ব্যারিস্টার সুমনের কর্মতৎপরতা ও জনপ্রতিনিধিদের মালিকানা বোধ প্রসঙ্গে

0
24
728×90 Banner

মোশাররফ হোসেন মুসা: ২০০৯ সালে জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘জাগো নারী ফাউন্ডেশন’ নামে একটি সংস্থা ‘রাষ্ট্রের সর্বক্ষেত্রে সমহারে সমগুরুত্বে নর-নারীর গণতান্ত্রিক ক্ষমতায়ন’ শীর্ষক এক সেমিনার আয়োজন করে। উক্ত সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকেন ইংল্যান্ডের টাওয়ার হেমলেটস- এর ডিপুটি মেয়র লুৎফা বেগম। তাঁর সঙ্গে তাঁর কন্যা জুসিও উপস্থিত ছিলেন। তাঁরা যখন প্রেসক্লাবে প্রবেশ করছিলেন তখন একাধিক শ্রমিক সংগঠন মিছিল ও মানব- বন্ধন করছিল। সেমিনারে উপস্থাপিত সমহারে নর-নারীর ক্ষমতায়নের তত্ত্বটি তাঁদের পছন্দ হয়। মেয়রের কন্যা জুসি বাংলা- ইংরেজি মেশানো বক্তৃতায় যা বলেন তা হলো- আপনারা নরম কন্ঠে কথা বলবেন। হাত উঁচু করে ‘মানতে হবে’ ‘মানতে হবে’- বলবেন না। তিনি ইংল্যান্ডে বড় হয়েছেন। সেখানে কোনো নেতাকে তর্জনী উঁচিয়ে বক্তৃতা দিতে দেখেন নি। শুধু বৃটেন কেন গোটা ইউরোপসহ জাপানেও একই সংস্কৃতি বিদ্যমান। অর্থাৎ ওসব দেশগুলো নিজেদের মতো গড়ে উঠতে সক্ষম হওয়ায় নাগরিকেরা প্রত্যেকেই নিজেদেরকে দেশের মালিক মনে করে। তিনি হয়তো এদেশের মানুষের ক্ষোভ-বিক্ষোভের গভীরে যেতে পারেননি। এদেশ দীর্ঘকাল পরাধীন ছিল। বিদেশি শাসকদের তাড়াতে গিয়ে বহু সহিংস কর্মকাÐ করতে হয়। দেশ স্বাধীনতা লাভ করলেও নেতা-নেত্রীদের চিন্তা-চেতনায় ঔপনিবেশিক মানসিকতা রয়ে গেছে। তারা সুযোগ পেলেই দুর্নীতি করে এবং বিদেশে অর্থ পাচার করে। তবে মাঝে-মধ্যে হঠাৎ করে দু-একজন প্রতিনিধির আবির্ভাব ঘটে। তাদের নিয়ে জনগণ আবেগ- উচ্ছাস প্রকাশ করে এবং ইতিবাচক কাজের আশা করে। যেমন সম্প্রতি দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে হবিগঞ্জ-৪ আসন থেকে নির্বাচিত ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমন এখন আলোচিত জনপ্রতিনিধি। তিনি নির্বাচিত হয়েই নিজ শহর চুনারুঘাট পৌরসভার পরিত্যক্ত খোয়াই নদী পরিস্কার করে মালিকানা বোধের পরিচয় দিয়েছেন। জানা গেছে, তিনি পরিত্যক্ত খোয়াই নদীতে ৫০ বছরের আর্বজনা ‘বিডি ক্লিন’ নামে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে পরিস্কার করেন। এর আগে বেশ কয়েকটি ব্যতিক্রমী কাজ করে দলমত নির্বিশেষে সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সক্ষম হন। যেমন- বিভিন্ন জেলা-উপজেলা শহরে নিজের ফুটবল টিম নিয়ে ফুটবল খেলার আয়োজন করা (তিনি নিজেও খেলোয়াড়), নিজ খরচে ব্রিজ-কার্লভাট নির্মাণ করা, দুঃস্থদের বাড়িতে ল্যাট্রিন নির্মাণ করা, অসহায় মানুষের পক্ষে মামলা পরিচালনা করা ইত্যাদি। এর মধ্যে সবচেয়ে আলোচিত ঘটনা হলো প্রধানমন্ত্রীর সাবেক পিএস আবদুস সোবহান গোলাপের বিরুদ্ধে দেশে-বিদেশে একাধিক বাড়ি নির্মাণ ও অবৈধ আয়ের বিষয়ে দুর্নীতি দমন কমিশনে অভিযোগ দায়ের করা। তিনি অভিযোগে বলেন- আবদুস সোবহান গোলাপ ২০১৪-১৫ সালে এম.