আজ ইজতেমা ময়দানে অনুষ্ঠিত হবে বৃহত্তম জুম্মার নামাজ, দুই মুসল্লির মৃত্যু

0
379
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: মুসলিম উম্মাহর দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্মীয় সমাবেশ কঠোর নিরাপত্তা ও ধর্মীয় ভাবাবেগের মধ্যদিয়ে আজ শুক্রবার বাদ ফজর আম বয়ানের মাধ্যমে টঙ্গীতে শুরু হচ্ছে মুসলমানদের বৃহত্তম ধর্মীয় সমাবেশ ৫৪তম বিশ্ব ইজতেমা । প্রতি বছরের ন্যায় ইজতেমা ময়দানে শুক্রবার দুপুরে অনুষ্ঠিত হবে বৃহত্তম জুম্মার নামাজ। ইজতেমার প্রথম দিন শুক্রবার লাখো মুসল্লির সমন্বয়ে জুমার নামাজ আদায় করা হবে ইজতেমা ময়দানে।
জুমার নামাজে শরিক হতে ঢাকা,টঙ্গী ও গাজীপুরের আশপাশ এলাকার লাখো ধর্মপ্রান মুসল্লিরা শরিক হবেন। ইজতেমা উপলক্ষে তবলিগ জামাতের দেশী-বিদেশী লাখো মুসুল্লির গন্তব্য এখন তুরাগতীর। মুসুল্লিদের যাতায়াতের সুবিধার্থে থাকছে বিশেষ ট্রেন ও বাস সার্ভিস। নিরাপত্তায় নেয়া হয়েছে ৮ স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা। বিশ্ব ইজতেমার পুরো ময়দান সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা হয়েছে।
সরে জমিনে দেখা গেছে, তুরাগ পাড়ের প্রায় ১৬০ একর এলাকা জুড়ে বিস্তৃত ইজতেমা মূল সামিয়ানা এখন সম্পূর্ণ প্রস্তুত। মুসুল্লিদের যাতায়াতের সুবিধার্থে থাকছে বাস ও ট্রেনের বাড়তি ব্যবস্থা। বিদেশী নিবাসে ওঠছেন ভারত, পাকিস্তান থেকে শুরু করে ইউরোপ, আমেরিকাসহ পৃথিবীর নানা দেশের মুসুল্লিরা। তবলিগের বিভিন্ন মেয়াদের চিল্লায় থাকা আর ইজতেমার দাওয়াতের কাজে যারা ছিলেন সেসব মুসুল্লিরাও দলে দলে ইজতেমা ময়দানে আসছেন। এবার ৬৪ জেলার মুসল্লিরা একসাথেই ইজতেমায় শরিক হবেন। তবে যোবায়ের অনুসারী ও সাদ পন্থীরা ২ ভাগে ভাগ করে ইজতেমায় শরিক হবেন। মুসল্লিদের অবস্থান নিরূপনে ইজতেমা ময়দানকে জেলা ওয়ারী খিত্তায় ভাগ করা হয়েছে।
মুসল্লিরা খিত্তাওয়ারী যেভাবে অবস্থান নেবেন। মুসল্লিদের আসা এখনো অব্যাহত রয়েছে। ইতিমধ্যে ইজতেমার বিশাল ময়দান কানায় কানায় ভরে গেছে। মুসল্লিরা রাস্তাসহ বিভিন্ন স্থানে অবস্থান নেয়া শুরু করেছেন।
ইজতেমার শীর্ষ মুরুব্বি ইঞ্জিনিয়ার মাহফুজ জানান, এরই মধ্যে ইজতেমার মূল সামিয়ানা, বয়ানমঞ্চ প্রস্তুত করা হয়েছে। খিত্তায় খিত্তায় অবস্থান নিয়েছে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা মুসুল্লিগন। মুজাকারাসহ চলছে নানা ধর্মীয় বয়ান। বিদেশী নিবাসে গ্যাস সংযোগ ও বিদ্যুৎ সরবরাহের ব্যবস্থা করা হয়েছে। আর আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে ১৮ ফেব্রুয়ারি ৫৪ তম বিশ্ব ইজতেমার সমাপ্তি ঘটবে।
আইনশৃঙ্খলা: গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার ওয়াই এম বেলালুর রহমান জানান, নিরাপত্তায় নিয়োজিত সদস্যরা সকাল থেকেই কর্তব্যরত আছেন। পোশাকে এবং সাদা পোশাকে আগের তুলনায় অনেক বেশি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। একইসাথে ওয়াচ টাওয়ার এবং সিসি ক্যামেরা দ্বারা পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। ময়দানের প্রতিটি জায়গা সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা হয়েছে। ময়দানের নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা অত্যন্তভালো এবং পর্যাপ্ত নেয়া হয়েছে।
তিনি বলেন, ‘আমাদের কাছে সুনির্দিষ্ট কোনো থ্রেড নেই। তারপরও আমরা যাবতীয় জিনিস বিবেচনায় রেখে নিরাপত্তা ব্যবস্থা রেখেছি। পুলিশ কমিশনার আরো বলেন, ইজতেমা উপলক্ষে মোড়ে-মোড়ে, গলিতে-গলিতে চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। ইজতেমার প্রবেশ পথগুলোতে চেকপোস্ট বসানো হয়েছে।
বৃহত্তম জুম্মার নামাজ : শুক্রবার ইজতেমা ময়দানে জুমার নামাজ অনুষ্ঠিত হবে। জুমার নামাজে অংশ নিতে গাজীপুরসহ আশেপাশের জেলার কয়েক লাখ মুসল্লি ইজতেমা ময়দানে উপস্থিত হবেন। টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে ১৬০ একর এলাকাজুড়ে নির্মিত চটের প্যান্ডেল ইতিমধ্যে মুসল্লীদের দ্ধারা পরিপূর্ন হয়ে গেছে। মুসল্লীদের টঙ্গীতে আসা অব্যাহত রয়েছে। আগামী সোমবার আখেরী মোনাজাতের আগ পর্ষন্ত মুসল্লীদের আসা অব্যাহত থাকবে।
ইজতেমায় বিনামূল্যে স্বাস্থ্যক্যাম্প: টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে আয়োজিত বিশ্ব ইজতেমায় আগত মুসুল্লিদের সুবিধার্থে ইজতেমা ময়দানের পাশে স্থাপন করা হয়েছে ফ্রি মেডিক্যাল ক্যাম্প। এসকল মেডিকেল ক্যাম্প থেকে ইজতেমায় আগত মুসুল্লিদের স্বাস্থ্য সেবা ও প্রয়োজনীয় ওষুধ দেয়া হচ্ছে বিনামূল্যে। বৃহস্পতিবার দুপুর ধর্ম প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট মো. শেখ আব্দুল্লাহ এমপি এবং যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল এমপি ইসলামী ফাউন্ডেশন, হামর্দদ সহ বিভিন্ন ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প উদ্বোধন করেন।

