করোনাকালে বিশাল কর্মযজ্ঞে সরকার

0
25
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক:সারাবিশ্বের মতো বাংলাদেশও করোনা মোকাবিলায় যুদ্ধ করে যাচ্ছে। প্রতিদিন আসছে মৃত্যুর খবর। এরপরও থেমে নেই মানুষের কর্মজীবন। করোনাসংকট মোকাবিলায় বিশাল কর্মযজ্ঞে নিয়োজিত রয়েছে সরকার। এ পরিস্থিতিতে সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের মনোবল চাঙ্গা রেখে কাজ করার নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সব ক্ষেত্রেই উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রেখে অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগকে নিয়মিত দিকনির্দেশনা দিচ্ছেন তিনি। সরকারপ্রধানের নির্দেশনা বাস্তবায়নে ব্যস্ত সময় পার করছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় (পিএমও)।
সংশ্নিষ্টরা জানান, করোনা মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়, স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ, তথ্য মন্ত্রণালয়, স্থানীয় সরকার বিভাগ, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়সহ ১৮টি মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা কাজ করে যাচ্ছেন। মন্ত্রণালয়ে শতভাগ কর্মকর্তা উপস্থিতি না থাকলেও অনেকেই বাসায় বসে কাজ করছেন। এরই মধ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়ে বেশ কয়েকজন সরকারি কর্মকর্তা মারা গেছেন। আবার অনেকেই আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন আছেন। তবু করোনার বিরুদ্ধে লড়াই করছেন তারা।
এরই মধ্যে কোনো কোনো মন্ত্রণালয়ে অনিয়ম ও দুর্নীতির খবর সামনে চলে আসছে। এসবের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সরকারের শীর্ষ পর্যায় থেকে কঠোর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এ নির্দেশনার পর সংশ্নিষ্ট মন্ত্রণালয় ও বিভাগ নড়েচড়ে বসেছে। এসব বিষয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে নিয়মিত মনিটরিং করা হচ্ছে। করোনাকালে মাঠ প্রশাসনকে গতিশীল রেখে জনগণের পাশে থাকতে প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সংশ্নিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরু হওয়ার পর থেকে স্থানীয় সরকার বিভাগ সরকারের নির্দেশনা বাস্তবায়ন করছে। এর মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর মানবিক কর্মসূচি এবং খাদ্যবান্ধব কর্মসূচিতে চাল বিতরণের তালিকায় অনিয়ম ও আত্মসাতের অভিযোগে এ পর্যন্ত বরখাস্ত হয়েছে ১০৭ জন প্রতিনিধি। তাদের মধ্যে ৩৫ জন ইউপি চেয়ারম্যান, ৬৬ জন ইউপি সদস্য, একজন জেলা পরিষদ সদস্য, চারজন পৌর কাউন্সিলর এবং একজন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান।
করোনা সংকটকালে স্থানীয় সরকার মন্ত্রীও প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরকে দেশের সব রাস্তাঘাট দ্রুত নির্মাণ ও সংস্কার করার নির্দেশ দিয়েছেন। এরই আলোকে কাজ করছে প্রকৌশল অধিদপ্তর। সিটি করপোরেশনগুলো শহরের অলিগলিতে পানি ছিটিয়ে জীবাণুমুক্ত করার চেষ্টা করেছে।
করোনা ছয় মাসের বেশি সময় আগে ধরা পড়ে চীনের উহানে। তবে স্বাস্থ্য বিভাগ এই সংক্রমণের ভয়াবহতা সম্পর্কে জনগণকে ধারণা দিতে পারেনি। পর্যাপ্ত সময় পেলেও কাজে লাগাতে পারেনি সংশ্নিষ্টরা। এ ছাড়া করোনাকালেও স্বাস্থ্য খাতে কেনাকাটায় অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ ছিল টক অব দ্য কান্ট্রি। এ অভিযোগে স্বাস্থ্য সচিবসহ স্বাস্থ্য বিভাগের অনেক কর্মকর্তাকে সরিয়ে দেওয়া হয়। এ অবস্থায় নতুন স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব পদে নিয়োগ পান আব্দুল মান্নান। দায়িত্ব নেওয়ার এক সপ্তাহের মধ্যে তার স্ত্রী করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। পারিবারিক এই বিপর্যয়ের মধ্যেও প্রশাসনিক কাজ করে যাচ্ছেন তিনি। ইতোমধ্যে প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন সাপেক্ষে ডাক্তার-নার্স নিয়োগের পরিকল্পনা শুরু করেছেন।
করোনাভাইরাসের কারণে সাধারণ মানুষের কষ্ট লাঘবে মানবিক সহায়তা হিসেবে এ পর্যন্ত সারাদেশে দেড় কোটির বেশি পরিবারকে ত্রাণ সহায়তা দিয়েছে সরকার। দুই লাখ ১১ হাজার ১৭ টন খাদ্য বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে এবং বিতরণ করা হয়েছে এক লাখ ৯৮ হাজার ১২০ টন। এতে উপকারভোগী পরিবারের সংখ্যা এক কোটি ৬৮ লাখ ৩০ হাজার ১৮ এবং উপকারভোগী লোকসংখ্যা সাত কোটি ৩৮ লাখ ৪ হাজার ৭৯৫ জন।
