কাশিমপুরে গার্মেন্টস কর্মকতা অপহরণ ঘটনায় মহিলাসহ ৪ জন গ্রেফতার

0
44
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: গাজীপুর কাশিমপুরে চাঞ্চল্যকর গার্মেন্টস কর্মকতা রুহুল আমিন(৪৫) অপহরণ ঘটনায় জড়িত অপহরণ চক্রের মহিলাসহ ০৪ সদস্যকে দেশীয় অস্ত্রসহ গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১।
গত ২৫ ডিসেম্বর ২০২০ তারিখ সকাল অনুমান ১০.৩০ ঘটিকার দিকে কাশিমপুর চক্রবর্তী এলাকা হতে ভিকটিম গার্মেন্টস কর্মকতা মোঃ রুহুল আমিন(৪৫), পিতা-মোঃ আবুল বাশার, সাং-আদমপুর, থানা-মুকসুদপুর, জেলা-গোপালগঞ্জ, এ/পি-সাং-৩০ সারাবো, থানা-কাশিমপুর, জিএমপি, গাজীপুর অপহৃত হয়। অপহরণের পর অপহরণকারীরা ভিকটিমকে একটি মাইক্রোবাসে করে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে গাজীপুর মৌচাক শালবন বাগানের ভিতর নিয়ে গাছের সাথে বেধে রেখে প্রচন্ডভাবে মারধর করে ভিকটিমদের সাথে থাকা নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন জোরপূর্বক ছিনিয়ে নেওয়া পর তার পরিবারকে ফোন দিয়ে অপহরণের বিষয় জানায় এবং তার মুক্তিপণ হিসেবে ০৫ লক্ষ টাকা দাবি করে অন্যথায় অপহরণকারীরা ভিকটিমকে হত্যা করে লাশ গুম করবে বলে জানায়। উক্ত সময় অপহরণকারী চক্র ভিকটিমের পরিবারের কাছ থেকে তিনটি বিকাশ নম্বারের মাধ্যমে সর্বোমোট ১,০০,০০০/-(এক লক্ষ) টাকা আদায় করে নেয়। পরবর্তীতে গত ২৬ ডিসেম্বর ২০২০ তারিখ এ সংক্রান্তে গাজীপুর মহানগরীর কাশিমপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন এবং গত ১১ জানুয়ারি ২০২১ ইং তারিখ ভিকটিমের পরিবার র‌্যাব-১, স্পেশালাইজড কোম্পানী, পোড়াবাড়ী ক্যাম্প, গাজীপুর এসে এই অপহরণকারীদের গ্রেফতারের জন্য আইনগত সাহায্য কামনা করে। অভিযোগ প্রাপ্ত হওয়ার পর উক্ত অপহরণকারী চক্রকে গ্রেফতারের লক্ষ্যে র‌্যাব-১, স্পেশালাইজড কোম্পানী, পোড়াবাড়ী ক্যাম্প কমান্ডার লেঃ কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল-মামুন, (জি), বিএন দ্রততার সাথে ছায়া তদন্ত শুরু করেন এবং র‌্যাবের সোর্স নিয়োগসহ সকল ধরনের গোয়েন্দা কার্যক্রম পরিচালনা করে আসিতেছিল।
এরই ধারাবাহিকতায়: গত ১২ জানুয়ারি ২০২১ তারিখ অনুমান ১০.৩০ ঘটিকার সময় র‌্যাব-১, স্পেশালাইজড কোম্পানী, পোড়াবাড়ী ক্যাম্প, গাজীপুর এর একটি আভিযানিক দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, উক্ত অপহরণকারী চক্র গাজীপুর মহানগরীর টঙ্গী পশ্চিম থানাধীন গাজীপুরা এলাকায় অবস্থান করিতেছে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে অত্র কোম্পানীর কোম্পানী কমান্ডার লেঃ কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল মামুন, (জি), বিএন এর নেতৃত্বে সঙ্গীয় অফিসার/ফোর্স সহ গাজীপুর মহানগরীর টঙ্গী পশ্চিম থানার গাজীপুরা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে অপহরণকারী চক্রের মূলহোতা