অনুপ্রবেশকারীদের ভিড়ে হারিয়ে যাচ্ছে তৃণমূলের নেতা কর্মীরা

0
65
728×90 Banner

মোল্লা তানিয়া ইসলাম তমা : যে কোন রাজনৈতিক দলের আদর্শে উদ্বুদ্ধ হয়ে নতুন কর্মীরা যোগদান বা প্রবেশ করবে এটা স্বাভাবিক প্রক্রিয়া । কিন্তু বুঝতে হবে কোনটি প্রবেশ, কোনটি অনুপ্রবেশ । এক্ষেত্রে অনুপ্রবেশ শব্দটি ব্যাখ্যা করা প্রয়োজন । ইংরেজি শব্দ ওহভরষঃৎধঃব এর সমার্থক শব্দ ‘চবহবঃৎধঃবদ। বাংলা অর্থ: ১ ‘অনুপ্রবেশ করা ‘বা ‘গোপন এবং অবৈধ প্রবেশ । ২ (সেনাদল সম্বন্ধে) অলক্ষ্যে শত্রæপক্ষের প্রতিরক্ষা-ব্যুহ ভেদ করা। এই শব্দের ব্যাখ্যা: বিশেষ করে গোপন তথ্য অর্জন বা ক্ষতির কারণ হিসাবে কোনও সংস্থা বা স্থানটিতে গোপনীয়তার সাথে প্রবেশ বা প্রবেশের ক্রিয়া।(‘|enter or gain access to an organization, place, etc. surreptitiouslz and graduallz, especiallz in order to acquire secret information.) রাজনীতিতে ‘অনুপ্রবেশকারী’ শব্দটি বিতর্কিত টার্ম। কে কখন কীভাবে একটি দলে প্রবেশ করেন এবং কখন তার এই প্রবেশকে অনুপ্রবেশ হিসেবে চিহ্নিত করা হবে—সেটি পারিপার্শিক অনেক কিছুর উপরে নির্ভর করে। এটা চিহ্নিত করার সর্বজন গ্রহনযোগ্য কোনো মানদÐ নেই। প্রতিটি রাজনৈতিক দলের নির্দিষ্ট আদর্শ ও কিছু নীতিমালাসহ গঠনতন্ত্র থাকে। সেই আদর্শ ও নীতিমালা মেনে যে কোনো লোকই সংগঠনের সদস্য হতে পারেন বা প্রবেশ করতে পারেন। কিন্তু একসময় যিনি মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী সংগঠন জামাত করতেন, জামাতের অনুসারী ছিলেন বা ১৯৭৫ এর ১৫ আগষ্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকাÐের বেনিফিশিয়ারি জিয়ার আদর্শে গঠিত সংগঠন করতেন, বা জিয়ার আদর্শের অনুসারী ছিলেন, তাকে নিশ্চয়ই মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের দল আওয়ামী লীগে সদস্য করা সম্ভব নয়। কারন আদর্শিক পার্থক্য। এটিই স্বাভাবিক। কিন্তু ইদানিং লক্ষ্য করা যাচ্ছে জামায়াত-বিএনপি রাজনীতির সাথে যুক্ত প্রচুর লোক আওয়ামী লীগে যোগ দিয়েছেন, প্রতিনিয়ত যোগ দিচ্ছেন। স্থানীয় এবং কেন্দ্রীয় নেতাদের হাতে ফুলের তোড়া দিয়ে তারা আওয়ামী লীগে যোগ দিয়েছেন, এরকম অজস্র ছবি গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। পত্রিকা ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারিত তথ্য অনুযায়ী, ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনেও আওয়ামীলীগ দলীয় নৌকা মার্কায় প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পেয়েছিলেন বিএনপি জামাতের বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী। ‘নৌকা‘ মার্কায় মনোনয়নপ্রাপ্ত প্রায় ডজন খানেক প্রার্থীর বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল যারা পৈতৃকস‚ত্রে রাজাকারের সন্তান বা যুদ্ধাপরাধীদের সন্তান। আওয়ামী লীগের ত্যাগী, পরীক্ষিত নেতাকর্মীরা বলছেন, আওয়ামী লীগের নৌকায় ছদ্মবেশী ডাকাত ঢুকেছে। এখন এরা সবকিছু লুণ্ঠন করবে। নৌকা ডুবিয়ে দেবে। শুধু তাই নয়, ওরা সাংগঠনিক ও প্রশাসনিক বিভিন্ন পদ-পদবীসহ সরকারের নীতি নির্ধারণী পদ জাতীয় সংসদ সদস্য এবং বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের