লিলিকে মহিলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দেখতে চায় তৃণমূলের নেতৃবৃন্দ

0
177
728×90 Banner

নাসির উদ্দীন বুলবুল : আগামীকাল ২৬শে নভেম্বর অনুষ্ঠিত হবে মহিলা আওয়ামীলীগের সম্মেলন। আর এই সম্মেলনের মাধ্যমে আসবে মহিলা আওয়ামীলীগের নতুন কমিটি । তাই মহিলা আওয়ামীলীগের অনেক নেতাকর্মীরা বলছেন, আওয়ামী লীগের দুঃসময়ের কাণ্ডারীদের মধ্যে অন্যতম বর্তমান মহিলা আওয়ামীলীগের প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক নীলিমা আক্তার লিলি । অভিজ্ঞ ও সিনিয়র রাজনীতিক হিসেবে সর্বমহলে তার গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে ।সেজন্য সাধারন সম্পাদক পদে তিনি বেশ এগিয়ে রয়েছেন বলে মন্তব্য করেছেন অনেকে । সামাজিক, শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে অবদান রেখে চলছেন তিনি ।
তৃণমূল থেকে কেন্দ্রীয় পর্যায়ে বিভিন্ন নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলে জানাযায়, বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগের এই সম্মেলন নিয়ে বিভিন্ন পদ প্রার্থীদের প্রচারণার কমতি নেই। এক্ষেত্রে সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী হিসেবে আলোচনায় শীর্ষে রয়েছেন বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির প্রচর ও প্রকাশনা সম্পাদক নীলিমা আক্তার লিলি।


