কাল থেকে শুরু হচ্ছে ৫৭তম বিশ্বইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব

0
22
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : গাজীপুরের টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে শুক্রবার (৯ ফেব্রুয়ারি) থেকে শুরু হচ্ছে মুসলমানদের দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্মীয় সমাবেশ ৫৭তম বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব। বাদ ফজর দিল্লির মাওলানা ইলিয়াস বিন সাদ কান্ধলভীর আমবয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হবে তাবলিগ জামাতের ইজতেমা। বৃহস্পতিবার বাদ ফজর থেকে শুরু হয়েছে আঞ্চলিক বয়ান। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে মুসল্লিরা দলে দলে ইজতেমা ময়দানে আসছে। শুক্রবার জুমা নামাজ ইজতেমা ময়দানে অনুষ্ঠিত হবে। মুসল্লিদের পদচারণে মুখর হয়ে উঠছে তুরাগতীর।ইতি মধ্যে টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে বিশাল এলাকা মুসল্লিদের দ্বারা মুখরিত হয়ে উঠেছে। বিশ্বইজতেমায় মুসল্লিদের আসা অব্যাহত রয়েছে। রোববার আখেরি মোনাজাত পর্ষন্ত মুসল্লিদের আসা অব্যাহত থাকবে। ইতিমধ্যেই ইজতেমার সার্বিক প্রস্তুতির কাজ সম্পন্ন হয়েছে বলে জানিয়েছেন দ্বিতীয় পর্বের আয়োজক কমিটির শীর্ষ জিম্মাদার প্রকৌশলী খান মোহাম্মদ মুহিবুল্লাহ। এবারের ইজতেমায় বিশ্ব তাবলিগ জামাতের শীর্ষ মুরুব্বি নিজামউদ্দিন মারকাজের আমির মাওলানা সাদ কান্ধলভীর অংশগ্রহণ এখনো নিশ্চিত না হলেও বুধবার সন্ধ্যায় তার তিন ছেলে ময়দানে পৌঁছেছেন। তারা হলেন- মাওলানা সাদ কান্ধলভীর বড় ছেলে মাওলানা ইউসুফ কান্ধলভী, মেজো ছেলে মাওলানা সাঈদ কান্ধলভী ও ছোট ছেলে মাওলানা ইলিয়াস কান্ধলভী। তারাসহ নিজামউদ্দিন মারকাজের ১৪ জনের একটি জামাত ময়দানে উপস্থিত হয়েছেন।
বিশ্বইজতেমায় আয়োজক কমিটির সদস্যরা আগত মুসল্লিদের তাদের জন্য নির্ধারিত ৮৭টি খেত্তায় অবস্থান নেওয়ার অনুরুদ করেছেন।
শুক্রবার সকালে ইজতেমা আয়োজক কমিটির শীর্ষ মুরব্বিদের পরামর্শক্রমে বৃহস্পতিবার থেকে রোববার পর্যন্ত নিম্নোল্লেখিত মাওলানাগণ সমবেত দেশি-বিদেশি মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে তাবলিগের ৬ উসুল ১। ইমান ২। নামাজ ৩ এলেম ও জিকির ৪। একরামুল মুসলিমিন ৫ তাসহিহে নিয়ত ৬। দাওয়াত ও তাবলিগ সম্পর্কে বিভিন্ন দিকনির্দেশনামূলক মূল্যবান বয়ান রাখবেন।
গতকাল বৃহস্পতিবার বাদ ফজর সমবেত মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে এস্তেকবালি (স্বাগত) বয়ান করেন দিল্লি নিজামুদ্দিন মারকাজের মাওলানা মোহাম্মদ শরিফ। তার বয়ান বাংলায় অনুবাদ করেন বাংলাদেশের মাওলানা শেখ আব্দুল্লাহ মনসুর।
বৃহস্পতিবার বাদ জোহর বয়ান করেন, পাকিস্তানের মাওলানা হারুনুর রশিদ। তার বয়ান বাংলায় অনুবাদ করবেন বাংলাদেশের মাওলানা আজিম উদ্দিন। বাদ আসর বয়ান করেন ইজতেমা আয়োজক কমিটির শীর্ষ মুরব্বি ওয়াসিফুল ইসলাম। বাদ মাগরিব বয়ান করবেন ভারতের মাওলানা আব্দুস সাত্তার। তার বয়ান বঙ্গানুবাদ করবেন বাংলাদেশের মাওলানা মুফতি জিয়া বিন কাশেম।