নীতিনির্ধারণী ফোরাম কেন্দ্রীয় কমিটির পদও দখল করে নিয়েছেন । এখন প্রশ্ন হলো, জামাত-বিএনপির লোক কি কারনে মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী সংগঠন আওয়ামী লীগে যোগদান করেন? একটু পিছনে ফিরে তাকাই। আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ বিভিন্ন বক্তৃতা-বিবৃতিতে প্রায়শই বলে থাকেন, জিয়াউর রহমান দেশ স্বাধীন করার জন্য নয় অনুপ্রবেশকারী হিসেবে, পাকিস্তানের পক্ষে গুপ্তচরবৃত্তি করার জন্য মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেছে । সকল ষড়যন্ত্রকে মোকাবেলা করে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে ৩০ লক্ষ শহীদের রক্তের বিনিময়ে স্বাধীন বাংলাদেশ অর্জিত হয়েছে। কিন্তু স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি থেমে থাকেনি। পরবর্তীকালে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে পরিচালিত সরকারে সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা হিসেবে স্বাধীনতা বিরোধীদের স্বার্থ উদ্ধারে জিয়াউর রহমান গুপ্তচরবৃত্তি চালিয়ে যান। সরকারের সাথে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও দলীয় নেতাদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ স্থাপন করেন। খন্দকার মোশতাক, মাহবুবুল আলম চাষী ও তাহেরউদ্দিন ঠাকুরদের সাথে সম্পৃক্ত হয়। জিয়াউর রহমানের সন্দেহজনক গতিবিধির কারনে তৎকালীন সরকার জিয়াকে রাষ্ট্রদ‚তের দায়িত্ব দিয়ে দেশের বাইরে পাঠানোর আদেশ জারি করে। কিন্তু কয়েকজন সিনিয়র আয়ামী লীগ নেতা তদবীর করে সেই আদেশ বাতিল করিয়েছিলেন। জিয়ার নেতৃত্বে অনুপ্রবেশকারীরা সুযোগ বুঝে খন্দকার মোশতাকদের সাথে নিয়ে উচ্চাভিলাসী কয়েকজন পথভ্রষ্ট সেনাকর্মকর্তাদের দিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বপরিবারে নির্মমভাবে হত্যা করে। এই হত্যাকাÐের ম‚ল বেনিফিশিয়ারি জিয়াউর রহমান, রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা দখল করে। দল গঠন করে। জিয়ার নেতৃত্বে গঠিত দল বিএনপি সরকার ক্ষমতায় থাকাকালে স্বাধীনতা বিরোধীদের ম‚ল নেতা গোলাম আজমকে নাগরিকত্ব ফিরিয়ে দিয়ে পাকিস্তান থেকে বাংলাদেশে ফিরিয়ে আনে এবং সামরিক বাহিনীতে কর্মরত ৫ শতাধিক মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের কর্মকর্তাকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদÐ কার্যকর করে । এসবই ছিল স্বাধীনতাবিরোধী ষড়যন্ত্রের অংশ। বেগম খালেদা জিয়া ও তার পুত্র ২০০৪ সালে শেখ হাসিনাকে হত্যা করার উদ্দেশ্যে বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে গ্রেনেড হামলা করে। মহান আল্লাহর অশেষ রহমতে শেখ হাসিনা আহত হয়ে দীর্ঘদিন চিকিৎসাধীন ছিলেন। এসবই স্বাধীনতার স্বপক্ষের শক্তিকে নির্মুল করা ও স্বাধীনতার ম‚ল্যবোধকে নস্যাৎ করার জন্য। তারপর দীর্ঘ ১৮ বৎসর আন্দোলন সংগ্রামের ধারাবাহিকতায় অগনিত শহীদের রক্তের বিনিময়ে ১৯৯৬ সালে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার গঠিত হয়েছে। কিন্তু স্বাধীনতাবিরোধী ও ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্টের