নীলিমা আক্তার লিলি ছাত্র জীবন থেকেই রাজনীতির সাথে যুক্ত । তিনি ১৯৮৯ সালে টঙ্গী সরকারী কলেজের ছাত্রী বিষয়ক সম্পাদিকার দায়িত্ব পালন করেছেন, ১৯৯১ সালে উক্ত কলেজে ছাত্র সংসদের নির্বাচিত কক্ষ সমাপাদিকা, ১৯৯৩ সালে ছাত্র লীগ মনোনীত জি এস নির্বাচিত হন, ১৯৯৮ সাল থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত গাজীপুর জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন, গাজীপুর জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন আহ্বায়কের দায়িত্ব পালন করেছে ।
এ ছাড়াও তিনি বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের সাথে যুক্ত রয়েছেন ।
জানাযায়, নীলিমা আক্তার লিলি বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগের এক উজ্জ্বল নক্ষত্র। তার পিতা ডাঃ আব্দুর লতিফ ভুইয়া ছিলেন একজন বিশিষ্ট সমাজসেবক এবং সফল রাজনীতিবিদ। তিনি উত্তরখান ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এবং উত্তরখান মৈনারটেক হাই স্কুল, কাচকুড়া কলেজ ও চানপাড়া মহিলা মাদ্রসার প্রতিষ্ঠাতা। তার স্বামী কাজী ইলিয়াস আহমেদ ও ছাত্রজীবন থেকে নিজেকে রাজনৈতিক অঙ্গনে বিলিয়ে দিয়েছেন তিনি গত ১৯নভেম্বর গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলনে সাধারণ সম্পাদক প্রার্থিতা ও সম্মেলন অবধি গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। নিলিমা ও ইলিয়াসের একমাত্র সন্তান সারাফ সাল-সাবিল। সারাফ বর্তমানে শান্ত মরিয়ম ইউনিভার্সিটি ইন্টেরিয়র আর্কিটেকচার এ অধ্য্যনরত রয়েছেন।
বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন ঘিরে বর্তমান সময়ে স্থানীয় রাজনৈতিক মহল, ভক্ত, শুভাকাঙ্খীরা তাকে নিয়ে ফেসবুকসহ বিভিন্ন যোগাযোগ মাধ্যমে স্টাটাস দিয়ে নিলিমা আক্তার লিলিকে সাধারণ সম্পাদিকা হিসেবে দেখতে চাওয়ায় তিনি প্রার্থী হিসেবে অংশগ্রহণ করেন। গাজীপুরসহ দেশব্যাপী মহিলা আওয়ামীলীগ, স্থানীয় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ মনে করেন, নীলিমা আক্তার লিলি একজন সৎ ও যোগ্য লোক। বিশেষ করে মহিলা আওয়ামীলগের একজন আইকন। সে বিবেচনায় নীলিমা আক্তার লিলির মত তৃনমুলে কর্মীবান্ধব ও দলের সক্রীয় নেত্রীকে বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা উচিত বলে মনে করেন তৃণমূলের নেতৃবৃন্দ।
এ প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামীলীগের কেন্দ্রিয় কমিটির প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক নীলিমা আক্তার লিলি বলেন, বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধু শব্দটি একে অপরের সাথে পরিপূরক হলেও আওয়ামী লীগ শব্দটি না থাকলে যেন সেটি পূর্ণতা পায়না। বাংলাদেশ, বঙ্গবন্ধু ও আওয়ামী লীগ এই তিনটি শব্দ একে অপরের পরিপূরক । আওয়ামী লীগ, বঙ্গবন্ধু ও বাঙালির ২৪ বছরের লড়াই-সংগ্রামের মাধ্যমে বাংলাদেশের জন্ম ।
লাখো শহীদের রক্ত আর দুই লাখ মা-বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে আমরা এই দেশ পেয়েছি । ১৭৫৭ সালে পলাশীর যুদ্ধের মাধ্যমে এই বাংলার স্বধীনতার যে সূর্য অস্তমিত হয়েছিল, তা আবার বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে ফিরে পায় এই বাংলার মেহনতি মানুষ । ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন ঢাকার রোজ গার্ডেনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠিত হয়।
বঙ্গবন্ধুকে হত্যাকাণ্ডের পর দীর্ঘ সংগ্রাম করে ১৯৯৬ সালে সরকার গঠন করেন বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা। ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর ৯ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২৩০টি আসনে জয় লাভ করে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে সরকার গঠন করেন । তবে স্বাধীনতার পর কালোশক্তির নানা নীলনকশায় স্বাধীনতা অর্জনে মুখ্য ভূমিকা পালনকারী এই দলকে থাকতে হয়েছে ক্ষমতার বাইরে । তবে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রতি এই দেশের তৃণমূল মানুষের ভালোবাসা পাল্টে দিয়েছে ইতিহাসকে ।
বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু সরকারের সাড়ে তিন বছর এবং ১৯৯৬ সালে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ৫ বছর, সর্বশেষ ২০০৯ সাল থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত আওয়ামী লীগ সরকার পরিচালনা করছে ।
২০০৮ সালের নির্বাচনী অঙ্গীকার অনুযায়ী, ২০২১ সালের মধ্যে ক্ষুধা, দারিদ্রমুক্ত, আধুনিক বিজ্ঞান ও তথ্য-প্রযুক্তি নির্ভর সুখী-সমৃদ্ধ ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ গড়াসহ বাংলাদেশকে একটি মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠার প্রত্যয় নিয়ে কাজ করছে দলটি ।
ইতোমধ্যে ২১সালের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ায় অনেকদূর এগিয়েছে দলটি। ২০১৮ সালে নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগ সরকার ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি উন্নত রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠার অঙ্গীকার করে। ফলে দেশের জনগণ আবারো বিপুল ভোটে ক্ষমতায় আনে এই দলটিকে ।
মহিলা আওয়ামীলীগ নেত্রী নীলিমা আক্তার লিলি আরও বলেন, জয়বাংলা, জয়বঙ্গবন্ধু শ্লোগানটা কোন দলের নয়, সারা বাংলাদেশের, সারা বাংলার মানুষের। এই শ্লোগান আমাদেরকে একযোগে অন্যায়ের বিরুদ্ধে, দুঃশাসনের বিরুদ্ধে লড়াই করার সাহস দেয়। এই শ্লোগান চিরদিন অম্লান থাকবে ।
যারা আমাদের বাক স্বাধীনতা, ভোটের অধিকার, আমাদের চিন্তা মননকে বন্দুক ঠেকিয়ে বন্ধ করে দিতে চায়, তাদের উদ্দেশ্যে একটা কথা বলতে চাই, পরিস্তিতি যখন যেটা বলে দেবে সেই হিসাবে মোকাবেলা করার জন্য আমাদের সকলকে প্রস্তুত থাকতে হবে ।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here