শিশুখাদ্যসহ অন্যান্য সামগ্রী কেনার জন্য নগদ বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে প্রায় ১২৩ কোটি টাকা। এর মধ্যে সাধারণ ত্রাণ হিসেবে নগদ বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ৯৫ কোটি ৮৩ লাখ ৭২ হাজার ২৬৪ টাকা এবং বিতরণ করা হয়েছে ৯৩ কোটি ৯২ লাখ ৪ হাজার ১৬ টাকা। এতে উপকারভোগী পরিবারের সংখ্যা এক কোটি ১৬ হাজার ৫২৯ এবং উপকারভোগী লোকসংখ্যা চার কোটি ৪২ লাখ ৩৪ হাজার ৫৮৫ জন।
শিশুখাদ্য সহায়ক হিসেবে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ২৭ কোটি ১৪ লাখ টাকা এবং ২৬ কোটি ৪০ লাখ ১৯ হাজার টাকা। এতে উপকারভোগী পরিবারের সংখ্যা আট লাখ ৪২ হাজার ৫৪৭ এবং উপকারভোগী লোকসংখ্যা ১৭ লাখ ৫৮ হাজার ৪৩৪ জন বলে জানা গেছে।
করোনায় মৎস্য খাতে সাফল্য এসেছে। দেশের ক্রমবর্ধমান জনগোষ্ঠীর পুষ্টি চাহিদা পূরণ, কর্মসংস্থান, দারিদ্র্য বিমোচন ও রপ্তানি আয়ে মৎস্য খাতের অবদান বেড়েই চলেছে। প্রাণিজ আমিষের ৬০ শতাংশ আসে মাছ থেকে। দেশের ১৪ লাখ নারীসহ প্রায় দুই কোটি মানুষ প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে মৎস্য খাতের ওপর নির্ভর করছে। মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট থেকে ইতোমধ্যে মৎস্য চাষ ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ক ৬২টি লাগসই প্রযুক্তি উদ্ভাবন করা হয়েছে। ৩৫ বছরের ব্যবধানে মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে সাড়ে পাঁচ গুণেরও বেশি। ২০২০-২১ অর্থবছরে দেশের মৎস্য উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ৪৫ দশমিক ৫২ লাখ টন। গত ১০ বছরে এর উৎপাদন বেড়েছে ৭৮ শতাংশ।
একাধিক সচিবের সঙ্গে কথা হলে তারা জানান, করোনা মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্র্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়নে তারা কাজ করে যাচ্ছেন। সরকারের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে তারা সক্রিয়। জানা গেছে, মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস, স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ, জনপ্রশাসন সচিব শেখ ইউসুফ হারুন ও প্রধানমন্ত্রীর সচিব তোফাজ্জেল হোসেন মিয়া প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছেন।
ড. আহমেদ কায়কাউস সবকিছু দেখভাল করার পাশাপাশি প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দিচ্ছেন। যেখানে স্থবিরতা, দুর্নীতি ও অনিয়মের খবর পাচ্ছেন সেখানেই প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিচ্ছেন তিনি। করোনায় সরকারি কর্মচারীদের কাজ গতিশীল করতে কাজ করছেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ দ্রুত বাস্তবায়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছেন তিনি। করোনায় আক্রান্ত অনেক এমপি ও মন্ত্রীর দ্রুত চিকিৎসাসেবার সুব্যবস্থা করেছেন। এ ছাড়া সরকারি কর্মকর্তাদের খোঁজখবর রাখছেন।
স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ করোনাকালে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সার্বিক কার্যক্রম মনিটরিং করছেন। ত্রাণ বিতরণে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে বিভিন্ন জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন পরিষদ ও পৌরসভার সদস্যদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নিচ্ছেন। ইতোমধ্যে তিনি বিভিন্ন মহলে প্রশংসিত হয়েছেন।
জনপ্রশাসন সচিব শেখ ইউসুফ হারুন করোনা মোকাবিলায় প্রশাসনে প্রশংসিত হয়েছেন। বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী জরুরি ভিত্তিতে নতুন দুই হাজার ডাক্তার এবং ছয় হাজার নার্স নিয়োগে কার্যকর ভূমিকা রেখেছেন। মাঠ প্রশাসনকে শক্তভাবে পরিচালিত করতে দিকনির্দেশনা দিয়ে যাচ্ছেন। আক্রান্ত কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের চিকিৎসার ব্যয়ভার সরকারের পক্ষ থেকে বহন করার সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত মাঠ প্রশাসনে ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছে।
প্রধানমন্ত্রীর সচিব তোফাজ্জেল হোসেন মিয়া গত জানুয়ারিতে দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে কাজে গতি আনতে একটি টিম তৈরি করেছেন। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সেই টিম সারাদেশে করোনা সমস্যা দেখভাল করছে। করোনাসহ অন্যান্য তথ্য তাৎক্ষণিক প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করছেন তারা।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here