কলাপাড়ায় এক ঘন্টায় তিন দফা হামলায় কলেজ শিক্ষক মঞ্জুরুল গুরুতর আহত

0
205
728×90 Banner

কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি: পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কলাপাড়া মহিলা ডিগ্রি কলেজের অর্থনীতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মঞ্জুরুল আলমের ওপর সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে। রবিবার দুপুরে কলাপাড়া থানার সীমানা বাউন্ডারি দেয়ালের সঙ্গে তার মাথা থেতলে দেয়া হয়। বেধড়ক কিল-ঘুষিতে তিনি মারাত্মক জখম হয়েছেন। থানা পুলিশের দেয়ালের সামনে নাহিদসহ ১২-১৫ সন্ত্রাসী এ হামলা চালায় বলে মঞ্জুরুল আলমের অভিযোগ। মঞ্জুরুল আলম তার বড় ভাই মনিরুল আলমকে মারধর থেকে রক্ষা করতে এগিয়ে গেলে তার ওপর নারকীয় হামলা চালানো হয়। এর আগে কলাপাড়া উকিল পট্টিতে ফেলে মনিরুলকে বেধড়ক মারধর করা হয়। মনিরুল জানান, এসব সন্ত্রাসীসহ মাহতাব হাওলাদার তার স্ত্রীসহ একদল সন্ত্রাসী তাকে মারধর করে। এর আগেও একই চক্র উকিলপট্টিতে লালুয়ার কালাম হাওলাদারকে (৪২) ও কলাপাড়ার ব্যবসায়ী নুর মোহাম্মদকে মাহতাব হাওলাদারচক্র পুর্ব শত্রæতার জের ধরে বেধড়ক মারধর করে। এভাবে এক ঘন্টায় তিন দফা হামলার ঘটনায় কলাপাড়ার সকল পর্যায়ের আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা হতবাক বনে গেছেন। মঞ্জুরুল আলমকে শঙ্কাজনক অবস্থায় বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। এছাড়া কালাম ও নুর মোহাম্মদকে কলাপাড়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। মঞ্জুরুল আলমের ওপর হামলার খবরে সকল নেতাকর্মীরা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন। একই দলের সমর্থিত ক্যাডারদের হামলায় সবাই হতবাক বনে গেছেন। ব্যাপক প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে দলের মধ্যে। দলটির অপর সাংগঠনিক সম্পাদক মনজুরুল ইসলাম জানান, তিনি গিয়ে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেছেন। ঘটনাটি ন্যাক্কারজনক। এর তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন। কলাপাড়া থানার ওসি মো. মনিরুল ইসলাম জানান, খবরটি শুনে পুলিশ রাস্তায় ছুটে গেলে প্রতিপক্ষরা সটকে পড়ে। তাকে কিল-ঘুশি মারা হয়েছে বলে তিনি জেনেছেন। মামলা হয়নি। মামলা করলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here