গীর কাছাকা‌ছি আসার পর দুইবার ব‌মি ক‌রেন তি‌নি। প‌রে সে বা‌সের ছিট থে‌কে হে‌লে প‌রেন। এ অবস্থায় তা‌কে শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনা‌রেল হাসপাতা‌লে নি‌য়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষনা ক‌রেন।
শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনা‌রেল হাসপাতা‌লের জরুরী বিভা‌গের কর্তব্যরত ডাক্তার লুনা ব‌লেন, হাসপাতা‌লে নি‌য়ে আসার আ‌গে তার মৃত্যু হয়।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here