আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরদারিতে প্রশ্নপত্র ফাঁস চক্রের প্রতারকরা!

0
208
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহে মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষা শুরু হতে যাচ্ছে। আর এরইমধ্যে অভিভাবকের চিন্তার ঝুলিতে যোগ হয়েছে- প্রশ্নফাঁসের দুশ্চিন্তা। আশার বিষয় হলো- জাতির কর্ণধার শিক্ষার্থীদের প্রশ্নপত্র ফাঁসের কবল থেকে রক্ষা করতে সব ধরণের প্রস্তুতি নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।
এরইমধ্যে প্রশ্নপত্র ফাঁসের গুজব রোধ এবং এ চক্রের সদস্যদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরদারিতে নেয়া হয়েছে। যেকোন মূল্যে তাদের অপচেষ্টা ও অপতৎপরতা রুখতে তৎপর বাহিনীর সদস্যরা।
দেশের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম রক্ষায় প্রশ্নফাঁস রোধে বরাবরই কঠোর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। হাল টেনে ধরেন শিক্ষায় ঢুকে পড়া উইপোকাদের। তার নির্দেশে যেকোন উপায়ে প্রশ্নফাঁস চক্র ধরতে ২০১৮ সালে মাঠে নামে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। সফলও হন তারা। একের পর এক ধরা পড়ে প্রশ্নফাঁস চক্রের সদস্যরা। বেরিয়ে আসে অজানা সব তথ্য।
জানা গেছে, প্রশ্নফাঁস নয়, ফাঁসের নামে হয় প্রতারণা। তৈরি করা হয় ভুয়া প্রশ্ন। চড়া দামে বিক্রি করা হয় এসব ভুয়া প্রশ্ন। সরবরাহ করা হয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। প্রলোভন দেখানো হয় শিক্ষার্থীদের। সন্তানের জন্য পয়েন্টভারি সার্টিফিকেট পাওয়ার প্রতিযোগিতায় অবতীর্ণ অভিভাবকরাও হন প্রতারিত ও দিশেহারা।
আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তথ্যানুযায়ী, এবার ফেব্রুয়ারির ২ তারিখ থেকে শুরু হতে যাওয়া এসএসসি পরীক্ষা প্রশ্নফাঁস চক্র সরব হওয়ার চেষ্টা করছে। নানা ধরনের প্রোপাগান্ডার প্রস্তুতিও নেয়ার চেষ্টা করছে বলে জানা গেছে। চলছে ভুয়া প্রশ্ন তৈরির ব্যবস্থা। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর নজদারির কারণে প্রতারকরা হাঁটছে অভিনব কৌশলে। তবে কঠোর অবস্থানে রয়েছে র‌্যাবসহ দেশের প্রতিটি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।
এদিকে, অভিভাবকদের মনে দেখা দিয়েছে প্রশ্নফাঁস নিয়ে উদ্বেগ। প্রযুক্তির সাহায্যে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রশ্নফাঁসের প্রলোভন দেখানো প্রতারকদের সব আইডি হয় ফেইক বা ভুয়া। তারপরও সরকারের কঠোর সিদ্ধান্ত আর আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সতর্ক অবস্থানে রেহাই পাচ্ছে না প্রতারক চক্র, ধরা পড়ছে তারা। তাই অভিভাবকদের এসব প্রতারণার ফাঁদে পা না দিয়ে পরীক্ষার দিকে মনোযোগ দেয়ার পরামর্শ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর।
আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী যথাসাধ্য চেষ্টা করছে। শুধু তাতেই নয়, নৈতিক মূল্যবোধের সঙ্গে আপোষ করার সুযোগ নেই। তাই সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে বলে মনে করছেন শিক্ষা-সংশ্লিষ্টরা। তারা বলছেন, শুধু সরকারের একার চেষ্টায় এই প্রতারক চক্র নির্মূল করা যাবে না। শিক্ষার্থী অভিভাবকসহ সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে, সচেতন হতে হবে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here