হত্যাকাÐের বেনিফিশিয়ারি বিএনপি- জামাতের ষড়যন্ত্র বন্ধ হয়নি। ওরা অতি সুকৌশলে ‘ক্ষমতা’র খুব কাছাকাছি থেকে প‚র্বস‚রিদের অসমাপ্ত কাজ সমাপ্তকরনে সক্রিয় রয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দুরদর্শী নেতৃত্বে খুবই সুনামের সাথে সরকার পরিচালিত হচ্ছে । বিরোধীদল সরকারের বিরুদ্ধে কোন আন্দোলন গড়ে তুলতে না পারলেও স্বাধীনতাবিরোধী ও ১৫ আগস্টের ষড়যন্ত্রকারীরা হাত গুটিয়ে বসে নেই । গত ৩১ আগস্ট ২০২১, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ আয়োজিত জাতীয় শোক দিবসের কর্মস‚চিতে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধ শক্তি ও ১৫ আগস্টের খুনিদের দোসররা এখনও ষড়যন্ত্র-চক্রান্ত চালিয়ে যাচ্ছে’। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যথার্থই বলেছেন। স্বাধীনতা বিরোধী ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবেই বিএনপি জামাতের লোকগুলোকে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ে বসিয়ে দিয়ে ষড়যন্ত্রের জাল তৃনম‚ল পর্যায়ে পর্যন্ত বিস্তৃত করছে। পদ-পদবী পেতে, প্রয়োজনে ওরা অর্থ বিনিয়োগ করছে । ৭৫ এর খন্দকার মোশতাকরা যেমনিভাবে সুকৌশলে বঙ্গবন্ধুর কাছের মানুষগুলো দুরে সরিয়ে দিয়েছিল, ঠিক তেমনিভাবে একালের মোশতাক (অনুপ্রবেশকারী)রা শেখ হাসিনার বিশ্বস্থ লোকগুলোকে দুরে সরিয়ে দেওয়ার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে । অনুপ্রবেশকারীরা কখনই সংগঠনের শুভাকাঙ্ক্ষী হতে পারে না । স¤প্রতি আলোচিত হচ্ছে, ২০০৮ সালের পর আওয়ামী লীগে যোগদানকারীরা অনুপ্রবেশকারী। অর্থাৎ এরপ‚র্বে আওয়ামী লীগে যোগদানকারীরা অনুপ্রবেশকারী নন। ওরা ‘হালাল‘ হয়ে গেছে কারণ, ২০০১ সাল থেকে ২০০৮ পর্যন্ত দুঃসময় ছিল । কিন্তু এটাও ঠিক, ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্টের বেনিফিশিয়ারি বিএনপি-জামাতের নেতাকর্মীরা, যারা বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারী জিয়ার আদর্শের অনুসারী, বঙ্গবন্ধুবিহীন বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিকদের নির্যাতন করেছে, বাংলাদেশ থেকে বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে ফেলতে চেয়েছিল, তারা ২০০১ সালের পর স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি আওয়ামীলীগের নীতি-আদর্শের ধারক বাহক হতে পারে না। অনুপ্রবেশকারী সবসময়ই অনুপ্রবেশকারী। রাজাকার সবসময়ই রাজাকার। নির্দিষ্ট কোন সময়ের ফ্রেমে বাঁধা যাবে না । অনুপ্রবেশকারী শব্দের আক্ষরিক ব্যাখ্যায় বলা হয়েছে: গোপন তথ্য অর্জন বা ক্ষতির কারণ হিসাবে কোনও সংস্থা বা স্থানটিতে গোপনীয়তার সাথে প্রবেশ বা প্রবেশের ক্রিয়া বা কোনও কিছুর অংশ হয়ে যাওয়ার প্রক্রিয়া। সুতরাং অনুপ্রবেশকারীরা কখনই সংগঠনের জন্য কল্যাণকর নয়, ক্ষতির কারণ। স্বাধীনতাবিরোধী ও ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্টের হত্যাকাÐের বেনিফিশিয়ারি বিএনপি-জামাতের নেতাকর্মীরা সুকৌশলে আওয়ামী লীগের ক্ষতিসাধন করার জন্য সুপরিকল্পিতভাবে নিয়মিত আওয়ামীলীগে অনুপ্রবেশ করছে। কোন নির্দিষ্ট সময়ের প‚র্বের অনুপ্রবেশকারীরা ক্ষতিকর