শুক্রবার বাদ ফজর বয়ান করবেন দিল্লির মাওলানা ইলিয়াস বিন সাদ কান্ধলভী। তিনি মাওলানা সাদ আহমেদ কান্ধলভীর বড় ছেলে। তার বয়ান বাংলায় অনুবাদ করবেন বাংলাদেশের মাওলানা মনির বিন ইউসুফ। এর পর সকাল ১০টায় তালিমের বয়ান করবেন দিল্লির মাওলানা ইলিয়াস বিন সাদ কান্ধলভী। জুমার আগে জুমার ফাজায়েল সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ বয়ান করবেন বাংলাদেশের মাওলানা মনির বিন ইউসুফ। বাদ জুমা আরবি ভাষায় বয়ান করবেন শেখ মোফলে। তার বয়ান বাংলায় অনুবাদ করবেন শেখ আব্দুল্লাহ মনসুর। বাদ আসর বয়ান করবেন বাংলাদেশের মাওলানা মোশাররফ হোসেন। বাদ মাগরিব বয়ান করবেন দিল্লির মাওলানা ইউসুফ বিন সাদ কান্ধলভী। তার বয়ান বাংলায় তরজমা করবেন মাওলানা জিয়া বিন কাশেম।
শনিবার বাদ ফজর বয়ান করবেন ভারতের মাওলানা সাঈদ বিন সাদ কান্ধলভী। তার বয়ান বাংলায় অনুবাদ করবেন বাংলাদেশের মাওলানা মুফতি ওসামা ইসলাম। সকাল সাড়ে ১০টায় মোয়াল্লেমদের উদ্দেশ্যে তালিমে হালকায় বয়ান রাখবেন ভারতের মাওলানা আব্দুল আজিম। বাদ জোহর বয়ান করবেন ভারতের মাওলানা মোহাম্মদ শরিফ। তার বয়ান বাংলায় তরজমা করবেন বাংলাদেশের মাওলানা মাহমুদুল্লাহ। বাদ আসর বয়ান করবেন পাকিস্তানের মাওলানা ওসমান আলী। তার বয়ান বাংলায় অনুবাদ করবেন মাওলানা আজিম উদ্দিন। বাদ মাগরিব বয়ান করবেন ভারতের মাওলানা মুফতি ইয়াকুব আলী। তার বয়ান বাংলায় তরজমা করবেন বাংলাদেশের মাওলানা মনির বিন ইউসুফ।
শেষ দিন রোববার বাদ ফজর বয়ান করবেন ভারতের মাওলানা মুফতি মাকসুদ। তার বয়ান বাংলায় অনুবাদ করবেন বাংলাদেশের মাওলানা শেখ আব্দুল্লাহ মনসুর। এর পরেই হেদায়েতের বয়ান ও দোয়া পরিচালনা করবেন দিল্লির মাওলানা ইউসুফ বিন সাদ কান্ধলভী। তার হেদায়েতি বয়ানের বাংলা অনুবাদ করবেন বাংলাদেশের মাওলানা মুফতি মনির বিন ইউসুফ। বিষয়টি বৃহস্পতিবার নিশ্চিত করেছেন বিশ্ব ইজতেমা দ্বিতীয় পর্বের মিডিয়া সমন্বয়কারী মো. সায়েম।
বিদেশী মেহমান: এবারের ইজতেমায় বিশ্বের শতাধিক দেশের প্রায় ১২-১৪ হাজার বিদেশি মেহমান অংশগ্রহণ করবেন বলে ধারণা করছেন ইজতেমার মুরুব্বিরা। ইতোমধ্যে ময়দানে প্রায় তিন হাজার বিদেশি মেহমান এসে পৌঁছেছেন বলে জানিয়েছেন তারা। আগত বিদেশী মেহমানের দেশগুলো হল, ভারত, পাকিস্তান, কুয়েত, সৌদি আরব, আফগানিস্তান, জাপান, ওমান, কানাডা, মোজাম্বিক, মালয়েশিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, জর্দান ও যুক্তরাজ্য অন্যতম। তিনি বলেন,বিদেশী মেহমানদের বাংলাদেশে আসা অব্যাহত রয়েছে।
তিনি আরো বলেন, বিশ্ব ইজতেমায় বিদেশি মেহমানদের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে ইজতেমা প্রশাসন। বিদেশি মেহমানদের খিত্তাকে ঘিরে বিশেষ নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলা হয়েছে। বিদেশি খিত্তার পাশে পুলিশ, র‌্যাবসহ সব বাহিনীর উপনিয়ন্ত্রণ কক্ষ স্থাপন করা হয়েছে। বিশ্ব ইজতেমায় বিদেশি মেহমানদের থাকা-খাওয়া, যাতায়াত ও ভ্রমণের ওপর নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।
বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বে আইন-শৃঙ্খলা অবনতির আশংকা নেই। সব পক্ষের সঙ্গে আমাদের কথা হয়েছে। সব কিছু ঠিক আছে। আশা করি শান্তিপূর্ণ ভাবে ইজতেমা সম্পন্ন হবে। বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় বিশ্ব ইজতেমার বিদেশি মেহমানদের নিরাপত্তায় স্থাপিত গাজীপুর মহানগর পুলিশের বিশেষ নিয়ন্ত্রণ কক্ষের সামনে পুলিশ ব্রিফিং করে জিএমপি কমিশনার মাহবুব আলম এসব কথা বলেন।
পুলিশ কমিশনার বলেন, প্রথম পর্বের মত দ্বিতীয় পর্বেও গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের পক্ষ থেকে ৬ হাজার পুলিশ মোতায়েন থাকবে। পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাব, ট্যুরিস্ট পুলিশ, নৌপুলিশ মোতায়ন আছে। সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে জিএমপি কমিশনার বলেন, মাওলানা সাদ আসবেন কি না, সে বিষয়ে কোনো তথ্য নেই আমার কাছে। তবে আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে রাখতে আমরা প্রস্তুত রয়েছি। আইন-শৃঙ্খলার অবনতি হয় এমন কিছু করতে দেওয়া হবে না। ইজতেমার পূর্বে আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভায় সাদ সাহেব সম্পর্কে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। এটা সরকারের বিষয়।
ধর্মমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান গতকাল বৃহস্পতিবার টঙ্গীর ইজতেমা মাঠ পরিদর্শন করেছেন। তিনি বলেন, বিশ্ব ইজতেমা নির্বিঘ্ন করতে সরকার সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। মুসল্লিদের সেবা ও নিরাপত্তায় জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, র‌্যাবসহ সংশ্লিষ্ট সব দপ্তর নিয়োজিত রয়েছে। এরপর মন্ত্রী বিদেশি খিত্তা পরিদর্শন করে বিদেশি মেহমানদের শুভেচ্ছা জানান।
মুসল্লিদের চিকিৎসাসেবা কার্যক্রম: টঙ্গী শহিদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, টঙ্গী সরকারি হাসপাতালে ইজতেমা উপলক্ষ্যে অস্থায়ীভাবে শয্যা সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে। সেই সঙ্গে মুসল্লিদের স্বাস্থ্যসেবায় বক্ষব্যাধি/অ্যাজমা ইউনিট, হৃদরোগ, ট্রমা (অর্থোপেডিক), বার্ন, ডায়রিয়া ইউনিট, স্যানিটেশন টিম ও ২০টি অ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।এছাড়াও চক্ষু, মেডিসিন ও সার্জারিসহ বিভিন্ন বিভাগের বিশেষজ্ঞসহ ১০০ চিকিৎসক রোস্টার অনুযায়ী চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত থাকবেন।
বিশ্ব ইজতেমাকে সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে সম্পন্ন করতে গাজীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মো: জাহিদ আহসান রাসেল , গাজীপুরের জেলাপ্রশাসক সহ প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা প্রতিদিন ইজতেমার সার্বিক প্রস্তুতির খোঁজখবর নিচ্ছেন।
৯ ফেব্রুয়ারি শুরু হবে দ্বিতীয় ধাপ। ১১ ফেব্রুয়ারি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে ৫৭তম বিশ্ব ইজতেমার এবারের আসর।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here