অভিশাপ কেন মাথা পেতে নিলেন শ্রীকৃষ্ণ

0
10
728×90 Banner

উজ্জ্বল রায়, নড়াইল প্রতিনিধি: গান্ধারী ছিলেন আফগান মহিলা কান্দাহার বা গান্ধার নামে এক দেশ ছিল ও গান্ধারী ছিলেন সেই দেশের কন্যা। বিবাহের প্রাক্কালে যখন গান্ধারী জানতে পারলেন যে তাঁর ভাবী স্বামী অন্ধ, তিনি নিজেই চোখে পটি বেঁধে অন্ধ হলে। যুক্তি দেখালেন, ‘‘যদি আমার স্বামী এই পৃথিবীটাকে দেখতে অসমর্থ হন, তবে আমিই বা সমর্থ হব কেন’’? তাই জন্মের মত তিনিও চোখে কাপড় বেঁধে দৃষ্টিহীন হলেন। কতখানি কঠোর নৈতিক বলের অধিকারিণী ছিলেন তিনি! সারা জীবনে মাত্র দুবার তিনি চোখের পটি সরিয়েছিলেন একবার, তাঁর স্বামী ধৃতরাষ্ট্রের নির্দেশে ও আরেকবার, কৃষ্ণকে দেখবার জন্যে। শষবার গান্ধারী চোখের পটি খুলেছিলেন কুরুক্ষেত্রে যুদ্ধের পর। যুদ্ধান্তে সমগ্র কুরুক্ষেত্র একটা মহাশ্মশানে পরিণত হয়েছিল। গান্ধারীর বিধবা পুত্রবধ‚রা সকলেই তাঁদের নিজ নিজ স্বামীর মৃতদেহের পাশে দাঁড়িয়ে উচ্চৈঃস্বরে বিলাপ করছিলেন, গান্ধারীও সেখানে উপস্থিত ছিলেন। মাতা কুন্তী সহ পঞ্চপাÐব আর ভগবান শ্রীকৃষ্ণ সেখানে ঘটনাক্রমে উপস্থিত হন, কারণ পাÐব পক্ষেরও অনেকেই সেখানে মৃত অবস্থায় পড়ে ছিলেন ও তাঁদের আত্মীয়স্বজনদের সান্তনা দেওয়া প্রয়োজন ছিল কৃষ্ণ গান্ধারীকে সান্তনা দিতে গিয়ে বললেন, ‘‘আপনি কাঁদছেন কেন? পৃথিবীর এটাই নিয়ম, আপনিও একদিন পৃথিবী ছেড়ে চলে যাবেন কাজেই কাঁদবেন কেন? কৃষ্ণকে সম্বোধন করে গান্ধারী প্রত্যুত্তরে বললেন, ‘‘কৃষ্ণ, তুমি আমাকে বৃথা শান্তনা দিতে চেষ্টা করছো। এটা তোমায় মানায় না। তুমি যদি এমনটি পরিকল্পনা না করতে, আমার পুত্ররা তাহলে প্রাণ হারাত না। হে কৃষ্ণ! তুমি তো তারকব্রহ্ম। তুমি চাইলে অবশ্যই বিনা যুদ্ধে আমার পুত্রদের মনোভাবের পরিবর্তন ঘটাতে পারতে। সত্যই তা’ হতেও পারত কিন্তু কৃষ্ণকে জগতের সামনে একটা দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে হয়েছিল পাপের পতন অবশ্যম্ভাবী। তিনি চেয়েছিলেন, যুদ্ধ হোক আর পৃথিবীর মানুষ তার থেকে শিক্ষা গ্রহণ করুক। বিনা যুদ্ধেই যদি তা’ সম্পন্ন হ’ত তাহলে লোকশিক্ষা হ’ত না। কৃষ্ণ চুপ করে রইলেন যদিও তাঁর স্বপক্ষে বলার অনেক কিছুই ছিল। মানুষের জীবনে প্রায়ই এ ধরণের ঘটনা ঘটে থাকে, যখন তার মনের ভাব ও মুখের ভাষা ঠিকই থাকে কিন্তু তবুও তাকে চুপ করে থাকতে হয়। ভগবান শ্রীকৃষ্ণের এই রকম অবস্থা হয়েছিল। শ্রীকৃষ্ণ যেমন ভীষ্মের মত কঠোর নীতিবাদীকে সম্মান করতেন, সশ্রদ্ধ সম্ভাষণ করতেন তেমনি গান্ধারীকেও তিনি গুরুত্ব দিতেন। তখন গান্ধারী শ্রীকৃষ্ণকে অভিশাপ দিয়ে বললেন, ‘‘আমার পরিবারের সদস্যেরা যেমন আমার চোখের সামনে ধ্বংস হ’ল তেমনই তোমার চোখের সামনেই যেন তোমার বংশও ধ্বংস হয়। ভগবান শ্রীকৃষ্ণ তৎক্ষণাৎ বললেন, ‘‘বেশ, তাই হোক’’ আর তা–ই ঘটেছিল। ভগবান শ্রীকৃষ্ণ সেই অভিশাপকে স্বীকার করে নিয়েছিলেন বলেই তেমনটি ঘটেছিল। যদি তিনি স্বীকার না করতেন তাহলে অবস্থাটা অন্য রকম দাঁড়াত। কিন্তু শ্রীকৃষ্ণ সেই অভিশাপ স্বীকার করে নিয়েছিলেন, কারণ তাঁর মনোগত ইচ্ছাটা ছিল এই যে নৈতিক শক্তি জনজীবনে গুরুত্ব পাক ও স্বীকৃত হোক। অন্যথা যদুবংশ সম্প‚র্ণভাবে নির্ম‚ল হ’ত না। গান্ধারীর মহত্ত¡ প্রতিষ্ঠার জন্যেই শ্রীকৃষ্ণের এই ধরণের আচরণ। ভগবান শ্রীকৃষ্ণ ন্যায়–ধর্মের বিজয়কে সুগম করার জন্যেই যুদ্ধের পরিকল্পনা করেছিলেন ও তদুদ্দেশ্যে সম্ভাব্য সব কিছুই করেছিলেন। জীবনে চলার পথে যেখানেই তিনি নীতিবাদীর সম্মুখীন হয়েছেন সেখানেই তিনি স্বেচ্ছায় নিজের পরাভব স্বীকার করে নিয়েছেন। শ্রীকৃষ্ণের জীবন থেকে এই শিক্ষাটা মনে রাখা উচিত কোন মানুষ অন্ধভাবে অন্যায়–বিচার করলে তা কোন মতেই মাথা পেতে মেনে নেওয়া যাবে না। শ্রীকৃষ্ণ যেমনটি করেছিলেন, তেমনি দুর্নীতিপরায়ণদের বিরুদ্ধে সংগ্রাম চালিয়ে যেতে হবে। কিন্তু যদি দেখা যায় যে কোন মানুষ যথার্থ নীতিবাদী, ধার্মিক, তংক্ষণাৎ নতিস্বীকার করব। তাতে আমাদের সম্মানই বৃদ্ধি পাবে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here