নয়, ‘ধোয়াতুলসী‘। এ যুক্তি গ্রহনযোগ্য নয়। জিয়াউর রহমানসহ বিএনপি জামাত থেকে আসা সকল অনুপ্রবেশকারী সমান অপরাধী। স্বাধীনতার ম‚ল্যবোধ নস্যাৎ করার ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে অনুপ্রবেশকারীদের আওয়ামীলীগ থেকে বহিস্কার করা জরুরি । পদপদবী পেতে অর্থ বিনিয়োগকারী এবং অর্থ বিনিয়োগে সহায়তাকারী নেতাদেরও চিহ্নিত করা জরুরি। এরাও বর্তমান কালের ‘মোশতাক’, এরা ‘মোনাফেক‘। ইসলাম ধর্মীয় বিধানমতে, যে মুসলমান ধর্মীয় বিধান জানেন কিন্তু মেনে চলেন না, তিনি মোনাফেক। সুতরাং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যে সকল নেতাকর্মী বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও স্বাধীনতার ম‚ল্যবোধে বিশ্বাসী সেই তারা যদি অর্থের বিনিময়ে স্বাধীনতা বিরোধী বা বিএনপি জামাতের নেতাকর্মীদের আওয়ামীলীগার হিসেবে সার্টিফিকেট দেয় বা পদ-পদবী প্রদান করে তবে তারা ‘আওয়ামীলীগের মোনাফেক‘। কাজেই সময়ের এই সকল মোনাফেক নেতাদের চিহ্নিত করা জরুরি বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকগল মনে করেন । আওয়ামী লীগের প্রকৃত নেতারা মনে করছেন যে, অনতিবিলম্বে যদি আওয়ামী লীগের এই অনুপ্রবেশকারীদের দাপট ঠেকানো না যায়, বিশেষ করে যুদ্ধাপরাধী, বিএনপি জামাতের নেতাকর্মীদের অনুপ্রবেশ যদি ঠেকানো না যায় তাহলে পরে ভবিষ্যতে আওয়ামী লীগের জন্য অশনিসংকেত তৈরি হবে। বর্তমানে অনুপ্রবেশকারী, হাইব্রিড মার্কা নেতাদের দাপটে তৃণম‚ল ও যোগ্য কর্মীরা এখন কোনঠাসা হয়ে পড়ছেন । ত্যাগীদের প্রতি সংশ্লিষ্ট এলাকার দলীয় বড় বড় নেতারা মুখ ফিরিয়ে রাখেন। তাদেরকে আর এখন কাছে ভিড়তে দেয় না। তাদের ঘিরে রাখেন নব্য-সুযোগ সন্ধ্যানী নেতারা। এতে দীর্ঘদিনের পরিক্ষিত নেতারা ত্যাগের বিনিময় পাচ্ছেন লাঞ্চনা বঞ্চনা। অথচ নব্যরাই এখন লুটেপুটে খাচ্ছে । রাজনীতির মাঠে দু:সময়ে যারা আন্দোলন-সংগ্রাম, মিছিলে শ্লোগানে শ্লোগানে রাজপথ কাঁপিয়েছিলো তাদের অনেকের অবস্থ এখন করুণ। দলের দু:সময়ে তৃনম‚ল নেতা কর্মীরা প্রতিপক্ষ দলের পক্ষ নেওয়া সন্ত্রাসীবাহীনির হামলা, মামলা ও নির্যাতনের স্বীকার হয়েছিলো এবং হচ্ছে । হাজার হাজার তৃণম‚ল নেতা কর্মীদের হয়েছিলো এলাকা ছাড়তে এমন কি এখনো অনেকের এলাকা ছেড়ে থাকতে হচ্ছে অন্যত্র । স্ত্রী, সন্তান,পরিবার-পরিজন, বসত ভিটা এবং নিজ সম্পতি রেখে এলাকা থেকে পালিয়ে গিয়ে জীবন বাঁচিয়েছিলো অনেকে এমন কি এখন জীবন বাঁচাতে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন অনেকে । অনেকের বৃদ্ধা মা, বাবাকে রেখে এলাকা ত্যাগ করতে হয়েছে এবং হচ্ছে । কারো বাবা-মা মারা গেলে জানাজায় অংশগ্রহন তো দ‚রের কথা এলাকায় এসে দেখতে পর্যন্ত পায়না । দলের জন্য নিবেদীত প্রাণ এই তৃনম‚লের নেতা কর্মীরা আজও সংগ্রাম ও আন্দোলন রাজনীতিতে বিশ্বাসী । শত জুলুম, অত্যাচার এবং নির্যাতন সহ্য করার পর তাদের দল বিভিন্ন ভাবে দলের কমিটি দেয় তখন দু:সময়ে নির্যাতিত অনেক ত্যাগী নেতাকর্মীদের জায়গা হয়না সেই কমিটির কোন পদ- পদবীতে । ইদানিং কিছু অনুপ্রবেশকারী-সুবিধাবাদী রাজনীতিবিদ দলে ইনভেস্ট করছে সম্পদ কামানো নিশ্চিত করনে এতে বর্তমানে তৃণম‚লে