কালীগঞ্জে নিখোঁজ ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার

0
212
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: নিজের জাল চুরি হয়েছে পরিমল চন্দ্র বর্মনের, তাই সে বেকার। পরিমলের বেকারত্বে সহকর্মী বোরহান উদ্দিন একাই শীতলক্ষ্যা নদীতে রাজত্ব করছিল। তাই নিজের রাজ্যের প্রতিদ্বন্দ্বী মনে করে পরিমল ও তার ভাতিজা কমল চন্দ্র বর্মন মিলে বোরহানকে খুন করা হয়। পরে সেই মরদেহ জাল দিয়ে পেঁচিয়ে নৌকার সঙ্গে বেঁধে শীতলক্ষ্যা নদীতে নিখোঁজ করে দেয়।
ঘটনাটি ঘটেছে গাজীপুর জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার জামালপুর ইউপির দক্ষিণ নারগানা এলাকায় শীতলক্ষ্যা নদীতে।
ঘটনার ১৪ দিন পর কালীগঞ্জ, পলাশ, টঙ্গী ও ঢাকা থেকে আসা ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল, কালীগঞ্জ ও পলাশ থানা পুলিশ এবং স্থানীয়দের সহযোগিতায়২ দিনের চেষ্ঠায় বুধবার বিকেলে শীতলক্ষ্যা নদীর দক্ষিণ নারগানা এলাকা থেকে মরদেহ উদ্ধার করা হয়।
উদ্ধারের পর ওইদিন বিকেলেই গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে সন্দেহভাজন হিসেবে স্থানীয়দের সহযোগিতায় ৩ জনকে আটক করে পুলিশ। নিহত এবং আটক সবাই উপজেলার দক্ষিণ নারগানা এলাকার বাসিন্দা। খুন, উদ্ধার, আটক ও ময়নাতদন্তের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কালীগঞ্জ থানার ওসি মো. আবুবকর মিয়া।
গত ২ জানুয়ারি রাতে বোরহান নদীতে মাছ ধরার উদ্দেশে বের হয়। ওই রাতেই চাচা পরিমল ও ভাতিজা কমল মিলে বোরহানকে খুন করে মরদেহ জাল দিয়ে পেঁচিয়ে নৌকার সঙ্গে বেধে শীতলক্ষ্যা নদীতে নিখোঁজ করে দেয়। নিখোঁজের ৫ দিন পর বোরহানের স্ত্রী তানিয়া বেগম বাদী হয়ে গত ৭ জানুয়ারী কালীগঞ্জ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।
গত ১৫ জানুয়ারি নিহতের শ্যালকের কাছে হত্যার বিষয়টি স্বীকার করে পরিমল ও ভাতিজা কমল। স্থানীয়রা পরিমলের ছেলে পাপন চন্দ্র বর্মনসহ ৩ জনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। পরে আটকদের তথ্যের ভিত্তিতে ১৫ জানুয়ারি কালীগঞ্জ, পলাশ, টঙ্গী ও ঢাকা থেকে আসা ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল, কালীগঞ্জ ও পলাশ থানা পুলিশ এবং স্থানীয়দের সহযোগিতায় শীতলক্ষ্যা নদীতে উদ্ধার অভিযান চালানো হয়।
কালীগঞ্জ থানার ওসি মো. আবুবকর মিয়া বলেন, আটকদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে খুনের সত্যতা মিলেছে। এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here