নারীসহ আসামী ১) মোঃ সবুজ হাওলাদার(৩৩), পিতা-মোঃ বাবুল হাওলাদার, ২) মোসাঃ শারমিন আক্তার(২৫), স্বামী-মোঃ সবুজ হাওলাদার, উভয় সাং-চাঁনপাড়া, থানা-বাসন, জিএমপি, গাজীপুর গ্রেফতার করা হয়। ভিকটিমের সনাক্ত ও ধৃত আসামীদের দেওয়া তথ্যমতে একই তারিখ গাজীপুর মহানগরীর কাশিমপুর এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে এই অপহরণ চক্রের অপর আসামী ৩) মোঃ রাসেল মিয়া(৩০), পিতা-আবুল হাসেম @হাসু, মাতা-মোসাঃ মাসুদা বেগম, সাং-গবিন্দ্রবাড়ি, থানা-কাশিমপুর, জিএমপি, গাজীপুর, ৪) মোঃ হাফিজুর ইসলাম(৩২), পিতা-মোঃ নুর মিয়া, মাতা-মেহের বানু, সাং-সারদাগঞ্জ, থানা-কাশিমপুর, জিএমপি, গাজীপুর’দেরকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় ধৃত আসামীদের দখল হতে ০১টি ষ্টিলের চাপাতি, ০২টি চাকু, ভিকটিমের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনসহ সর্বমোট ১০টি মোবাইল ফোন, বিকাশ লেনদেন এর কাজে ব্যবহৃত ০৮টি সীম কার্ড, নগদ ২১০০/-টাকা উদ্ধার করা হয়।
ঘটনার বর্ণনাঃ ধৃত আসামীদের ভাষ্যমতে, ধৃত ১ ও ২নং আসামী সম্পর্কে স্বামী-স্ত্রী এবং অপর দুই আসামী তাদের সহযোগী। ধৃত আসামীরা জানায় যে, দীর্ঘদিন যাবৎ পরস্পর যোগসাজশে তারা দেশীয় অস্ত্র ব্যবহার করে গাজীপুরের বিভিন্ন জনবহুল এলাকা হইতে মাইক্রোবাসে যাত্রী পরিবহনের নামে সু-কৌশলে নিয়মিত অপহরণ করিয়া ভিকটিমকে গাজীপুরে অবস্থিত বিভিন্ন শালবাগানের ভিতর আটক রেখে প্রচন্ডভাবে শারীরিক নির্যাতনসহ খুন করার হুমকি দিয়ে ভিকটিমদের সাথে থাকা নগদ টাকা, স্বর্ণালঙ্কার, মোবাইল ফোন জোরপূর্বক ছিনিয়ে নেওয়াসহ বিকাশের মাধ্যমে তাদের পরিবারের নিকট হতে মুক্তিপন হিসেবে লক্ষ লক্ষ টাকা আদায় করে আসছিল। গত ২৫/১২/২০২০ তারিখ ভিকটিম মোঃ রুহুল আমিন কাশিমপুর থেকে চন্দ্রায় আসার উদ্দেশ্যে বাসের জন্য অপেক্ষা করছিল। এমন সময় অপহরণকারীরা একটি বাইক্রোবাসে করে এসে ভিকটিমের কলায় ধারালো অস্ত্র ঠেকিয়ে ভিকটিমকে অপহরণ করে গাজীপুর মৌচাক এলাকায় শালবন বাগানের ভিতর নিয়ে গাছের সাথে ঁেবধে রেখে ভীষণ ভাবে শারীরিক নির্যাতন করে এবং তার সাথে থাকা নগদ টাকা,মোবাইল ফোন জোরপূর্বক ছিনিয়ে নেয়। এরপর অপহরণকারীরা তাদের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন থেকে কল করিয়া ভিকটিমের পরিবারের কাছে অপহরণের বিষয়টি জানায় এবং তাদের মুক্তিপন হিসেবে ০৫ লক্ষ টাকা দাবি করে এবং ভিকটিমকে খুন করে লাশ গুম করার হুমকি দিয়ে বিকাশের মাধ্যমে ১০০,০০০/-টাকা আদায় করে। র‌্যাবের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ধৃত আসামীরা উক্ত অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায়ের বিষয়ে স্বীকার করে এবং এই লোমহর্ষক অপহরণের বর্ণনা দেয়।
এ ব্যপারে ভিকটিম গার্মেন্টস কর্মকতা রুহুল আমিন বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

18 − one =