ইজতেমায় দুই মুসল্লির মৃত্যু

আজ থেকে শুরু হতে যাওয়া বিশ্ব ইজতেমা মাঠে দুই মুসল্লির মৃত্যু হয়েছে। নিহত দু’জনের নাম মো. হোসেন (৫৫) ও আব্দুর রাজ্জাক(৪২)।
নিহত হোসেন নাটোর থেকে ইজতেমায় আসেন। বৃহস্পতিবার সকালে ফজরের নামাজ পড়তে আশুলিয়া এলাকায় বাস থেকে নামলেই একটি পিকআপভ্যান তাকে চাপা দেয়। সঙ্গে থাকা লোকজন তাকে দ্রুত উদ্ধার করে পাশেই একটি নারী ও শিশু স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।
দুপুরে ইজতেমা ময়দানে নিহতের জানাজা সম্পন্ন হয়। নিহত হোসেন নাটোর জেলার সিংড়া উপজেলার তুলাপাড়া গ্রামের ফজলু মিয়ার ছেলে।
অপরদিকে, ইজতেমার মাঠে হৃদরোগ জনিত কারণে আব্দুর রাজ্জাক (৪২) আরো এক মুসল্লির মৃত্যু হয়েছে। নিহত আব্দুর রাজ্জাক ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার ডুবাচাইল গ্রামের চান মিয়ার ছেলে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here