পি থাকাকালীন নিউইয়র্কে ৯টি প্রপার্টিজ করেছেন, যা তিনি এখন পর্যন্ত স্বীকার করেননি এবং ২০১৮ সালে নির্বাচনী হলফনামায় এসব তথ্য গোপন করেছেন। যদিও আবদুস সোবহান গোলাপ এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন এবং ব্যারিস্টার সুমনের বিরুদ্ধে আদালতে ৫০০ কোটি টাকার মানহানীর মামলা করেছেন। ব্যারিস্টার সুমন বয়সে তরুন, আইনজ্ঞ ও সাহসী। সেকারণে তিনি কিছু কাজ করে জাতীয় রাজনীতিতে বিদ্যমান অচলয়াতন দূর করতে পারেন। প্রথমত ধরা যাক, তিনি খোয়াই নদীটি পরিস্কার করেছেন- এ কাজটি তাঁর নয়, এ কাজটি হলো পৌরসভার। পৌরসভা নদীটি কেন পরিস্কার রাখে না, তার উত্তর খোঁজা দরকার। শুধু খোয়াই নদী কেন, রাজধানীর পাশ^বর্তী বুড়িগঙ্গা, শীতলক্ষ্যাসহ সমগ্র জেলা শহরে প্রবাহিত ছোট ছোট নদীগুলোর একই অবস্থা। স্থানীয় সরকারগুলো কার্যকর না থাকায় নাগরিকদের নাগরিক বোধ (ঈরারপ ংবহংব) জাগ্রত হয়নি এবং হচ্ছে না। ফলে খোয়াই নদীটি আগামী দু-এক বছরের মধ্যেই পুনরায় ময়লা-আবর্জনার ভাগাড়ে পরিণত হবে না- এর গ্যারান্টি কোথায়! সেজন্য কাজ পৃথকীকরণ ও ভূমিকা নির্দিষ্টকরণ তত্তে¡র আলোকে সমস্যাটির সমাধান খুঁজে বের করতে হবে। বাংলাদেশে একটি মাত্র সরকার ব্যবস্থা বিদ্যমান থাকায় সকল স্থানীয় কাজকে জাতীয় কাজ মনে করা হয়। স্থানীয় প্রতিনিধিরা স্থানীয় কাজের জন্য নির্বাচিত হলেও তারা সর্বক্ষণ জাতীয় রাজনীতি নিয়ে মশগুল থাকেন। সেজন্য দুই প্রকারের সরকার ব্যবস্থা তথা কেন্দ্রীয় সরকার ও স্থানীয় সরকার ব্যবস্থা সমাধান দিতে পারে। তার আগে নগরায়নের বাস্তবতাকে মেনে নিয়ে স্থানীয় সরকারের স্তরবিন্যাস করে গ্রামীণ স্থানীয় কাজ ও নগরীয় স্থানীয় কাজ গ্রামীণ ও নগরীয় ইউনিটগুলোর মধ্যে নির্দিষ্ট করে দিতে হবে। প্রতিটি জেলা থেকে ২ জন প্রতিনিধি নিয়ে জাতীয় সংসদের উচ্চ কক্ষ সৃষ্টি করতে হবে। তাছাড়া রাষ্ট্রের সর্বক্ষেত্রে সমহারে নারীদের ক্ষমতায়ন করার পদক্ষেপ নিতে হবে। সকলের জানা রয়েছে, জাতীয় সংসদে জাতীয় সমস্যা নিয়ে বিতর্ক হয় এবং সমাধানের জন্য আইন তৈরি করা হয়। ১৯৯১,১৯৯৬ ও ২০০৯ সালের সংসদ অত্যন্ত প্রাণবন্ত ছিল। জনগণ দর্শক গ্যালারীতে বসে আইন প্রণেতাদের বিতর্ক শুনতেন। স্ট্যান্ডিং কমিটিগুলো কার্যকর ছিল। কিন্তু পরবর্তীতে সংসদে শক্তিশালী বিরোধী দল না থাকায় ২০১৪ ও ২০১৮ সালের সংসদ সেরকম প্রাণবন্ত ছিল না। ব্যারিস্টার সুমন দ্বাদশ সংসদে স্বতন্ত্র দলীয় প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন। এর আগে ১১ টি সংসদের কার্যক্রম এদেশের জনগণ প্রত্যক্ষ করেছে। প্রতিটি সংসদে বহু বিতর্ক হয়েছে ও দেশ-বিদেশের রাজনীতিসহ জাতির ইতিহাস উঠে এসেছে। ১৯৭৩ সালে ১ম সংসদে ২৯২ জন সদস্যই ছিলেন সরকার দলীয়। সেই সংসদের বহু সদস্যের নাম জনগণ ভুলে গেছে; কিন্তু স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য আবদুল্লাহ সরকারের নাম বহু মানুষ মনে রেখেছেন। কারণ তিনি সরকারের বিভিন্ন অনিয়ম ও ভুল পদক্ষেপের বিরুদ্ধে যথাপোযুক্ত প্রতিবাদ করেছিলেন (পড়–ন: ৭৩ এর সংসদ ও একজন আবদুল্লাহ সরকার)। বিষয়টি ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমনের মনে রাখা অতীব জরুরি।
লেখক- গণতন্ত্রায়ন ও গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকার বিষয়ক গবেষক।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here