কালিয়াকৈরে বিল- বাইচের মহোউৎসবে মেতে উঠেছে মৎস্য শিকারীরা

0
19
728×90 Banner

স্বপন সরকার কালিয়াকৈর( গাজীপুর) প্রতিনিধিঃগাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলায় বিভিন্ন এলাকায় নিম্ন অঞ্চলের পানি নেমে গিয়ে শুকিয়ে গিয়েছে জলাধারের পানি। এ সুযোগে উপজেলার বিল ও ছোট ছোট জলাধারগুলোতে জমে উঠেছে দেশীয় মাছ শিকারের মহোৎসব।
সরেজমিনে দেখা গেছে, শনিবার ভোর হতে না হতেই উপজেলার বিভিন্নস্থান থেকে মৌসুমী জেলে ও সৌখিন মাছ শিকারীরা দেওয়াইর এলাকার কুয়াডাঙ্গা বিলে মাছ ধরার জন্য ছুটে এসেছে। স্থানীয় মাছ শিকারের উৎসবে মেতে উঠেছে। বিলের পানি কমতে শুরু করায় বিভিন্ন গ্রামের লোকজন শনিবার মাছ ধরার দিনটি নিধারন করেন।পরে তা ডিজিটাল যোগাযোগের মাধ্যম মোবাইলে ফোনের মাধ্যমে সবার কাছে জানিয়ে দেওয়া হয়। ফলে ভোরে দূর দুরান্ত থেকে শত শত সৌখিন মাছ শিকারিরা দল বেধে ( জিনিরা) মাছ ধরার উপকরণ পলো,ধর্মজাল,চাবি জাল,ঠেলাজাল,ঢোলনা জাল,ঝাকিজাল ও টেটা নিয়ে ওই বিলের ধারে দলবেঁধে হাজির হন। বড়দের পাশাপাশি শিশুরাও এই মাছ ধরার উৎসবে মেতে ওঠে। ভোর হতে বিকেল পর্যন্ত চলবে এই উৎসবটি। একইদিনে বড়ই বাড়ী এলাকার উজান -ডাঙ্গা বিলেও মাছ ধরার উৎসবে মেতে উঠেছিল শিকারিরা ।
গাজীপুরের ভাওয়াল থেকে ছুটে আসা মাছ শিকারি (জিনি) মোতালেব মিয়া,আজগর আলী,শরিফ হোসেন, আলামিন হেসেন জানান, শুকনো মৌসুমে শখের বশেই তারা মাছ ধরতে আসেন। মাছ ধরার জন্য বিল বাইচের খবর শুনলে তারা সেখানে দল বেধে উপস্থিত হয়ে থকেন।
এসময় তারা দেশীয় প্রজাতির বড় মাছ রুই, কাতল,চিতল,বাঘা আইর ,শোল টাকি,বোয়াল,মাগুর ,শিং মাছ সহ ছোট ছোট মাছের মধ্যে বাইম,টেংরা,পুটি,ভেরা,মলা,চাপিলা এসব দেশীয় মাছ শিকার করে থাকে।
বর্ষা মৌসুমে অবৈধভাবে নিষিদ্ধ জাল দিয়ে মাছ শিকার করা বন্ধ গেলে প্রতিবছর দেশীয় মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি করা এবং স্থানীয় মানুষের আমিষের চাহিদা পূরণ করা সম্ভব বলে স্থানীয় সচেতন মানুষজন মনে করেন।
স্বপন সরকার কালিয়াকৈর( গাজীপুর) প্রতিনিধিঃগাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলায় বিভিন্ন এলাকায় নিম্ন অঞ্চলের পানি নেমে গিয়ে শুকিয়ে গিয়েছে জলাধারের পানি। এ সুযোগে উপজেলার বিল ও ছোট ছোট জলাধারগুলোতে জমে উঠেছে দেশীয় মাছ শিকারের মহোৎসব।
সরেজমিনে দেখা গেছে, শনিবার ভোর হতে না হতেই উপজেলার বিভিন্নস্থান থেকে মৌসুমী জেলে ও সৌখিন মাছ শিকারীরা দেওয়াইর এলাকার কুয়াডাঙ্গা বিলে মাছ ধরার জন্য ছুটে এসেছে। স্থানীয় মাছ শিকারের উৎসবে মেতে উঠেছে। বিলের পানি কমতে শুরু করায় বিভিন্ন গ্রামের লোকজন শনিবার মাছ ধরার দিনটি নিধারন করেন।পরে তা ডিজিটাল যোগাযোগের মাধ্যম মোবাইলে ফোনের মাধ্যমে সবার কাছে জানিয়ে দেওয়া হয়। ফলে ভোরে দূর দুরান্ত থেকে শত শত সৌখিন মাছ শিকারিরা দল বেধে ( জিনিরা) মাছ ধরার উপকরণ পলো,ধর্মজাল,চাবি জাল,ঠেলাজাল,ঢোলনা জাল,ঝাকিজাল ও টেটা নিয়ে ওই বিলের ধারে দলবেঁধে হাজির হন। বড়দের পাশাপাশি শিশুরাও এই মাছ ধরার উৎসবে মেতে ওঠে। ভোর হতে বিকেল পর্যন্ত চলবে এই উৎসবটি। একইদিনে বড়ই বাড়ী এলাকার উজান -ডাঙ্গা বিলেও মাছ ধরার উৎসবে মেতে উঠেছিল শিকারিরা ।
গাজীপুরের ভাওয়াল থেকে ছুটে আসা মাছ শিকারি (জিনি) মোতালেব মিয়া,আজগর আলী,শরিফ হোসেন, আলামিন হেসেন জানান, শুকনো মৌসুমে শখের বশেই তারা মাছ ধরতে আসেন। মাছ ধরার জন্য বিল বাইচের খবর শুনলে তারা সেখানে দল বেধে উপস্থিত হয়ে থকেন।
এসময় তারা দেশীয় প্রজাতির বড় মাছ রুই, কাতল,চিতল,বাঘা আইর ,শোল টাকি,বোয়াল,মাগুর ,শিং মাছ সহ ছোট ছোট মাছের মধ্যে বাইম,টেংরা,পুটি,ভেরা,মলা,চাপিলা এসব দেশীয় মাছ শিকার করে থাকে।
বর্ষা মৌসুমে অবৈধভাবে নিষিদ্ধ জাল দিয়ে মাছ শিকার করা বন্ধ গেলে প্রতিবছর দেশীয় মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি করা এবং স্থানীয় মানুষের আমিষের চাহিদা পূরণ করা সম্ভব বলে স্থানীয় সচেতন মানুষজন মনে করেন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here