১১ দফা দাবিতে হঠাৎ ধর্মঘটে ক্রিকেটাররা

0
45
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর স্পোর্টস ডেস্ক: প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে পারিশ্রমিক বাড়ানোসহ ১১ দফা দাবি নিয়ে প্রথমবারের মতো সব ধরনের আসর থেকে বিরত থেকে ধর্মঘটের ডাক দিয়েছেন দেশের ক্রিকেটাররা। তাদের দাবি দাওয়ার মধ্যে রয়েছে, ম্যাচ ফি বাড়ানো, প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগে পছন্দমতো দল বদলের সুযোগ দেওয়া, ওয়ানডে টুর্নামেন্টের সংখ্যা বাড়ানো, বিপিএলে দেশি ও বিদেশি ক্রিকেটারদের পারিশ্রমিকের সামঞ্জস্য থাকা প্রভৃতি। অবশ্য এসব দাবি ক্রিকেটারদের বহুদিনের। দাবিগুলো নিয়ে জনে জনে কথা বলছেন ক্রিকেটাররা। কিন্তু আনুষ্ঠানিকভাবে ক্রিকেট বোর্ডকে জানাননি কখনোই। টাইগার অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের নেতৃত্বে জাতীয় দলের বর্তমান ও সাবেক ক্রিকেটাররা একাট্টা হয়ে গতকাল মিডিয়ার মুখোমুখিতে লিখিত আকারে ১১ দফা দাবি পেশ করে সব ফরম্যাটের ক্রিকেটে ধর্মঘটের ডাক দেন। দাবি না মানা পর্যন্ত তারা মাঠে না নামার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এ নিয়ে হতবাক হয়েছেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল। তিনি সোমবার গণমাধ্যমকে বলেন, ‘দাবি দাওয়ার বিষয়গুলো ক্রিকেটাররা আমাদের আনুষ্ঠানিকভাবে জানাতে পারতেন’। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান মিডিয়ার মুখোমুখিতে যখন বলেন, দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত সব ফরম্যাটের ক্রিকেটে বিরত থাকবেন, তখন মিরপুর একাডেমি মাঠে উপস্থিত তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, নুরুল হাসান সোহান, এনামুল হক বিজয়সহ উপস্থিত শ খানেক ক্রিকেটার হাততালি দিয়ে একাত্মতা ঘোষণা করেন। তবে ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা সেখানে উপস্থিত ছিলেন না। এ নিয়ে তার কোনো বক্তব্যও পাওয়া যায়নি।
ক্রিকেটারদের এমন দাবির মুখে ২৪ অক্টোবর জাতীয় ক্রিকেটের তৃতীয় রাউন্ড মাঠে গড়ানো সংশয়ে পড়ে গেছে। অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে টাইগারদের ভারত সফর। তবে বিশ্বকাপের প্রস্তুতি হিসেবে অনূর্ধ্ব-১৯ দলকে ধর্মঘটের বাইরে রেখেছেন ক্রিকেটাররা। বেশ কিছুদিন ধরেই ক্রিকেট পাড়ায় গুঞ্জন ছিল, পারিশ্রমিক বাড়ানোর দাবিতে আন্দোলনে যাবেন জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা। কিন্তু কবে থেকে, তা স্পষ্ট ছিল না। সোমবার সকালে হঠাৎ করেই ক্রিকেটারদের পক্ষ থেকে জানানো হয়, বেলা ২টায় মিডিয়ার মুখোমুখি হয়ে কথা বলবেন তারা। বেলা ২টা বাজার আগেই মিরপুর একাডেমি মাঠে একে একে উপস্থিত হন সাকিব, তামিম, মুশফিক, মাহমুদুল্লাহ, এনামুল হক বিজয়, নুরুল হাসান সোহান, ফরহাদ রেজা, জুনায়েদ সিদ্দিকী, এনামুল জুনিয়র, তাইজুল ইসলাম, মোহাম্মদ সাইফুদ্দিনসহ জাতীয় দলের বর্তমান ও সাবেক ক্রিকেটাররা। বেলা আড়াইটায় মিডিয়ার মুখোমুখিতে একজন একজন করে ১১ ক্রিকেটার নিজেদের দাবিগুলো উপস্থাপন করেন। সবার আগে দাবি পেশ করেন নাঈম ইসলাম এবং সবার শেষে অলরাউন্ডার ফরহাদ রেজা। দাবি-দাওয়া পেশ করার পর দলনেতা হিসেবে নিজেদের অবস্থান পরিষ্কার করে সাকিব আল হাসান মিডিয়াকে বলেন, ‘দাবিগুলো পূরণ না হওয়া পর্যন্ত সব ফরম্যাটের ক্রিকেট খেলা থেকে আমরা বিরত থাকব। শুধু জাতীয় দল কিংবা প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট নিয়েই বলতে চাইছি না। ঘরোয়া লিগের প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় বিভাগের ক্রিকেট নিয়েও বলছি। এসব লিগের ম্যাচগুলোতে মাঠে নামার আগেই কোন দল জিতবে তার ফল জানা যায়। দু-তিন দিন বাজে সিদ্ধান্তে আউট হওয়ার পর একদিন ভালো বলে আউট হলে দেখা যায়, একজন খেলোয়াড়ের ক্যারিয়ারই শেষ হয়ে যায়। কিন্তু দেশের ক্রিকেটের ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল করতে আমাদের পাইপলাইন ঠিক রাখতে হবে। ভবিষ্যতের খেলোয়াড় নিশ্চিত করতে হলে এসবে নজর দিতে হবে। নারী ক্রিকেটাররাও তাদের দাবিদাওয়া নিয়ে আমাদের সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে পারবেন।’ বেতন-ভাতা নিয়ে আন্দোলন করেছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও জিম্বাবুয়ের ক্রিকেটাররাও। বোর্ডের সঙ্গে আন্দোলন করে সে দেশের ক্রিকেট এখন অস্তমিত। ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা এমনটা চাইছেন না। বাংলাদেশে এবারই প্রথম আন্দোলনে যাননি ক্রিকেটাররা। ১৯৯৫ সালে ঘরোয়া ক্রিকেটে সুযোগ-সুবিধা বাড়ানোর পাশাপাশি টার্ফ উইকেটে ক্রিকেট খেলার দাবিতে রাস্তায় নেমেছিলেন ক্রিকেটাররা। এ ছাড়া প্রিমিয়ার ক্রিকেটের পাওনা টাকা আদায়েও অবস্থান ধর্মঘট করেছেন তারা। কিন্তু এবারই প্রথম দাবি-দাওয়া নিয়ে বড় ধরনের ধর্মঘটে গেলেন দেশের সর্বোচ্চ মানের ক্রিকেটাররা। মিডিয়ার মুখোমুখিতে শুরুতেই ‘ছক্কা’ নাঈম ক্রিকেটারদের সংগঠন কোয়াব ভেঙে দেওয়ার দাবি জানান। নিজেরাই নির্বাচন করে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করবেন বলে জানান জাতীয় দলের সাবেক এই ক্রিকেটার। কোয়াবের যাত্রা শুরু ১৯৯৯ সালে। দ্বিতীয় দাবি পেশ করেন টাইগারদের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান মাহমুদুল্লাহ। তিনি বলেন, ঢাকা প্রিমিয়ার ক্রিকেটে ক্রিকেটাররা কে কোন ক্লাবে খেলবেন, পারিশ্রমিক কত হবে, এর সিদ্ধান্ত নেবেন ক্রিকেটাররা। তৃতীয় দাবির কথা বলেন জাতীয় দলের টেকনিক্যাল ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম। তিনি জানান, ‘বিপিএলের বর্তমান আসরকে সম্মান জানাই। কিন্তু আগামী বছর থেকে বিপিএল যেন আগের নিয়মে হয়। দেশি ও বিদেশি ক্রিকেটারদের পারিশ্রমিকের সামঞ্জস্য থাকতে হবে। পারিশ্রমিকের তারতম্য ঠিক করতে হবে। বিদেশি লিগগুলোর মতো ড্রাফটে কোন ক্রিকেটারকে কোন গ্রেডে রাখা হবে সে সিদ্ধান্ত সেই ক্রিকেটারকে নিতে দিতে হবে।’ চার নম্বর দাবির শুরুতেই টাইগার অধিনায়ক সাকিব আল হাসান জাতীয় ক্রিকেটে ম্যাচ ফি ১ লাখ টাকা করার কথা বলেন। এ ছাড়া খেলোয়াড়দের সুযোগ-সুবিধা বাড়ানোর কথা বলেন তিনি। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ক্রিকেটারদের ভালো পারফর্ম করার জন্য সুযোগ-সুবিধা বাড়াতে নিজস্ব মাঠ, ফিটনেস ঠিক রাখতে জিম, সুইমিং পুল, কোচ, ফিজিও এবং ট্রেনার নিয়োগ দেওয়ারও দাবি জানান সাকিব।
বাংলাদেশের প্রথম টেস্ট জয়ের নায়ক বাঁহাতি স্পিনার এনামুল হক জুনিয়র জাতীয় দলের চুক্তিভুক্ত ক্রিকেটারের সংখ্যা বাড়ানোর কথা বলেন। বর্তমানে চুক্তিভুক্ত ক্রিকেটারের সংখ্যা ১৬। এটি বাড়িয়ে ৩০ করতে বলেন বাঁহাতি এই স্পিনার। একই সঙ্গে বেতন বাড়াতেও বলেন এনামুল। বাঁহাতি ড্যাশিং ওপেনার তামিমের দাবি দেশি কোচ, ট্রেনার, ফিজিও, আম্পায়ার, গ্রাউন্ডসম্যানদের বেতন বাড়ানোর পাশাপাশি সুযোগ-সুবিধা বাড়ানোর। জাতীয় ক্রিকেটে ৫০ ওভারের টুর্নামেন্ট সংযোজনের দাবি জানান এনামুল হক বিজয়। নুরুল হাসান সোহানের দাবি নির্দিষ্ট ক্যালেন্ডারের। জুনায়েদ সিদ্দিকী প্রিমিয়ার ক্রিকেটে বকেয়া টাকা যেন নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই পেয়ে যান ক্রিকেটাররা এ দাবি তোলেন। আর ফরহাদ রেজা দাবি করেছেন, দুটির বেশি ফ্র্যাঞ্চাইজি খেলার অনুমতি। ক্রিকেটারদের দাবিগুলো যৌক্তিক মানছেন ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা। তারা মনে করেন, এ সংকট উত্তরণের জন্য ক্রিকেটারদের দাবি মেনে ক্রিকেট বোর্ড যেন দ্রুত পদক্ষেপ নেয়, তাতেই মঙ্গল দেশের ক্রিকেটের।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here