যারা আছে তারা এখন হাহাকার করছে। তারা ম‚লত মাঠপর্যায়ের কর্মী। সাধারণ মানুষের সাথে তারা ভাল মন্দেও ভাগিদার, সেই মানুষগুলো আজ দলীয় সকল ধরনের সুবিধা বঞ্চিত হচ্ছে । আজ দলে হাইব্রিড, সুবিধাবাদী, অনুপ্রবেশকারী নেতারাই মুল্যায়ন পাচ্ছে আর তৃনম‚লে যারা ত্যাগী নেতাকর্মী আছে তারা অবহেলিত । টানা তৃতীয় দফায় ক্ষমতায় থাকায় বহিরাগত অনুপ্রবেশকারী ও সুবিধাবাদীদের দাপট বাড়ছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগে। সা¤প্রতিক সময়ে বিভিন্ন জেলার এসব ঘটনা সংবাদের শিরোনাম হচ্ছে। এ নিয়ে উদ্বিগ্ন আওয়ামী লীগের শীর্ষ নীতি-নির্ধারণী মহল। হুঁশিয়ারি সত্তে¡ও অনুপ্রবেশ ও পৃষ্ঠপোষকতা জড়িত নেতাদের থামানো যাচ্ছে না। এদের বিতর্কিত কর্মকান্ডে বিব্রতকর অবস্থায় আওয়ামী লীগের হাই কমান্ড। আসছে নির্বাচন সামনে রেখে সংগঠনটির জেলাসহ উপজেলা পর্যায়ের অভ্যন্তরীণ গ্রæপিং ও কোন্দল নিরসন করে গতিশীলতা বৃদ্ধির কার্যক্রম অনুপ্রবেশকারী ইস্যুতে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে । আওয়ামী লীগ ও সহযোগী প্রতিটি সংগঠনই বহিরাগত অনুপ্রবেশকারী সমস্যায় আক্রান্ত হয়েছে । দুর্দিনে যারা ত্যাগীর ভ‚মিকায় অবর্তীর্ণ হয়ে রাজপথে আন্দোলন সংগ্রাম করেছে তারা বর্তমান সময়ে এসে অনুপ্রবেশকারী দ্বারা শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত ও আক্রমণের শিকার হচ্ছেন। এতে দলের ত্যাগী নেতারা এখন কোণঠাসা। শারীরিক লাঞ্ছিত ও আক্রান্ত হওয়ার ভয়ে অনেকেই সক্রিয় রাজনীতি থেকেই বিদায় নিয়েছেন। কেউ কেউ দলীয় বিভিন্ন কর্মস‚চিতে নিজের সম্পৃক্ততা সীমিত করে নিচ্ছেন। সঙ্গত কারণে এ সমস্যা নিয়ে জেলার নীতিনির্ধারকরা চিন্তিত এবং অনেকেই আতঙ্কিত । বিভিন্ন ইউনিটের কোন্দল ও গ্রæপিং বৃদ্ধি ফলেই কয়েকজন সংসদ সদস্যসহ শীর্ষ পর্যায়ের একাধিক নেতা অনুপ্রবেশে পৃষ্ঠপোষকতা করছেন। পৃষ্ঠপোষক নেতারা এলাকায় নিজদের গ্রæপের প্রভাব বৃদ্ধি ও আধিপত্য বিস্তারে নোংরা অপকৌশলের পন্থা অবলম্বন করছেন। গ্রæপের পেশিশক্তি বাড়াতে কেউ আবার অনুপ্রবেশে পৃষ্ঠপোষকতার পাশাপাশি কিশোর গ্যাং নিয়ন্ত্রণের মতো জঘন্য কাজেও দ্বিধাবোধ করছেন না। উঠতি বয়সী সঙ্ঘবদ্ধ তরুণদের পেশিশক্তি ব্যবহার করে বিভিন্ন টেন্ডার, চাঁদাবাজি এবং দলীয় নানা সুযোগ সুবিধা হাতিয়ে নিচ্ছেন পৃষ্ঠপোষকতাকারী নেতারা । অনেকেই গ্রæপিং রাজনীতিতে আবদ্ধ হয়ে নিজেদের বিবেকবোধ ও দৃষ্টিশক্তি হারিয়েছেন। নয়ত চোখের সামনে স্বাধীনতা যুদ্ধে যুদ্ধাপরাধে অভিযুক্ত জামায়াতে ইসলামীর ছাত্র সংগঠন ছাত্রশিবির, বিএনপি’র ছাত্রদল ও যুবদল থেকে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনে ঢুকে যাওয়া অনুপ্রবেশের দৃশ্য দেখেও নীরব দর্শকদের ভ‚মিকা পালন করেছেন। আগামী নির্বাচনকে ঘিরে বিএনপি’র নেতৃত্বে স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তির নানামুখী ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হতে হবে। আওয়ামী লীগসহ সকল সহযোগী সংগঠনে থাকা অনুপ্রবেশকারী নামক আবর্জনা মুক্ত না করলে হারিয়ে যাবে দলের দুর্দিনের ত্যাগী কর্মীরা।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here