রাজনীতির জন্য অশনি সংকেত

0
202
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: আওয়ামী লীগ সরকারের জনপ্রিয়তার প্রেক্ষিতে টানা তৃতীয়বার রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় বসার সুবাদে সুবিধাবাদী রাজনৈতিক নেতারা চরিত্র পাল্টাচ্ছেন সময়ের সাথে সাথে। দল পাল্টিয়ে রাজনীতিতে নাম লেখিয়ে অনৈতিক সুবিধা আদায় করছেন এই অসাধু রাজনীতিবিদরা। বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফাঁস হওয়া তথ্যের ভিত্তিতে বিষয়টির সত্যতা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া গিয়েছে।
এদিকে অনৈতিক সুবিধা আদায়ে দল পাল্টানোর খেলায় মত্ত সুবিধাভোগীদের জন্য দেশের রাজনীতি কলঙ্কিত হচ্ছে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। তাদের মতে, আদর্শ পরিবর্তন, নীতি-নৈতিকতা বিসর্জন দিয়ে রাজনীতিকে কলুষিত করছেন এসব মৌসুমি রাজনীতিবিদরা।
সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিজিটিং কার্ড সাধারণ মানুষের মাঝে হাস্যরস সৃষ্টি করেছে। কার্ডটি নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার চৌমুহনীর খুরশিদ আলমের। ঠিকানা ও পদবি এক রেখে শুধু রাজনৈতিক পরিচয় বদল করেছেন খুরশিদ আলম। আগে ছিলেন ‘শহীদ জিয়া একতা ক্লাব’-এ, এখন হয়েছেন ‘বঙ্গবন্ধু একতা ক্লাব’-এর সভাপতি। গত কয়েক দিন ধরে দুটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, পৌর এলাকার গনিপুরের খুরশিদ আগে বিএনপি করলেও এখন রাতারাতি আওয়ামী লীগার হয়েছেন। সেই সঙ্গে স্থানীয় ঠেলাগাড়ির শ্রমিকদের সংগঠনের নেতাও তিনি।
রাজনৈতিক চরিত্র পরিবর্তনের বিষয়ে বিশিষ্ট রাজনৈতিক বিশ্লেষক অধ্যাপক এ আরাফাত বলেন, খুরশিদ আলমকে দোষ দিয়ে লাভ নেই। অনেক ‘খুরশিদ’ এখন রাতারাতি খোলস পাল্টে ‘আওয়ামী লীগার’ হয়ে যাচ্ছেন। সবখানেই এখন আওয়ামী লীগার হওয়ার প্রতিযোগিতা চলছে। মুজিব কোট লাগিয়ে দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন পাড়া-মহল্লা। এছাড়া রাজধানীর অভিজাত এলাকায় মুজিব কোট বানানোর হিড়িক পড়েছে। শুধু রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মীই নন, অনেক পেশাজীবীও এখন টক শোতে মুজিব কোট পরা শুরু করেছেন। নিজেকে ‘আওয়ামী লীগার’ প্রমাণ করতে প্রাণপণ চেষ্টা করছেন। একটি বিষয় সকলেই জানেন, অতি ভক্তি চোরের লক্ষণ। এসব মৌসুমি, সুবিধাবাদী এবং নীতিহীন রাজনীতিবিদদের জন্য কলুষিত হচ্ছে রাজনীতি। তাদের বাড়াবাড়ির কারণে রাজনীতির প্রতি শ্রদ্ধা হারাতে পারে তরুণ প্রজন্ম। প্রতিটি রাজনৈতিক দলগুলোকে হাইব্রিড ও উঠতি নেতাদের অবাধ বিচরণ রোধ করতে সচেতন হতে হবে।
বিষয়টিকে রাজনীতির জন্য অশনি সংকেত হিসেবে দাবি করে বিশিষ্ট রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও সাবেক শিক্ষক অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন বলেন, বিষয়টি দুঃখজনক হলেও সত্য যে, বিগত সময়ের সব রেকর্ড ভঙ্গ করে চলছে দল ও পরিচয় পাল্টানোর প্রতিযোগিতা। বিভিন্ন মহলে বাড়ছে তাদের অযাচিত ভিড়। কেউ কেউ আওয়ামী লীগের নেতা উল্লেখ করে ভিজিটিং কার্ডও বিলি করছেন। অথচ খোঁজ নিলে দেখা যাবে তারা অতীতে বিএনপি-জামায়াতের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। ক্ষমতার ধারাবাহিকতা থাকায় আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশকারীর সংখ্যা বাড়ছে। রাতারাতি দল বদল করে বিএনপি-জামায়াত থেকে আওয়ামী লীগ ‘তকমা লাগানো’র প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। বিষয়টি রাজনীতির জন্য অশনি সংকেত। এক সময় দেখা যাবে কৌশলে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে দলকে বদনাম করবে। এটি বিরোধী দলের ভিন্ন রাজনৈতিক কৌশলও হতে পারে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here