স্বাস্থ্যের ড্রাইভার মালেকের পরিবারের সদস্যদের আইনের আওতায় আনার দাবী

0
12
728×90 Banner

মোল্লা তানিয়া ইসলাম তমাঃ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তৃতীয় শ্রেণীর সাধারণ কর্মচারী হয়েও ঢাকার বিভিন্ন স্থানে একাধিক বিলাসবহুল বাড়ি, গাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের গাড়ি চালক আব্দুল মালেক ওরফে ড্রাইভার মালেক ওরফে সচিব সাহেব ওরফে বাদল (৬৩) । জাল টাকার ব্যবসা ছাড়াও এলাকায় তিনি চাঁদাবাজিতে জড়িত ছিল । শুধু তাই নয়, বিভিন্ন ব্যাংকে নামে-বেনামে বিপুল পরিমাণ অর্থ গচ্ছিত রয়েছে বলে জানিয়েছেন, এলিট ফোর্স র্যা পিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র্যা ব) । তাই বিজ্ঞজনেরা মনে করেন মালেকের এতসব অপকর্মে তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যরাও সরাসরি সহায়তা করেছে । আর একজন অপরাধীকে সহায়তা করার কারনে সহায়তা কারীদেরকেও আইনের আওতায় আনার জন্য প্রশাসনের প্রতি জোর দাবী জানিয়েছেন এলাকার সুশীল সমাজ, রাজনিতিক, সামাজিক সহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ । রাজধানীর তুরাগ এলাকা থেকে অবৈধ অস্ত্র, জাল নোট ব্যবসা ও চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে রোববার ( ২০ সেপ্টেম্বর ) ভোরে র্যা ব-১ এর একটি দল গাড়ি চালক ড্রাইভার মালেক ওরফে বাদল (৬৩) কে গ্রেপ্তার করে । এ সময় তার কাছ থেকে একটি বিদেশী পিস্তল, একটি ম্যাগাজিন, ৫ রাউন্ড গুলি, দেড় লাখ বাংলাদেশী টাকার জাল নোট, একটি ল্যাপটপ ও মোবাইল উদ্ধার করা হয় । এ ব্যাপারে র্যা ব-১-এর অধিনায়ক (সিও) লেফটেন্যান্ট কর্নেল শাফী উল­াহ বুলবুল জানিয়েছিলেন: স¤প্রতি র্যারবের প্রাথমিক গোয়েন্দা অনুসন্ধানে রাজধানীর তুরাগ এলাকায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের জনৈক গাড়ি চালক ড্রাইভার মালেক ওরফে বাদলের বিরুদ্ধে অবৈধ অস্ত্র ব্যবসা, জাল টাকা ব্যবসা, চাঁদাবজিসহ বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের অভিযোগ পাওয়া যায় । তার বিরুদ্ধে সরেজমিন অনুসন্ধানে জানা যায়, তিনি তার এলাকায় সাধারণ মানুষকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে শক্তির মহড়া ও দাপট প্রদর্শনের মাধ্যমে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছেন এবং জনজীবন অতিষ্ঠ করে তুলেছেন । তার ভয়ে এলাকায় সাধারণ মানুষের মনে সর্বদা আতঙ্ক বিরাজ করে । তিনি দীর্ঘদিন যাবৎ সংশ্লিষ্ট এলাকায় চাঁদাবাজি, অবৈধ অস্ত্র ব্যবসা এবং জাল টাকার ব্যবসা করে আসছেন । র্যা বের অনুসন্ধানে তার আয়-ব্যায়ের সাথে দৈনন্দির জীবন যাত্রার মান ও সম্পদের বিস্তর অসামঞ্জস্যতা পরিলক্ষিত হয়। একজন তৃতীয় শ্রেণীর সাধারণ কর্মচারী হয়েও ঢাকার বিভিন্ন স্থানে তার একাধিক বিলাসবহুল বাড়ি, গাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন ব্যাংকে নামে বেনামে বিপুল পরিমাণে অর্থ গচ্ছিত আছে বলে অনুসন্ধানে জানা যায়। এরই পরিপ্রেক্ষিতে র্যামব-১ বিষয়টি আমলে নিয়ে দ্রুত ছায়া তদন্ত শুরু করে এবং গোয়েন্দা নজরদারির মাধ্যমে তাকে গ্রেপ্তার করা হয় । প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে র্যাতব-১-এর অধিনায়ক বলেন: তিনি পেশায় স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিবহন পুলের একজন ড্রাইভার। তার শিক্ষাগত যোগ্যতা ৮ম শ্রেণী। ১৯৮২ সালে সর্বপ্রথম সাভার স্বাস্থ্য প্রকল্পে ড্রাইভার হিসেবে যোগদান করেন। পরে তিনি ১৯৮৬ সালে স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিবহন পুলে ড্রাইভার হিসেবে চাকরি শুরু করেন। বর্তমানে তিনি প্রেষণে স্বাস্থ্য ও শিক্ষা অধিদফতরে কর্মরত ছিলেন । তিনি দীর্ঘ দিন যাবৎ অবৈধ অস্ত্র ব্যবসা, জাল নোট ব্যবসাসহ অস্ত্রের মাধ্যমে ভীতি প্রদর্শনপূর্বক সাধারণ মানুষের নিকট হতে বিপুল পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নিয়েছেন বলে স্বীকার করেছেন । র্যা ব-১ সিও শাফী উল­াহ বুলবুল বলেন: জিজ্ঞাসাবাদে আব্দুল মালেকের স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তির একটি আনুমানিক হিসাব র্যানবের নিকট আসে। জানা গেছে, তার স্ত্রীর নামে ২টি ৭তলা বিলাসবহুল ভবন আছে, হাতিরঝিল এলাকায় সাড়ে ৪ কাঠা জমিতে একটি নির্মাণাধীন ১০তলা ভবন আছে । রাজাবাড়ি এলাকায় ১৫ কাঠা জমিতে একটি ডেইরি ফার্মসহ ধউর মৌজাতেই ছোট বড় ৭টি প্লট রয়েছে । এছাড়াও বিভিন্ন ব্যাংকে নামে-বেনামে বিপুল পরিমাণ অর্থ গচ্ছিত আছে বলেও জানা যায় । র্যা বের এই কর্মকর্তা বলেন: ড্রাইভার মালেক ওরফে বাদল অস্ত্র ও জাল টাকার ব্যবসায় জড়িত থাকায়, অস্ত্র ও জাল টাকা উদ্ধারের ঘটনায় সংশ্লিষ্ট আইনে তুরাগ থানায় পৃথক দুটি মামলা হয় । উক্ত ২ মামলায় আদালত তার ১৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন । বর্তমানে তিনি ( ৩ অক্টোবর পর্যন্ত ) ১০তম দিনের রিমান্ডে রয়েছেন এবং ভাল আছেন বলে জানান মামালার তদন্ত কর্মকর্তা তুরাগ থানার পুলিশের উপ- পরিদর্শক ( এস আই ) মোঃ রুবেল শেখ । আর তার গ্রেপ্তারের পর থেকেই এলাকার বিভিন্ন শ্রেণী পেশরা মানুষ তার পরিবারের অন্য সদস্যদের গ্রেপ্তারের দাবী জানিয়ে আসছেন । বর্তমানে গাড়ি চালক ড্রাইভার মালেক ওরফে বাদল ও তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের ব্যাপারে অনুসন্ধান অব্যাহত রয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রশাসন ।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here